কৃষক দিশেহারা রাজারহাটে ধানক্ষেতে ব্লাষ্ট ও খোলপঁচা রোগের ব্যাপক বিস্তার

Print

সাইফুর রহমান শামীম,কুড়িগ্রাম ॥ দিনের বেলা গরম ও রাতে ঠান্ডা,কুয়াশা ,শিশির ভেজা সকাল,মেঘাচ্ছন্ন আকাশ এবং গুড়িগুড়ি বৃষ্টি সহ বিরুপ আবহাওয়ার কারনে কুড়িগ্রামের রাজারহাটে শতশত হেক্টর জমির ধান ক্ষেতে ব্লাষ্ট ও খোলপঁচা রোগের বিস্তার লাভ করেছে। রাতারাতি এই রোগ এক ক্ষেত থেকে অন্য ক্ষেতে ছড়িয়ে পড়ায় দিশেহারা পরেছেন কৃষকরা।
উপজেলার চাকিরপশার ইউনিয়নের খুলিয়াতারী,পীরমামুদ,বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের মনঃস্বর,পাড়ামৌলা মৌজা সহ বিভিন্ন স্থানের শতাধিক ধান ক্ষেত ঘুরে দেখা গেছে,অধিকাংশ ধান ক্ষেত সংক্রামিত হয়ে পড়েছে। খুলিয়াতারী গ্রামের ভবেশ চন্দ্র মাষ্টার,প্রশাদ চন্দ্র ও ভাদুরাম জানান,শুরুতে আবাদ ভালোই হয়েছিল,কিন্ত গত ২/৩ দিনের মধ্যেই পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারন করেছে। তাদের কয়েক একর জমির ইরি বোরো-২৮ ধানক্ষেতে অপরিপক্ক শীষের গোড়ায় কালচে দাগ ও চিটায় বিবর্ণ হয়ে পড়েছে ধানের শীষ। পাশের ক্ষেতের প্রদীপ মাষ্টার,জাহাঙ্গীর,গোবিন্দ ও ছয়ফুল ইসলাম দেখালেন,তাদের ধানক্ষেতের অধিকাংশ গাছের মা পাতা মরে গেছে। একই এলাকার রামলাল বসুনীয়া, সাজু মিয়ার ধানক্ষেতে দেখা দিয়েছে খোলপচাঁ রোগ। একই স্থানের বিভিন্ন ধান ক্ষেত ভিন্ন ভিন্ন রোগে আক্রমিত হওয়ায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। ভবেশ চন্দ্র জানান,এমনিতেই কৃষি সামগ্রী ও শ্রমিকের মজুরী বৃদ্ধির ফলে ধান চাষাবাদে তেমন লাভ হয় না,তার উপর এই অবস্থায় উত্তরন না ঘটলে আমার মত কৃষকরা মারাতœক ক্ষতির সম্মূখীন হবে। বিদ্যানন্দ ইউনিয়নের মনঃস্বর গ্রামের রানা,পাড়ামৌলা গ্রামের রমজান ও জাহাঙ্গীরের ধান ক্ষেত সহ আশেপাশের অধিকাংশ ধান ক্ষেতে ও এই রোগ বিস্তার লাভ করেছে।
গত এক সপ্তাহের মধ্যে উপজেলার ছিনাই,ঘড়িয়ালডাঙ্গা,উমরমজিদ,নাজিমখা ও রাজারহাট ইউনিয়ন সহ উপজেলার শতশত হেক্টর জমির ধান ক্ষেতে ব্লাষ্ট ও খোলপঁচা রোগ দেখা দিয়েছে বলে জানা গেছে। দ্রুত রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব না হলে ধান চাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়বেন বলে আশংকা প্রকাশ করছেন।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন সূত্রে জানা যায়, প্রথমে পাতায় চোখাকৃতির দাগ,পরে মধ্য ভাগ সাদা ছাই ও বাইরের দিকের প্রান্ত গাঢ় বাদামী বর্নের হয়,কয়েকটি দাগ একত্রিত হয়ে পাতা শুকিয়ে যায়,থোর বের হওয়ার আগে আক্রান্ত হলে গিটে কালো দাগ পড়ে এবং দুধ অবস্থায় শীষ আক্রান্ত হলে গোড়া পঁচে শীষ ভেঙ্গে পড়ে ও চিটা হয়। এসবই ব্লাষ্ট রোগের লক্ষন।
এদিকে চলতি মৌসুমে রাজারহাট উপজেলায় ১১হাজার ২শ৩০হেক্টর জমিতে ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হলেও ১১হাজার ৭’শ হেক্টর জমিতে ধান চাষাবাদ হয়েছে বলে জানা গেছে।
উপজেলা কৃষি অফিসার ষষ্টি চন্দ্র রায় বিভিন্ন স্থানে ধান ক্ষেতে ব্লাষ্ট ও খোলপঁচা রোগের সত্যতা স্বীকার করে জানান,বিরুপ আবহাওয়া করনে মৌসুমের শুরু থেকে গ্রামে গ্রামে উদ্বুদ্ধ করন সভা,লিফলেট বিতরন,প্রেসক্রিপসন ও কৃষকদের পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। কৃষকদের আতঙ্কিত না হয়ে তাদের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত স্প্রে ও ঔষুধ প্রয়োগ করা হলে এই রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে বলে জানান।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 110 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ