টাকা ছাড়া মিলছে না সরকারি বই

Print

লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার দক্ষিণ জাওরানী আব্দুল লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের কিছু শিক্ষার্থী সেশন ফি’র টাকা পরিশোধ করতে না পারায় তাদেরকে সরকারের দেওয়া বিনামূল্যের বই দেওয়া হচ্ছে না। তাই টাকার অভাবে প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থী এখনো তাদের বই সংগ্রহ করতে পারেনি। এনিয়ে স্থানীয় এমপিসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন অভিভাবকরা।
অভিযোগে পত্র থেকে জানা যায়, ১ জানুয়ারি সারা দেশের ন্যায় দক্ষিণ জাওরানী আব্দুল লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়েও সরকারি বই বিতরণ করা হয়। এতে শিক্ষার্থীদের কাছে ৫০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ২০০ টাকা করে নিয়ে বই দেওয়া হয়েছে। তবে যারা ওইদিন টাকা নিয়ে যেতে পারেনি তাদেরকে বই দেওয়া হয়নি।
এনিয়ে স্থানীয় অভিভাবকরা বিদ্যালয়ে যোগাযোগ করলে সেখানকার প্রধান শিক্ষক জসিম উদ্দিন ও সহকারী শিক্ষক আশরাফুল আলম রাজু বলেন, ‘সরকারি বই আনতে পরিবহন খরচসহ স্কুলের ভাঙা বেঞ্জ মেরামত করতে ওই টাকা নেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও যে সব শিক্ষার্থীদের সেশন ফি বাকি রয়েছে তাদের কাছেও বই দেওয়ার সময় পাওনা আদায় করা হচ্ছে।’
উত্তর জাওরানী গ্রামের বাসিন্দা শফিকুল ইসলাম মন্ডল বলেন, আমার দুই মেয়ে ওই স্কুলে পড়াশোনা করছে। এর মধ্যে বড় মেয়ে সুনিয়া জাহান কথা এ বছর ১০ম শ্রেণিতে উঠেছে। আর ছোট মেয়ে সুমিয়া জাহান সেথা পড়ছে ৭ম শ্রেণিতে। এতে স্কুল থেকে ওই দুই শিক্ষার্থীর কাছে ৫০০ টাকা আদায়ের পর সরকারের দেওয়া বিনামূল্যের বই দেওয়া হয়েছে।
এদিকে আর এক অভিভাবক হযরত আলী বলেন, আমার মেঝ মেয়ে হাফিজা খাতুন ওই বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণিতে আর ছেলে মোফাজ্জল হোসেন বাবু পড়ে ৭ম শ্রেণিতে। কিন্তু তারা ওই স্কুলের চাহিদা অনুযায়ী ৩০০ ও ২০০ টাকা ফি পরিশোধ করতে পারেনি তাই তাদেরকে এখনো বই দেওয়া হয়নি।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জসিম উদ্দিন বলেন, ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে সেশন-ফি আদায় সাপেক্ষে সরকারি বই বিতরণে একটি রেজুলেশন করেছে স্কুল পরিচালনা কমিটি। এরপরেও যারা টাকা দিতে পারছে না তাদেরকেও বই দেওয়া হচ্ছে।
এ বিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি খবির মিয়ার মুঠোফোনে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।
হাতীবান্ধা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তৈয়ব আলী বলেন, সরকারের দেওয়া বিনামূল্যে বই বিতরণের ক্ষেত্রে সেশন-ফি আদায়ের কোন প্রকার সর্ম্পক নেই। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 114 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ