জামায়াত জোট ভেঙে পৃথক হচ্ছে ?

Print

দলীয় নিবন্ধন বাতিল করেছে হাইকোর্ট ৷ সংগঠনের নেতৃত্ব পাল্টা মামলা দায়ের করেছেন৷ বিচারাধীন এই প্রক্রিয়ার মাঝেই উপ-নির্বাচনে প্রার্থী ঘোষণা করল যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত দল জামায়াতে ইসলামি বাংলাদেশ৷

আসন্ন ঢাকা উত্তর পৌরসভা (সিটি কর্পোরেশন) বা ডিএনসিসি নির্বাচনে সংগঠনের হয়ে প্রার্থী হচ্ছেন মহ. সেলিম উদ্দিন৷

সম্প্রতি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হকের প্রয়াণ হয়৷ ফলে মেয়র পদের জন্য উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে৷ মূল লড়াইয়ে আছে ক্ষমতাসীন আওয়ামি লীগ ও বিরোধী দল বিএনপি ৷ আর বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম জোটসঙ্গী হল জামায়াতে ইসলামি৷

এদিকে জোটের নিয়মকে উপেক্ষা করে জামায়াতের একতরফা প্রার্থী ঘোষণায় চমকে গিয়েছেন বিএনপি নেতৃত্ব৷ মনে করা হচ্ছে, বিএনপিকে চাপে রাখতেই জামায়াতে ইসলামির নেতৃত্ব একতরফা প্রার্থী ঘোষণা করেছেন ৷ ঢাকার সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে, এভাবে প্রার্থী দেওয়ায় বিএনপি অভ্যন্তরেও ক্ষোভ বেড়েছে৷ আচমকা উপ নির্বাচনে প্রার্থী দেওয়া নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছে জামায়াতে ইসলামি নেতৃত্ব৷

সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত আমির (প্রধান)অধ্যাপক মুজিবুর রহমানও এ বিষয়ে কিছু বলতে চাননি ৷ তার ঘনিষ্ঠ মহল জানিয়েছে, ‘আমাদের প্রার্থী জিতবে নাকি হারবে তা বিবেচ্য নয় বিএনপি তো জিজ্ঞাসাও করে না প্রার্থী মনোনয়নের ক্ষেত্রে। আমরা মনে করি, জামায়াতের অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। তাই মেয়র প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়া হলো।’

বিএনপি জানিয়েছে, আপাতত জামায়াত ইসলামির ‘ক্রিয়াকলাপ’ পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে ৷ ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে অন্যান্য শরিক দলের সঙ্গে আলোচনা করেই বিবৃতি দেওয়া হবে৷ এখানেই উঠছে প্রশ্ন, তাহলে কি আর বিএনপি জোটের প্রতি ভরসা রাখতে পারছে না জামায়াতে ইসলামি? ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মতো প্রেস্টিজিয়াস আসনের নির্বাচনই কি বিএনপি-জামায়াত জোটকে পৃথক করবে?

জামায়াতে ইসলামি বাংলাদেশ একটি গোঁড়া সংঠন ৷ সম্প্রতি সংগঠনের একাধিক শীর্ষ নেতাকে রাষ্ট্র বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে ৷ ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন গণহত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় একাধিক জামায়াত নেতার মৃত্যুদণ্ডও কার্যকর করেছে সরকার৷

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 341 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ