ইসলামী ব্যাংকে আরও দু’শতাধিক পদে বদল

Print

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের পর এবার ব্যবস্থাপনায় ব্যাপক রদবদল করা হয়েছে। নতুন এমডি আবদুল হামিদ মিঞা দায়িত্ব নেওয়ার প্রথম দিনেই দুই শতাধিক পদে পরিবর্তন আনা হয়েছে। গতকাল সোমবারমধ্যরাত পর্যন্ত সব উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (ডিএমডি) দায়িত্ব পুনর্বণ্টন ও নতুন পদোন্নতি পাওয়াদের পদায়ন করা হয়। ব্যাংকের
দায়িত্বশীল সূত্রে এ খবর জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনায় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত অপারেশন উইং থেকে ডিএমডি মো. মাহবুব-উল-আলমকে সরিয়ে শামসুজ্জামানকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক বিভাগের প্রধান থেকে ডিএমডি সাদেক ভঁূইয়াকে সরিয়ে অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ আইসিটি বিভাগের প্রধান করা হয়েছে। নতুন পদোন্নতি পাওয়া তিন ডিএমডির মধ্যে মোহন মিয়াকে ডেভেলপমেন্ট উইং, মোহাম্মদ মনিরুল মাওলাকে রিটেইল ব্যাংকিং এবং কোম্পানি সেক্রেটারি আবু রেজা মো. ইয়াহিয়াকে ইন্টারনাল কন্ট্রোল অ্যান্ড কমপ্লায়েন্স উইংয়ের প্রধান করা হয়েছে।
সার্বিক বিষয়ে জানতে এমডি আবদুল হামিদকে কয়েক দফা টেলিফোন করেও পাওয়া যায়নি। অন্য কোনো কর্মকর্তাও এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু বলেননি।
উল্লেখযোগ্য আরও রদবদলের মধ্যে ডিএমডির পরের পদ এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট (ইভিপি) ও প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা (সিএফও) মোহাম্মদ শহিদ উল্লাহকে বদলি করে আগ্রাবাদ শাখার ব্যবস্থাপক করা হয়েছে। প্রধান কার্যালয়ের ডেভেলপমেন্ট উইংয়ের প্রধান মো. মোশাররফ হোসেনকে পাঠানো হয়েছে ঢাকা সেন্ট্রাল জোনের প্রধান করে। ঢাকা দক্ষিণ জোনের প্রধান মো. উবায়দুল হককে প্রধান কার্যালয়ের রুরাল ডেভেলপমেন্ট উইংয়ের প্রধান করা হয়েছে। মানবসম্পদ বিভাগের প্রধান ইয়ানুর রহমানকে পাঠানো হয়েছে ঢাকা দক্ষিণ জোনের প্রধান করে। খুলনা জোনের প্রধান আবু নাসের মোহাম্মদ নাজমুল বারীকে প্রধান কার্যালয়ের হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্সের প্রধান করা হয়েছে। ঢাকা উত্তর জোনের প্রধান কাওসার-উল-আলমকে প্রধান কার্যালয়ের এসএমই উইং-২ এবং নোয়াখালী জোনের প্রধান মোহাম্মদ উল্লাহকে এসএমই উইং-১ এর প্রধানের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আর সিলেট জোনের প্রধান মাহমুদ আহমেদকে ইসলামী ব্যাংক ট্রেনিং অ্যান্ড রিসার্চ উইংয়ের প্রধান করা হয়েছে। এছাড়া ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সেক্রেটারিয়েটের প্রধান সিদ্দীকুর রহমানকে বদলি করে ঢাকার নবাবপুর শাখায় পাঠানো হয়েছে। এছাড়া ইভিপির নিচের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন পদে রদবদল করা হয়। এরকম রদবদল আরও হতে পারে বলে জানা গেছে।
জানা গেছে, ব্যাংকের ডিএমডি-১ হাবিবুর রহমান ভূঁইয়াকে আগের ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) হিসেবে রেখেছিল। তার বিষয়ে গতকাল পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এছাড়া চুক্তিভিত্তিক দুই ইভিপি এনআই খান ও কবির হোসেনের চুক্তি বাতিল করা হয়েছে।
গত বৃহস্পতিবার ইসলামী ব্যাংকের পর্ষদ ভেঙে পুনর্গঠন করা হয়। আগের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মুস্তফা আনোয়ার সরে যাওয়ায় সাবেক সচিব আরাস্তু খানকে নতুন চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ভাইস চেয়ারম্যান এম আযীজুল হকের স্থলে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ আহসানুল আলম দায়িত্ব নেন। এছাড়া নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে মেজর জেনারেল (অব.) ইঞ্জিনিয়ার আবদুল মতিন, অডিট কমিটির চেয়ারম্যান বিডিবিএলের সাবেক এমডি ড. মো. জিল্লুর রহমান এবং পাসপোর্ট অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক আবদুল মাবুদকে ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান পদে বহাল রাখা হয়। অন্যদিকে, মোহাম্মদ আবদুল মান্নানের জায়গায় দায়িত্ব দেওয়া হয় ইউনিয়ন ব্যাংকের এমডি মো. আবদুল হামিদ মিঞাকে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদনের পর গতকাল সোমবার তিনি দায়িত্বগ্রহণ করেন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 113 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ