আন্দোলনে কার্যত অচল হয়ে পড়েছে রুয়েট

Print

প্রথমে ৩৩ ক্রেডিট পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে আন্দোল করে শিক্ষার্থীরা, পরে শিক্ষার্থীদের ওই অান্দোলনে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগে ধর্মঘট করছে শিক্ষকরা। গত ২৮ জানুয়ারি থেকে চলা এসব আন্দোলনে কার্যত অচল হয়ে পড়েছে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট)।
শিক্ষার্থীদের কাছে টানা দুই দিন অবরুদ্ধ থাকার পর অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে ধর্মঘট পালন করছে শিক্ষকরা। রবিবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ঘোষণা দেয়া এ ধর্মঘট এ মঙ্গলবারও (০৬ ফেব্রুয়ারি) অব্যাহত রয়েছে। আন্দোলনের কারণে বন্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের শিক্ষা কার্যক্রম। সব বিভাগের ক্লাস, ল্যাব ও অন্যান্য পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

তবে দ্রুত সমাধানের আশ্বাস কর্তৃপক্ষের। বিষয়টি সমাধানে উর্ধ্বতন মহলে আলোচনা চলছে বলে জানান এক শিক্ষক।
উল্লেখ্য, ৩৩ ক্রেডিট পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে গত ২৮ জানুয়ারি থেকে ক্লাস পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন করে আসছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ ও ১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা। এরপর দাবি আদায়ে গত শনিবার (০৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ২টা থেকে রবিবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ২টা পর্যন্ত উপাচার্যসহ শিক্ষকদের অবরুদ্ধ করে রাখেন শিক্ষার্থীরা।
রবিবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় একাডেমিক কাউন্সিলের এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে দুপুর ১টায় একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য অধ্যাপক ইকবাল মতিন ‘৩৩ ক্রেডিট’ পদ্ধতি বাতিলের বিষয়টি ঘোষণা করেন। এরপর দেড়টার দিকে প্রশাসন ভবনে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খাইরুজ্জামান লিটন ও সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার এসে উপাচার্যসহ শিক্ষকদের অবরোধ মুক্ত করেন।
পরে বিকেল ৩টায় শিক্ষক সমিতির এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উসকানিদাতা, নেতৃত্বদানকারী এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শিক্ষকদের নিয়ে নোংরামিসহ অসদাচারণকারী শিক্ষার্থীদের শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত তারা সকল প্রকার ক্লাস পরীক্ষা থেকে নিজেদের বিরত রাখার সিদ্ধান্ত নেন।
শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি এনএইচএম কামরুজ্জামান সরকার  বলেন, ‌‘কিছু শিক্ষার্থী আমাদের নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্নভাবে গালিগালাজ করেছে। অনেকে আমাদেরকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেছে। এছাড়াও তারা আমাদের কথার অবাধ্য হয়ে আমাদেরকে ২৩ ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখে। এসব ঘটনায় যারা জড়িত তাদের শাস্তি না হওয়া পর্যন্ত আমরা ক্লাস পরীক্ষা গ্রহণ থেকে বিরত থাকবো।’

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 109 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ