ঝালকাঠির রাজাপুরে কলেজ ছাত্রে নির্যাতনের ঘটনায় শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের তদন্ত শুরু

Print

ঝালকাঠির রাজাপুরে ওসি মুনির ও তার সহযোগীদের কর্তৃক কলেজ ছাত্রে নির্যাতনের ঘটনায় শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের তদন্ত শুরু
আজমীর হোসেন তালুকদার, ঝালকাঠি:: রাজাপুরের ওসি মুনীর উল গিয়াস কর্তৃক কলেজ ছাত্র মো. ইমরান হোসেন আদনান নির্যাতনের ঘটনায় শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশে গঠিত এক সদস্যের তদন্ত কমিটি সরেজমিন তদন্ত শুরু করেছে। বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর পরিচালককে প্রধান করে গঠিত তদন্ত কমিটিকে আগামী ১০ দিনের মধ্যে সরেজমিন তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন প্রদানের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার দন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর পরিচালক শিক্ষাবিদ মোঃ ইউনুস সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রাজাপুর অবস্থান করে প্রাথমিক তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেন। এসময় বরইয়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ, উপজেলা চেয়ারম্যান মুনিরুজ্জামান মনির, উপাধ্যক্ষ্য গাজী জসিম উদ্দিনের সাথে আলাপ করে অভিযুক্ত ওসি মুনীর উল গিয়াসের বক্তব্য গ্রহন করেছেন। তবে চিকিৎসার জন্য তার মা তাছলিমা বেগম ও ছোটভাই কামরুল হাসান মুরাদ নির্যাতিত কলেজ ছাত্র আদনানকে ঢাকা নিয়ে যাওয়ায় শিগ্রই ফিরে এসে সাক্ষ্য দেবেন বলে তার পরিবারিক সূত্র জানান।
জানাগেছে, রাজাপুরের বরইয়া ডিগ্রী কলেজের বিএ ২য় বর্ষের ছাত্র আদনান কে ক্রসফায়ারের হুমকি দিয়ে ৫ লাখ টাকা ঘুষ দাবীর ও চুরির মামলায় জোরপূর্বক স্বাকারোক্তি আদায়ের জন্য পুলিশ হেফাজতে শারিরিক নির্যাতনের বিষয়টি মিডিয়ায় ব্যাপক প্রচার হলে শিক্ষা মন্ত্রীর নির্দেশে গত সোমবার বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়। একই সাথে পত্রে বরিশাল শিক্ষা বিভাগের পরিচালক মোঃ ইউনুসকে ১০ দিনের মধ্যে তদন্ত সম্পন্ন করে প্রতিবেদন প্রদান ও বরইয়া ডিগ্রী কলেজ অধ্যক্ষ কে তদন্তে সহযোগীতার জন্য নির্দেশ দেন। তদন্তকালে কলেজ অধ্যক্ষ উপজেলা চেয়ারম্যান মুনিরুজ্জামান মনির আদানান কে তার কলেজের ছাত্র হিসাবে নিশ্চিত করেন। পৃথক ভাবে বক্তব্য গ্রহন কালে অধিদপ্তর পরিচালক মোঃ ইউনুস বেশ কিছু দৈনিক পেপারের নিউজ কাটিং তুলে ধরলে ওসি মুনিরের বক্তব্য জানতে চাইলে আদনানকে সংশ্লিষ্ট করা মামলার কিছু কাগজপত্র তার কাছে হস্তান্তর করেন বলে প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র নিশ্চিত করেছে।
এব্যাপারে বরইয়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ, উপজেলা চেয়ারম্যান মুনিরুজ্জামান মনিরের সাথে আলাপ কালে জানান, তাদের কলেজের বিএ দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ইমরান হোসেন আদানানের সাথে ঘটা ঘটনাটি অত্যন্ত দু:খ জনক। তবে বিষয়টি তার পরিবারের পক্ষ থেকে আমাদের সাথে বিস্তারিত শেয়ার করা হয়নি। এক প্রশ্নের জবাবে উপজেলা চেয়ারম্যান মুনিরুজ্জামান মনির মরহুম শাজাহান আলীর ছেলে কলেজ ছাত্র আদানান চোর হতে পারেনা মতব্যক্ত করেন। হয়তো ওসি ওসি মুনীর উল গিয়াসকে স্থানীয় কেউ ভূল পথে (মিশগাইড) চালিয়েছে বা বিভ্রান্ত করেছে বলে তার ধারনা।
এব্যাপারে বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর পরিচালক শিক্ষাবিদ মোঃ ইউনুস জানান, শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশে মঙ্গলবার তিনি রাজাপুর ডিগ্রী কলেজের একটি অফিস রুমে বসে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেন। এসময় বরইয়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মুনিরুজ্জামান মনির ও ওসি মুনীর উল গিয়াসের সাথে আলাপ করে বক্তব্য নিয়েছেন। তবে ঘটনার শিকার কলেজ ছাত্র আদানান বা তার পরিবারকে একদিন আগেই কলেজ অধ্যক্ষের মাধ্যমে সংবাদ দেয়া হলেও তারা কেউ না আসায় তাদের বক্তব্য নেয়া হয়নি। সম্ভব হলে বাকী সময়ের মধ্যে তাদের সাক্ষ্য গ্রহন করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই তদন্ত প্রতিবেদন পাঠানো হবে বলে তিনি জানান।#

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 384 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ