কুড়িগ্রামের রাজিবপুরে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গম আত্মসাতের অভিযোগ

Print

সাইফুর রহমান শামীম, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:
কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলার ১নং রাজিবপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুল আলম বাদল, ইউপি সদস্য মোঃ বাবু মিয়া এবং গ্রাম পুলিশ (দফাদার) আব্দুর বারীর বিরুদ্ধে ১০ লাখ ৮৫ হাজার ৪৯০ টাকার ভিজিএফ’র গম আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয় জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে একটি মামলার প্রেক্ষিতে রাজিবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অভিযোগের সত্যতা সম্পর্কে অনুসন্ধান পূর্বক প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। মামলা নং- ২৩/২০১৭ইং।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষ্যে ১নং রাজিবপুর ইউনিয়নে ৬ হাজার ৮৫০টি ভিজিএফ কার্ডের বিপরীতে প্রতি কার্ডে ১৩ কেজি ৩০০ গ্রাম করে গম বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ৩ হাজার ৮৫০ জনকে গত ২৩ জুন তারিখে ৮ কেজি করে গম বিতরণ করা হয়েছে মর্মে উল্লেখ করা হয়েছে। ৩ হাজার ৮৫০ জনের প্রতি কার্ডে ৫ কেজি ৩০০ গ্রাম এবং ৩ হাজার কার্ডের পুরো গম (৬০,৩০৫ কেজি) প্রতি কেজি ১৮ টাকা দরে বিক্রি করে ১০ লাখ ৮৫ হাজার ৪৯০ টাকা আত্মসাত করা হয়েছে বলে মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়াও এ অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গেলে রাজিবপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আব্দুস আব্দুস সাত্তার জিহাদী নামে এক সাংবাদিককে শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত করে ক্যামেরা ছিনতাই করা হয়েছে বলে মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে ১নং রাজিবপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুল আলম বাদলের সাথে কথা হলে তিনি আব্দুস সাত্তার জিহাদীকে লাঞ্ছিত করার সত্যতা অস্বীকার করেন।
বর্তমানে মামলার বাদী আব্দুস সাত্তার জিহাদীকে জীবন নাশের ভয়-ভীতি সহ মামলা তুলে নেয়ার হুমকী দেয়া হচ্ছে। মামলার বাদী জীবনের ভয়ে এখন পালিয়ে রয়েছেন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 65 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ