একটু সহানুভূতির অপেক্ষায় অসহায় শিশুরা!

Print

একটু সহানুভূতির অপেক্ষায় অসহায় শিশুরা!

1477157821

ঈদ উদযাপনকে কেন্দ্র করে শহরের ছোট বড় সব ধরনের শপিংমলগুলোতে হচ্ছে উচড়ে পড়া ভিড়। শুধু কেনাকাটাতেই শেষ নয়, ঈদ নিয়ে যেন ভাবনার শেষ নেই মানুষের। শুধু ঈদের কথা ভাবতে পারে না দেশের অসহায় দরিদ্র মানুষেরা।
বিশেষ করে মালিকুলের মত অসহায় শিশুরা। দু’মুঠো ভাত জুটবে কি না এটা নিয়েই যাদের সংশয় থেকে যায় তাদের আবার ঈদ! নির্দিষ্ট তেমন কোন আবাস নেই, কলাবাগান শিশু পার্কের পাশেই রাস্তার ধারে রাত্রি যাপন করা মালিকুল নামের ছেলেটিকে ঈদের কথা বলতেই থমকে গিয়ে বলল- ‘আমগো টেহা নাই, খাওনে পাইনা আবার ঈদের কাপড়। আম্মায় ষাইট সত্তর টেহা ভিক্কা কইরা আনে, এই দিয়া আমগো দিন যায়। আর আব্বা, আব্বায় আগে রিকসা চালাইতো, এক্সিডেন কইরা অহন আর কাম কইরবার পারে না। আম্মায় যা ভিক্কা কইরা আনে এই দিয়াই দিন চইলা যায়। ঘুরতে তো মন চায়ই শিশুপার্ক, চিড়িয়াখানা, শিশু মেলায় যাবার ইচ্ছা করে, তয় কেমননে যামু ? টেহা ছাড়া কি কেহ ডুকতে দিবো?
হায়রে পৃথিবীর নিয়তি! অবুঝ শিশু। পড়াশোনা করা তো দূরের কথা, ঠিকমত খাওয়ারও সামর্থ্য নেই শিশুটির। নিজের অজ্ঞাতেই বলে ফেললো এই সমাজের মানুষদেরকে সেবা করার কথা। অথচ সে যে মানুষের সেবা করতে চাচ্ছে, এই প্রভাবশালী বিত্তবান মানুষরাই তার মত এমন অসহায়দের জন্য একটু সহানুভূতি দেখায় না। দেশে শিক্ষার হার প্রতিনিয়ত বাড়লেও যে হচ্ছে না মানুষের পরিচয় বহণকারী বিবেকের পরিবর্তন।
রাজধানী ঢাকায় যানযটের অন্যতম প্রধান কারণ প্রাইভেটকার। এখানে এমন পরিবারের সংখ্যা খুব কম, যে পরিবারে একটি নয়, আছে একাধিক গাড়ি। উন্নয়নশীল এই দেশের রাজধানীতে বাড়ি-গাড়ির অবস্থা দেখলে যেন মনে হয় দরিদ্র আর অসহায়দের দেশ নয় বাংলাদেশ। সবাই যদি এসব অসহায় শিশুদের একজনেরও পাশে এসে দাঁড়াতেন তবে মালিকুলের মত শিশুদের মনের জ্বালা হয়তো কিছুটা কমতো।
পথ শিশুদের ঈদ ভাবনা প্রসঙ্গে অধ্যাপক মোহাম্মদ উল্লাহ্ বলেন, আমরা সবাই দেখি, আফসোস করি আবার কেউ এই বিষয়গুলো মেনে নিতে না পেরে নীরবে কান্না করি। অনেকে নিজেকে ধিক্কারও দেই এবং বলি আমরা কি পারবো না এই দেশ থেকে অভাব দূর করতে, কেন এমন হবে এই পথ শিশুদের জীবন, কেনো পারেনা তারা স্বাভাবিক জীবন? অনেকে এসব প্রশ্নে উত্তর খুজছি। এই কথাগুলো আমরা সবাই কম-বেশি জানি এবং বুঝি। এরপরেও কেউ সহযোগিতার হাত বাড়ায় না। আসুন, সবাই সহযোগিতার হাত বাড়াই। আপনার দেখা দেখি অন্যরাও সহযোগিতা করবে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 102 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ