চলতি বছরেই আসছে উইন্ডোজ ফল ক্রিয়েটরস আপডেট

Print

এ বছর যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটলে অনুষ্ঠিত হয়েছে মাইক্রোসফটের বার্ষিক ডেভলপার সম্মেলন। অনুষ্ঠিত ‘বিল্ড ২০১৭’ শীর্ষক এ সম্মেলনে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী সত্য নাদেলা ঘোষণা দিয়েছেন, বর্তমানে প্রতি মাসে সক্রিয়ভাবে ৫০ কোটি যন্ত্রে উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করা হচ্ছে।

সম্মেলনে মাইক্রোসফট, উইন্ডোজের আসন্ন অন্যতম প্রধান আপডেট, উইন্ডোজ ১০ ফল ক্রিয়েটরস আপডেট নিয়ে এই প্রথম গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করেছে। এ বছরেই আসছে ফল ক্রিয়েটরস আপডেট। যা উইন্ডোজের ৫০ কোটি যন্ত্রে উইন্ডোজ ১০ ব্যবহারকারীকে দিবে উইন্ডোজ ব্যবহারে সম্পূর্ণ নতুন ডিজাইন সিস্টেম ও সৃজনশীল অভিজ্ঞতা। পাশাপাশি, এটা একই অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করবে আইওএস ও অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য। এছাড়াও উইন্ডোজ স্টোরে আসবে আইটিউনসসহ নতুন সব অ্যাপস্ এবং নতুন সব টুল যা সকল ডেভলপারকেই দিবে উইন্ডোজ হোম ব্যবহারের সুবিধা। এক্ষেত্রে, এটাই হবে বিশ্বের প্রথম উইন্ডোজ মিক্সড রিয়ালিটি মোশন কন্ট্রোলার।
কিভাবে মাইক্রোসফট, মাইক্রোসফট অফিস এবং মাইক্রোসফট অ্যাজিউর ডেভলপারদের জন্য লাখো সুযোগ সৃষ্টি করবে এবং ডেভলপারদের উদ্ভাবনের সাথে মাইক্রোসফটের গ্রাহকদের সংযোগ স্থাপন করে দিবে এটা নিয়েও সম্মেলনে আলোচনা করা হয়।
এছাড়াও নতুন অ্যাজিউর ডাটা ও ক্লাউড সেবা ডেভলপারদের বিদ্যমান অ্যাপের দ্রুত আধুনিকায়নে সহায়তা করবে বলেও ঘোষণা দেয় মাইক্রোসফট। পাশাপাশি, নতুন এআই ও অ্যাজিউর সেবা প্রত্যেক ডেভলপারকে স্বাভাবিকভাবে ব্যবহারকারীর ইন্টার্যাসকশন ক্ষমতা এবং অনেক সহজে বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন অ্যাপ নির্মাণ এবং ডেভলপারদের ভবিষ্যতে ইন্টেলিজেন্ট ক্লাউড ও ইন্টেলিজেন্ট এজ সংযুক্ত এআই সেবা নির্মাণের সুযোগ করে দিবে।
এ নিয়ে মাইক্রোসফটের প্রধান নির্বাহী সত্য নাদেলা বলেন, ‘আমরা এমন একটি বিশ্বে রয়েছি যেখানে কম্পিউটারের কাছে অসীম ক্ষমতা রয়েছে এবং প্রতিনিয়ত ডাটার প্রবৃদ্ধি ঘটছে। ইন্টেলিজেন্ট ক্লাউড ও ইন্টেলিজেন্ট এজের মাধ্যমে আমরা এ নতুন যুগের জন্য অ্যাপ্লিকেশন নির্মাণে প্রত্যেক ডেভলপারের ক্ষমতায়ন নিয়ে কাজ করছি।’
তথ্যসমৃদ্ধ একটি বিশ্বের ক্ষেত্রে আরও বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন প্রযুক্তির লক্ষ্যে এবং গ্রাহকদের এর সম্ভাবনা অনুধাবনে সহায়তা করতে মাইক্রোসফট ভবিষ্যতে যেসব প্রযুক্তি নিয়ে এসেছে সম্মেলনে সে সম্পর্কে বেশ কিছু ধারণা দিয়েছে। যাতে করে নতুন প্রযুক্তির ফলে মানুষ ও প্রতিষ্ঠানসমূহ নিজ নিজ ক্ষেত্রে আরও বেশি কিছু অর্জন করতে পারে।
এছাড়াও সম্মেলনে মাইক্রোসফট দেখিয়েছে যে, কিভাবে তারা ডেভলপারদের সঙ্গে দেখা করেছে এবং নতুন মাইক্রোসফট অ্যাজিউর ও ভিজ্যুয়াল স্টুডিও সেবার মাধ্যমে ডেভলপারদের বিদ্যমান অ্যাপ্লিকেশনগুলোর আধুনিকায়নে সহায়তা করছে। পাশাপাশি, ব্যবহারকারীদের জন্য প্রধান সব প্ল্যাটফর্মগুলোতে বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন অ্যাপ নির্মাণে সহায়তা করছে। বর্তমানে সারাবিশ্বে মাইক্রোসফট অফিসের ১০ কোটি সক্রিয় ব্যবহারকারী রয়েছে। এদের সঙ্গে ডেভলপারদের উন্নত সংযোগ স্থাপনের পরিকল্পনা নিয়েও সম্মেলনে ঘোষণা দেয়া হয়।
সম্মেলনে মাইক্রোসফট ক্লাউড ও এআই- এর অভিনব সমন্বয়ের মাধ্যমে প্রতিটি ডেভলপারের কাছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন প্রযুক্তি পৌঁছে দিয়ে এর মাধ্যমে মানব দক্ষতা বাড়িয়ে তুলতে এর লক্ষ্যের প্রতি আলোকপাত করেছে প্রতিষ্ঠানটি। নতুন বুদ্ধিদীপ্ত সব সেবা, মাইক্রোসফট বট ফ্রেমওয়ার্কে প্ল্যাটফর্ম উদ্ভাবন, ডিপ লার্নিং টুলসের ক্ষেত্রে অগ্রগামীতা, প্রতিষ্ঠানের পণ্য ও সেবায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ধারাবাহিক সমন্বয় এবং মাইক্রোসফট গ্রাফের মাধ্যমে ইন্টেলিজেন্স ইনসাইট ডেভলপারদের জন্য নতুন সব সুযোগের দ্বার উন্মোচন করবে এবং ব্যবসা ক্ষেত্রে নতুন প্রবৃদ্ধির সম্ভাবনা তৈরি করবে।
২০১১ সালে প্রথম অনুষ্ঠিত হয় মাইক্রোসফটের বিল্ড সম্মেলন। উইন্ডোজ, উইন্ডোজ ফোন, মাইক্রোসফট অ্যাজিউর এবং মাইক্রোসফটের অন্যান্য প্রযুক্তি ব্যবহার করা সফটওয়্যার প্রকৌশলী এবং ওয়েব ডেভলপারদের জন্যই এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 121 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ