এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি গ্রেফতার ছয় ছাত্র

Print

বরিশাল নগরীর শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেনীর ছাত্র সাইদুর রহমান হৃদয় গাজীকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় গ্রেফতারকৃত ছয় ছাত্র বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া এসএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি।
সূত্রমতে, সময় সংক্ষেপের কারণে ওই ছয় ছাত্রের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বরিশাল টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ কর্তৃপক্ষও তাদের পরীক্ষা নেয়ার বিষয়ে দায়িত্ব নিতে অপারগতা প্রকাশ করে। এছাড়া বরিশালে কিশোর আদালত না থাকায় এ পরীক্ষার সুযোগ পায়নি ওই ছয় শিক্ষার্থী।

বরিশালে শিশুদের আইনী সহায়তা প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা বেসরকারি সংস্থা স্কোপের নির্বাহী পরিচালক কাজী এনায়েত হোসেন শিপলু জানান, হৃদয় হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতারকৃত ছয় ছাত্রকে বরিশালে সংশোধনাগার না থাকায় যশোর কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানো হয়েছে।
তিনি আরো জানান, পরীক্ষার বিষয়ে টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষকে বরিশাল শিশু আদালত তলব করেছিল। কিন্তু তিনি সময় সংক্ষেপের কারণে দায়িত্ব নিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। ফলে ওই ছাত্ররা এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি।
বরিশাল সমাজ সেবা অধিদপ্তরের শহর প্রবেশন অফিসার সাহাজাদী আক্তার বলেন, গ্রেফতারকৃত ছয় ছাত্রের পরীক্ষার বিষয়ে চেষ্টা করা হয়েছিলো। কিন্তু সময় সংক্ষেপ ও নানা কারণে ওদের পরীক্ষার সুযোগ করে দেয়া যায়নি।
এ ব্যাপারে বরিশাল টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ জাকির হোসেন জানান, ছয় ছাত্রকে যশোর কিশোর আদালতে পাঠানো হয়েছে। ছাত্রদের পরীক্ষার বিষয়ে আদালত তলব করে দায়িত্ব নিতে বলেছিলো। কিন্তু ৩০ তারিখ আদালত থেকে আদেশ বের করে যশোর গিয়ে ২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে তাদের পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি।
তিনি আরো বলেন, জেল কোড অনুসারে বরিশাল কারাগারে তাদের রাখার বিধান নেই। যার কারণে তাদের বরিশালে এনে পরীক্ষা নেয়া যায়নি। তবে ১০/১৫ দিন সময় পাওয়া গেলে এ পরীক্ষার সুযোগ করে দেয়া সম্ভব হতো। এমনকি ওদের ১৮ বছর বয়স না হওয়া পর্যন্ত কোনো বিচারকার্যও করা যাচ্ছে না।
উল্লেখ্য, গত শনিবার সকালে শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র সাইদুর রহমান হৃদয় গাজীকে নগরীর পরেশ সাগর মাঠে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করে কিশোর সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনার পর পরই পুলিশ অভিযান চালিয়ে নগরীর বিভিন্ন স্থান থেকে হত্যার সাথে জড়িত সাইদ, রাজু, মুরাদ, ইমন, নাহিদ ও শান্ত নামের ছয় কিশোরকে গ্রেফতার করে। তারা সবাই পরেশ সাগর মাঠ সংলগ্ন সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্র।
গ্রেফতার হওয়া সাইদ ও রাজু নামের দুই কিশোর হৃদয় গাজীকে হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে দেয়া জবানবন্দীতে জানিয়ে

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 117 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ