জাবিতে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে খাবারের দোকানের বরাদ্দ বাতিলের অভিযোগ

Print


আরিফুল ইসলাম আরিফ,জাবি প্রতিনিধি:
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) আ.ফ.ম কামালউদ্দিন হলের আওতাধীন বটতলার একটি খাবারের দোকানের বরাদ্দ উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে বাতিলের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
আজ বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটার দিকে হলটির আবাসিক শিক্ষক মিজানুর রহমান স্বাক্ষরিত একটি লিখিত বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ দোকানের বরাদ্দ বাতিল করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে দোকানের অস্থায়ী মালিক সাত্তার মিয়ার বিরুদ্ধে অপরিস্কার স্থানে খাবার রান্না, দোকানের পাশের খেলার মাঠের পাশে ময়লা আবর্জন ফেলা,বাসি খাবার, খাবারের ঢাকনা খোলা রাখা, চড়া মূল্য, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ ও অমানসম্মত খাবার পরিবেশনের অভিযোগ আনা হয়েছে।
খাবার দোকানটির অস্থায়ী মালিক ছাত্তার মিয়া উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে দোকানের বরাদ্দ বাতিল করা হয়েছে অভিযোগ করে বলেন, গত মাস এ রকম নানা অভিযোগে অভিযুক্ত করে আমার কাছে ১০ হাজার টাকা জরিমানা নেয়া হয়েছে। আশে পাশে আরও অনেক দোকানের জরিমানা হয়েছিল। তারপর থেকে আমি নিয়মিত দোকান পরিস্কার করে স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশে রান্না করার চেষ্ঠা করি। এবং দোকানে কোন রকমের বাসি বা অমানসম্মত খাবার রাখি না। আজকে হঠাৎ দুপুরের সময় স্যার খাবারের স্থান পরিদর্শন করেন। খাবারের ঢাকনা খোলা দেখে দোকানটি মানসম্মত হয় নি বলে তিনি সেসময় জানান। দুপুর বেলা খাবার পরিবেশনের সময় তো ঢাকনা খোলা থাকেই। পাশের দোকানগুলোরও খোলা ছিল। কিন্তু তাদেরকে কিছু না বলেই হঠাৎ করে আমার দোকানের বরাদ্দ বাতিল ঘোষণা করা হয়। এটা উদ্দেশ্য প্রণোদিত, দোকানের আসল মালিক বাবুলকে দোকানটি পাইয়ে দিতে এবং আমার চলতি এ ব্যবসা বন্ধে এমনটা করা হয়েছে।
এ বিষয়ে আবাসিক শিক্ষক মিজানুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এর আগেও দোকানটির বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগে জরিমানা করা হয়েছিল। কিন্তুু তারপরেও সেখানে অস্বাস্থ্যকর ও অপস্কিার স্থানে রান্না করা হচ্ছে, খাবার মান খারাপ, চড়া মূল্য ও বাসি খাবার পরিবেশিত হয়। তাছাড়া ঔই দোকানের পাশের খেলার মাঠে ময়লা আবর্জনা ফেলাতে নিষেধ করা হলেও দোকানের মালিক নিয়মিত মাঠের পাশে ময়লা ফেলে। এসকল কারণে আজ পুরোপুরিভাবে দোকানটির বরাদ্দ বাতিল করা হয়েছে। উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে দোকানের বরাদ্দ বাতিল করার অভিযোগটি তিনি অস্বীকার করেন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 87 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ