গ্যাস বিক্রি করে আবাসিক থেকেই বেশি আয় করবে সরকার

Print

গ্যাসের দাম বাড়ার কারণে সরকারের আয় বাড়তে যাচ্ছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আয় হবে আবাসিক খাত থেকে। আবাসিক খাতে অস্বাভাবিক দাম বাড়ানোর কারণে এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। প্রায় ৫০ শতাংশ গ্যাসের দাম বেড়েছে এ খাতে। নতুন দাম নির্ধারণের পর গ্যাস বিক্রির আয় পর্যালোচনা করে এ তথ্য পাওয়া গেছে।
গ্যাস বিক্রি থেকে বছরে চার হাজার ১৮৫ কোটি টাকা আয় বাড়বে। এর মধ্যে আবাসিক খাত থেকেই আসবে এক হাজার ৮৮৫ কোটি টাকা। আর বাকি দুই হাজার ৩০০ কোটি টাকা আসবে ৮৬ ভাগ বিক্রি করা গ্যাস থেকে।
বর্তমানে গ্যাস বিক্রি থেকে বছরে মোট আয় হয় ১৮ হাজার ৩৫৯ কোটি টাকা। এর মধ্যে আবাসিক খাত থেকে আয় হয় পাঁচ হাজার ৬৯৯ হাজার কোটি টাকা। নতুন দাম বাড়ানোর পরে বছরে গ্যাস বিক্রি থেকে আয় হবে ২২ হাজার ৫৪৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে আবাসিক খাত থেকে আয় হবে সাত হাজার ৫৮৪ কোটি টাকা।
সবচেয়ে বেশি গ্যাস ব্যবহার হয় বিদ্যুতে। ৪৩ ভাগ। বিদ্যুতে গ্যাস বিক্রি থেকে বছরে আয় বাড়বে ৪২৫ কোটি টাকা। বর্তমানে বছরে বিদ্যুৎ উৎপাদনে গ্যাস বিক্রি করে পাওয়া যায় তিন হাজার ৫২৭ কোটি টাকা। দাম বাড়ার পরে এই আয় দাঁড়াবে তিন হাজার ৯৫২ কোটি টাকা। বিদ্যুতে গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে ১২ শতাংশ। আর সার উৎপাদনে গ্যাস বিক্রি থেকে আয় বাড়বে ১৯ কোটি টাকা। সারের গ্যাসের দাম সবচেয়ে কম বাড়ানো হয়েছে। এজন্য এ খাত থেকে আয়ও কম। সারে দুই ধাপে দাম বেড়েছে মাত্র পাঁচ শতাংশ।
সিএনজি থেকে বছরে আয় তিন হাজার ৬১৪ কোটি টাকা। দাম বাড়ানোর কারণে এ আয় বাড়বে ৬৬৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ মোট আয় হবে চার হাজার ২৮৩ কোটি টাকা। মোট গ্যাসের প্রায় পাঁচ ভাগ ব্যবহার হয় সিএনজিতে।
শিল্পের গ্যাস থেকে বছরে আয় ছিল দুই হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা। এখন আয় বাড়বে ৪৫২ কোটি টাকা। অর্থাৎ এখন থেকে শিল্পে দেয়া গ্যাস থেকে বছরে আয় হবে তিন হাজার ৪৩৮ কোটি টাকা। মোট ব্যবহার করা গ্যাসের ১৫ ভাগ শিল্পে ব্যবহার করা হয়।
ক্যাপটিভ বিদ্যুতে মোট গ্যাসের ১৬ ভাগ ব্যবহার হয়ে থাকে। ক্যাপটিভ বিদ্যুতে গ্যাস দিয়ে বছরে আয় তিন হাজার ৮৪২ কোটি টাকা। দাম বাড়ানোর পরে আয় বাড়বে ৫৭৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ মোট আয় হবে চার হাজার ৪২১ কোটি টাকা। ক্যাপটিভ বিদ্যুৎকে অনুৎসাহিত করতে এর দাম তুলনামূলক বেশি বাড়ানোর কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু তা হয়নি। ক্যাপটিভে দেয়া গ্যাসের দাম ১৫ ভাগ বাড়ানো হয়েছে।
বাণিজ্যিক খাতে মাত্র এক ভাগ গ্যাস ব্যবহার হয়। এ খাতে বছরে গ্যাস বিক্রি হয় ৩০৬ কোটি টাকার। দাম বাড়ানোর পরে বাড়বে ১৫৩ কোটি টাকা অর্থাৎ ৪৫৯ কোটি টাকা।
এ বিষয়ে জ্বালানি বিশেষজ্ঞ শামসুল আলম বলেন, মোট গ্যাসের মাত্র ১০ শতাংশ ব্যবহার করা হচ্ছে বাসাবাড়িতে। অথচ তাদের দাম বাড়ানো হয়েছে প্রায় ৫০ শতাংশ। ফলে এই খাত থেকেই সরকার সবচেয়ে বেশি আয় করবে। এটাই স্বাভাবিক। তবে গ্যাস কম ব্যবহার করে বেশি টাকা দিতে গিয়ে সব দিক থেকে অর্থনৈতিক বোঝার নিচে পড়বে সাধারণ মানুষ। তিনি বলেন, বিতরণ কোম্পানিগুলো যে পরিমাণ লাভ করছে তাতে গ্যাসের দাম বাড়ানোরই দরকার ছিল না। তার ওপর আবাসিকে দাম বাড়িয়ে এলএনজির জন্য তহবিল গঠন করতে গিয়ে সরকার সাধারণ মানুষের জীবন এক ধরনের বিপর্যয়ের মধ্যে ফেলতে যাচ্ছে।
এ বিষয়ে বিইআরসির সদস্য আজিজ খান বলেন, বিশ্বের কোনো দেশেই আবাসিকে পাইপলাইনের মাধ্যমে এত কম দামে গ্যাস সরবরাহ করা হয় না। একদিকে পাইপলাইনের গ্যাস অন্যদিকে এলপিজি। দামের পার্থক্য অনেক। এই দাম সমন্বয় জরুরি ছিল।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 158 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ