এসএসসির ফল বিপর্যয় কাটিয়ে উঠেছে যশোর বোর্ড

Print
এসএসসির ফলাফলে গত বছরের বিপর্যয় কাটিয়ে উঠেছে যশোর বোর্ড। গত বছরের তুলনায় এবার পাসের হার বেড়েছে ৭ শতাংশ। আর জিপিএ-৫ প্রাপ্তি বেড়েছে প্রায় দুই হাজার ৩শ। এ বছর এ বোর্ডে পাসের হার ৯১ দশমিক ৮৫ ভাগ, জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯ হাজার ৪৪৪ জন।
বুধবার এসএসসির ফলাফল প্রকাশের পর যশোর শিক্ষাবোর্ডের এই চিত্র উঠে এসেছে। গত বছরের বিপর্যয়ের পর যশোর বোর্ড বিভিন্ন পরিকল্পনা নিয়ে তার বাস্তবায়ন করায় এবার এই অগ্রগতি হয়েছে বলে মনে করছেন বোর্ড কর্মকর্তারা।
চলতি ২০১৬ সালে যশোর বোর্ড থেকে ১ লাখ ৪৮ হাজার ৬৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১ লাখ ৩৫ হাজার ৯৯৪ জন উত্তীর্ণ হয়েছে। এদের মধ্যে ছাত্র ৬৯ হাজার ২১৭ জন ও ছাত্রী ৬৬ হাজার ৭৭৭ জন। পাসের হার ৯১ দশমিক ৮৫ শতাংশ। এ বছর জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯ হাজার ৪৪৪ জন শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে ছাত্র ৫ হাজার ৮৫ ও ছাত্রী ৪ হাজার ৩৫৯ জন।
অথচ গত বছর যশোর বোর্ড থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৮৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছিল ১ লাখ ৭ হাজার ৯০৮ জন। পাসের হার ছিল ৮৪ দশমিক ৫১ শতাংশ। আর জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৭ হাজার ১৯৮ জন।
যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড সূত্র জানায়, চলতি বছর যশোর বোর্ডে জিপিএ-৫ প্রাপ্তির সংখ্যা প্রায় ২৩শ বৃদ্ধি পেয়ে ৯ হাজার ৪শ’ ৪৪ জনে দাঁড়িয়েছে। গত বছর এ সংখ্যা ছিল ৭ হাজার ১৮১। ২০১৪ সালে এ সংখ্যা ছিল ১০ হাজার ৯৪৪। ২০১৩ সালে এই বোর্ডে জিপিএ-৫ প্রাপ্তির সংখ্যা ছিল ৯ হাজার ৮৬।
সূত্র মতে, এ বছর যশোর বোর্ডে তাক লাগানোর মতো ফলাফল করেছে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এই বিভাগ থেকে ৩২ হাজার ২০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে পাস করেছে ৩১ হাজার ৩৭৫ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮ হাজার ৫৩৭ জন। জিপিএ-৫ প্রাপ্তির ক্ষেত্রে এগিয়ে আছে ছেলেরা। সর্বোচ্চ এ ফল অজর্নকারীদের মধ্যে ৪ হাজার ৭৮৮ জন ছাত্র ও ৩ হাজার ৭৪৯ জন ছাত্রী। এই বিভাগে পাসের হার ৯৭ দশমিক ৯৯ ভাগ। গত বছর এই বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ প্রাপ্তির সংখ্যা ছিল ৬ হাজার ৫৮৫ জন। আর পাসের হার ছিল ৯৫ দশমিক ৯৭ ভাগ।
ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে ৩৯ হাজার ৭৮০ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করেছে ৩৭ হাজার ৭৬৯ জন। পাসের হার ৯৪ দশমিক ৯৪ ভাগ। গতবছর এ হার ছিল ৮৮ দশমিক ৫৭ ভাগ। এই বিভাগ থেকে এবছর জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭০৮ জন। গতবছর এ সংখ্যা ছিল ৪৬০ জন।
যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র জানিয়েছেন, গত বছরের ফল বিপর্যয়ের পর এবার বোর্ডের ফলাফল ভাল হয়েছে। এর কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন, গতবছরের বিপর্যয় নিয়ে তারা বিশ্লেষণ ও করণীয় নির্ধারণ করেন। এরপর সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী মাঠে নামেন। বিভিন্ন স্কুল তাৎক্ষণিক পরিদর্শনসহ শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এ ছাড়া গতবছর ফল খারাপ হওয়ায় অভিভাবকরাও তাদের সন্তানদের এবার বাড়তি যত্ম নিয়েছেন। এসব কিছু মিলিয়ে এবার যশোর বোর্ডের ফলাফল সন্তোষজনক হয়েছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 27 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ