চুয়াডাঙ্গায় আধুনিক পদ্ধতিতে টমেটো আবাদ॥

Print

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি: 
চুয়াডাঙ্গায় এবার আধুনিক পদ্ধতিতে শুরু হয়েছে শীতকালীন হাইব্রীড টমেটোর আবাদ। বাসের খুটি আর নাইলন দড়ি ব্যবহার করা হচ্ছে এবার
টমেটো ক্ষেতে। এতে করে বাড়তি কিছু খরচ বাড়লে ও পরিচর্যা ও টমেটো তুলতে অনেক সুবিধা হবে বলে মনে করছেন কৃষকরা। ইতোমধ্যে টমেটো গাছে ফুল আসা শুরু হয়েছে। অনেক গাছে গুটি গুটি টমেটো ধরেছে।

এবার চুয়াডাঙ্গা জেলায় টমোটোর আবাদ হয়েছে ১০৪ হেক্টর জমিতে। এরমধ্যে আলমডাঙ্গা উপজেলায় ২০ হেক্টর, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলায়
৩০ হেক্টর,দামুড়হুদা উপজেলায় ৪৪ হেক্টর ও জীবননগর উপজেলায় ১০হেক্টর জমিতে।
টমেটো চাষি দামুড়হুদার জয়রামপুর গ্রামের রিয়াজ উদ্দীনের ছেলে আব্দুল হান্নান জানান, প্রতিবছর সে এই টমেটোর আবাদ করে থাকে চলতি
বছরে সে ঢাকা থেকে এই চাষের উপর প্রশিক্ষন নিয়ে এসেছে। তিনি এবার ২৫কাঠা জমিতে হাইব্রিড জাতের টমেটোর আবাদ করেছে প্রশিক্ষন মত
পরিচর্যা করছেন গাছ ভালো হয়েছে গাছে ফুল আসার সময় হয়েছে কয়েক দিনের মধ্যে ফুল দেখা যাবে এখন সে টমেটো গাছের সাথে বাসের কাবারি গেড়ে নাইলন দড়ি দিয়ে মাচা তৈরী করছে এতে তার ক্ষেতের গাছ খাড়া হয়ে থাকবে গাছের পরিচর্যা করা সুবিধা হবে যতেষ্ট আলো বাতাস পাবে এতে করে ফলন বাড়বে। ফল মাটিতে ঠেকবে না এতে টমেটোর রং ভালো হবে। এপর্যন্ত তার খরচ হয়েছে ১২ হাজার টাকার মত আরো টমেটো উঠা পর্যন্ত আরো থেকে ১০ হাজার টাকা খরচ হবে। সর্বমোট তার ২০ থেকে ২২হাজার টাকা থরচ হবে। ফলন ভালো হলে ভালো বাজার দর পেলে সে ২৫ কাঠা জমিতে ৫০থেকে ৬০ হাজার টাকার টমেটো বিক্রি করতে পারবে। একই কথা বললেন দামুড়হুদার গোবিন্দহুদা গ্রামের ঠান্ডু খানের ছেলে হাফিজুর রহমান, তিনি ১০কাঠা জমিতে হাইব্রিড জাতের টমেটো আবাদ করেছে। ১০কাঠা জমিতে তার তেল সার বীজ বাস দড়ি দিয়ে খরচ হয়েছে
৫হাজার টাকার মতো টমেটো উঠা পর্যন্ত আরো ৫হাজার টাকা খরচ হবে। কোন দুর্যোগ না হলে ফলন ভালো হলে ৩০ হাজার টাকার টমেটো বিক্রি
করতে পারবে। একই কথা বললেন চাষী শফিউর রহমান,আজগার আলী।
চুয়াডাঙ্গা জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালন (ভারপ্রাপ্ত) প্রবীর কুমার সরকার, জানান,হাইব্রিড জাতের টমেটো গাছ সাধারনত বড় হয় ও চারিদিকে ছিটিয়ে যায়, বাশেস খুটি ও দড়ি দিয়ে মাচা করে দিলে খরচ একটু বাড়লেও সারি করে লাগানো গাছের মাজখানে ফাকা থাকে এতে করে গাছের পরিচর্যা করা যেমন সুবিধা হয়। তেমনি গাছে পর্যপ্ত আলো বাতাস পায় পোকার আক্রমন কম হয়। মাটির সাথে ফল ঠেকতে পারেনা এতে ফলের পচন ধরেনা ফুল ফল নষ্ঠ হয়না। এমন কি টমেটো তুলতে ও অনেক সুবিধা হয়। এতে করে ফলনও অনেক বেশি হয়ে থাকে

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 355 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ