আমার স্বামী আমার বোনের প্রতি আকর্ষণ বোধ করেন!

Print


আমার স্বামী আমার বোনের প্রতি আকর্ষণ বোধ করেন!

প্রশ্ন : আমি ৩০ বছর বয়সী একজন বিবাহিত নারী। কিছুদিন আগে আমার ২৭ বছর বয়সী বোন আমাদের বাসায় আসে।

কর্মস্থল পরিবর্তনের কারণে সে আমাদের শহরে আসে। ছয় মাস ধরে সে আমাদের সঙ্গেই থাকছে। আর আমার পরিকল্পনা হলো তার বিয়ে না হওয়া পর্যন্ত সে আমাদের সঙ্গেই থাকবে।
কিন্তু একদিন আমার স্বামী এসে আমার বোনকে অন্য কোথাও পাঠিয়ে দিতে বলেন। কারণ আমার স্বামী আমার বোনের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়ছেন। আমার বোনকে নিয়ে তার এই ধরনের চিন্তার জন্য তিনি আমার কাছে ক্ষমাও প্রার্থনা করেন। এবং আমার বোন যদি আমাদের বাসা ছেড়ে চলে যায় তাহলেই ভালো হবে বলেও জানান আমার স্বামী। এরপর থেকেই আমার বোন আলাদাভাবে বাস করছে।

এর আগে আমার স্বামীর সঙ্গে আমার সম্পর্ক খুব একটা শান্তিপূর্ণ ছিল না। কিন্তু আমার ধারণা আমাদের সম্পর্কটা গড়পড়তা দাম্পত্য সম্পর্কের মতোই ছিল। কিন্তু এই ঘটনার পর আমাদের সম্পর্কের অবনতি ঘটে। কারণ আমি আমার স্বামীকে ক্ষমা করতে পারিনি। আর মনে মনে আমি তাকে একজন বাজে চরিত্রের লোক হিসেবে গণ্য করতে থাকি। যদিও তিনি কখনোই আমার বোনের সঙ্গে বাজে কোনো আচরণ করেননি এবং তাকে যথেষ্ট সম্মান দিতেন। আমাদের সম্পর্ক এখন আরো অবনতির দিকে যাচ্ছে। এই পরিস্থিতি আমি কীভাবে সামলাব।

উত্তর দিচ্ছেন ড. মধুমিতা
সমস্যাটির সমাধান নিজে নিজে না করার চেষ্টা করে পরামর্শ চেয়ে আপনি ভালোই করেছেন। আমার ধারণা আপনাকে নিজের চিন্তা বদলাতে হবে। প্রকৃতপক্ষে আপনার স্বামী নিজের অপরাধ স্বীকার করে আপনার কাছে সত্যটা কী তা বলে ঠিক কাজটিই করেছেন। তিনি নিজে কোনো দুর্ঘটনা ঘটানোর আগেই আপনাকে সাবধান করেছেন। তার সম্ভবত সহযোগিতাও দরকার। আর এ কারণেই তিনি আপনার কাছে সত্যটা স্বীকার করার সাহস দেখিয়েছেন।

আপনার সরবরাহ করা তথ্য মতে আপনি আপনার স্বামীর চরিত্র নিয়ে উদ্বিগ্ন এবং তার এই বাজে চিন্তার পরিণতি ভেবে আতঙ্কিত। কিন্তু এসব শুধু আপনার চিন্তার মধ্যেই ঘটছে। তিনি বাস্তবে কোনো অপরাধ এখনো করেননি। আসলে আপনার স্বামী সত্যটা স্বীকার করেছেন এ জন্যই যেন আপনাদের সম্পর্কে কোনো সমস্যা তৈরি না হয়।

আমার ধারণা আপনার বরং আপনার স্বামীর ওপর খুশি হওয়া দরকার যে তিনি আপনাকে তার সমস্যা সম্পর্কে আপনাকে জানিয়েছেন। এবং আপনার বোনকে অন্য কোথাও থাকার ব্যবস্থা করতে বলেছেন। তিনি খারাপ মানুষ হলে এটা করতেন না। সুতরাং আপনার বরং আপনার স্বামীর প্রতি ইতিবাচক মনোভাব লালন করা উচিত। এবং স্বামীকে দোষারোপ না করে বরং তার সঙ্গে আপনার সম্পর্ক নিয়ে আরো বেশি আত্মবিশ্বাস অনুভব করা উচিত। আর মনে রাখবেন আস্থা এবং মানিয়ে নেওয়ার মাধ্যমেই কোনো সম্পর্ক টিকে থাকে।

আপনি যদি আপনার স্বামীর সততার মূল্যায়ন করেন এবং তার আপনার অনুভূতিগুলো প্রকাশ করেন তাহলে আপনাদের ভুল বুঝাবুঝি দূর হয়ে যাবে। আপনি বলেছেন আপনাদের সম্পর্ক গড়পড়তা দাম্পত্য সম্পর্কগুলোর মতোই। তার মানে আপনাদের সম্পর্কে পর্যাপ্ত যোগাযোগের ঘাটতি রয়ে গেছে। আপনাদের সম্পর্কটিকে আরো শক্তিশালী করতে দুজনে পরস্পরের সঙ্গে খোলাখুলি আলোচনা করুন। তাহলেই সমাধান বের হয়ে আসবে। কোনো উপসংহারে পৌঁছার আগে এবং কারো আচরণ সম্পর্কে চূড়ান্ত মূল্যায়ন করার আগে সব সময়ই নিজেকে প্রশ্ন করবেন। আর একটা কথা মনে রাখবেন এক হাতে কখনো তালি বাজে না।
আমার পরামর্শ হলো আপনি স্বশরীরে কোনো মনোচিকিৎসকে কাছে গিয়ে পরামর্শ নিন। যাতে আপনি আরো ইতিবাচক এবং মানিয়ে চলার জীবন যাপন করতে পারেন।

ড. মধুমিতা একজন জ্যেষ্ঠ মনোবিজ্ঞানী

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 139 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ