অফিসে হিল পরে না যাওয়া বের করে দেওয়া হলো তরুণীকে

Print

প্রথমে দর্শনধারী, তারপর গুণবিচারি ! অনেক কর্মস্থলেই এটি এখন অলিখিত নিয়ম। কিন্তু, এর জন্য কী কখনও কাউকে অফিস থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে? এমনটাই হয়েছে লন্ডনের এক তরুণীর সঙ্গে। হিলের বদলে ফ্ল্যাট সু পরে অফিস যাওয়ায় বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে তাঁকে। সেন্ট্রাল লন্ডনের পিডব্লিউসি অফিসে রিসেপশনিস্ট হিসেবে কাজ করতেন ২৭ বছর বয়সি নিকোলা থর্প। আর একদিন অফিস যেতে না যেতেই বাড়ি ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয় তাঁকে।

কেন? কারণ তিনি চার বা পাঁচ ইঞ্চি উঁচু হিল না পরেই অফিসে গিয়েছিলেন। সঙ্গে জানিয়ে দেওয়া হয়, ফ্ল্যাট সু কম্পানির ড্রেস কোডের মধ্যে পড়ে না।

ওই যুবতি বলেন, আমি যদি দোকানে গিয়ে দুই বা চার ইঞ্চির হিল দেওয়া জুতা না কিনি, তবে সেদিনের মাইনে না দিয়েই আমাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হবে বলে জানান অফিসের সুপারভাইজ়ার। আর তা না মানায় আমাকে সত্যিই বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয়। পাশাপাশি, তিনি যখন বলেন, পুরুষেরা তো ফ্ল্যাট সু পরেই অফিসে আসে তখন নাকি হাসাহাসিও করে সবাই।

তবে লড়াই জারি রেখেছেন ওই তরুণী। পার্লামেন্ট ওয়েবসাইটে একটি পিটিশনও দাখিল করেছেন তিনি। সেখানে লিখেছেন, ইচ্ছার বিরুদ্ধে নারী কর্মীদের হিল পরে অফিসে যেতে বাধ্য করাটা এখনও ব্রিটেনে বৈধ। ড্রেস কোডের পরিবর্তন করা উচিত যাতে মহিলারা নিজেদের ইচ্ছেমতো জুতো পরে অফিসে আসতে পারেন।

এই পিটিশনে যদি ১০ হাজার জন সই করেন, তাহলে সরকার কিছুটা হলেও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যাবে। আর যদি এক লাখ মানুষ সই করে, তাহলে বিষয়টি পার্লামেন্টে বিতর্কের জন্য বিবেচিত হবে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 22 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ