চাকচিক্যময় হলেও সেবার নামে চলছে প্রতারণা

Print

রাজধানীসহ দেশের নামিদামি ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো দেখতে চাকচিক্যময় হলেও সেবার নামে চলছে প্রতারণা। রোগ নির্ণয় পরীক্ষায় ব্যবহার হচ্ছে মেয়াদোত্তীর্ণ রি-এজেন্ট (প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষায় ব্যবহৃত রাসায়নিক দ্রব্যের সংমিশ্রিত উপাদান)। এমনকি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের অনুপস্থিতিতে কর্মীরাই রিপোর্ট তৈরি করে বসিয়ে দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞদের স্বাক্ষর। আর রোগ নির্ণয়ের জন্য গলা কাটা অর্থ নেওয়া তো বাদই থাকল। র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের ভ্রাম্যমাণ আদালতে অহরহ ধরা পড়ছে এসব অপরাধ। সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের করা হচ্ছে জেল-জরিমানাও। কিন্তু এর পরও বন্ধ হচ্ছে না তাদের অপকর্ম। বিশেষজ্ঞরা বলছেন পরীক্ষায় নকল, মেয়াদোত্তীর্ণ ও নিম্নমানের রি-এজেন্টের ব্যবহার এবং বিশেষজ্ঞ ছাড়াই রিপোর্ট তৈরি, দক্ষ টেকনোলজিস্ট না থাকায় রোগ নির্ণয় ভুল হতে পারে। আর ভুল রোগ নির্ণয়ে রোগীরা শিকার হন ভুল চিকিৎসার।
র‌্যাবের তথ্যানুযায়ী, স্বাস্থ্য ও ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সহযোগিতায় গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমের নেতৃত্বে একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত পুরান ঢাকার ইংলিশ রোডে অভিযান চালান। সেখানকার মেডিনোভা মেডিক্যাল সার্ভিসেস, পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার, মডার্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারের শাখাগুলো থেকে বিভিন্ন টেস্টে ব্যবহৃত মেয়াদোত্তীর্ণ রি-এজেন্ট, রিপোর্ট কার্ডে ব্লাংক স্বাক্ষরসহ উদ্ধার করা হয় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নামে ভুয়া সিল। এসব অপরাধের দায়ে মেডিনোভার ম্যানেজার নাসির ওয়াকারসহ কয়েকজনকে আটক এবং আট লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। অনাদায়ে প্রত্যেককে দেওয়া হয় তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদ-াদেশ। পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে মেয়াদোত্তীর্ণ রি-এজেন্ট ব্যবহার করায় প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজার শিবলী সাদি আকন্দসহ কয়েকজনকে আটক করে ছয় লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদ-াদেশ দেওয়া হয়। একই এলাকার মডার্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারেও মেয়াদোর্ত্তীণ রি-এজেন্ট ব্যবহারের অভিযোগে ম্যানেজার খোকন চৌধুরীসহ তিনজনকে আটক করে চার লাখ টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে প্রত্যেককে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদ- দেওয়া হয়। এ ছাড়া গত ২৪ নভেম্বর রাজধানীর মুগদা এলাকার সুরাইয়া হাসপাতাল, খান ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও প্রাইভেট ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান চালিয়ে মেয়াদোত্তীর্ণ বিভিন্ন ধরনের রি-এজেন্ট ও ভুয়া মেডিক্যাল রিপোর্ট জব্দ করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শুধু ডায়াগনস্টিক সেন্টারেই নয়; নকল, মেয়াদোত্তীর্ণ ও নিম্নমানের রি-এজেন্ট পাওয়া যাচ্ছে মার্কেট ও আমদানিকারক দোকানগুলোতেও। র‌্যাবের তথ্যানুযায়ী, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অতিমুনাফা লাভের আশায় ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোতে নিম্নমানের নকল রি-এজেন্ট সরবরাহ করছে। ফলে হচ্ছে না সঠিক রোগ নির্ণয়, অকালে প্রাণ হারাচ্ছেন অনেকেই। এসব অপরাধীকে ধরতে গেল বছরের ১ নভেম্বর র‌্যাব-২ এর ভ্রাম্যমাণ আদালত শ্যামলীর লাইফটেক ও ভিউটেক নামের দুটি প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালান। অভিযানকালে চীন থেকে অবৈধভাবে আমদানি করা বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক টেস্টের রি-এজেন্ট জব্দ করা হয় লাইফটেক থেকে। এতে উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান, দেশ, উৎপাদন ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ না থাকায় মালিক মো. আসাদুজ্জামানকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। অনাদায়ে দেওয়া হয় তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদ-াদেশ। এ ছাড়া ভিউটেক প্রতিষ্ঠানে নিম্নমানের রি-এজেন্ট আমদানি ও ফ্রিজে নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় সংরক্ষণ না করায় এর মালিক মোবারক হোসেনকে আট লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে দুই মাস ১৫ দিনের কারাদ-াদেশ দেন আদালত।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারওয়ার আলমের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত সিলেটেও অভিযান চালান। বিভিন্ন অপরাধে সিলেট পুলিশ লাইন ও স্টেডিয়াম মার্কেট এলাকার শাহজালাল মেডিক্যাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে আট লাখ টাকা, ন্যাশনাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে চার লাখ, দ্য প্যাথলজি ল্যাব অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক ও নিরাময় ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে দেড় লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়। সিলগালা করে দেওয়া হয় নিউ ইবনেসিনা ডায়াগনস্টিক সেন্টার নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে। সারওয়ার আলমের নেতৃত্বাধীন অপর একটি মোবাইল কোর্ট গত ২০ ডিসেম্বর ময়মনসিংহেও অভিযান চালান। অভিযানকালে মেয়াদোত্তীর্ণ রি-এজেন্ট ব্যবহারের দায়ে শহরের চরপাড়ার পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ১০ লাখ টাকা, ল্যাবএইড ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ছয় লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।
এ প্রসঙ্গে র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম বলেন, অতিমুনাফার লোভ, নৈতিকতার অভাব ও রোগীর প্রতি কোনো দায়িত্ববোধ না থাকায় ডায়াগনস্টিক সেন্টার মালিকরা এ ধরনের অপরাধের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছেন। তবে এসব অপরাধের বিরুদ্ধে জোরালো পদক্ষেপ নিতে স্বাস্থ্য ও ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের জনবল খুবই কম।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 81 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ