তিন শিকারে তিনে মুস্তাফিজ

Print

টানা তিন ম্যাচ জিতে আকাশেই উড়ছিল মুম্বাই ইন্ডিয়ানস। কিন্তু ‘অচেনা ঘরের মাঠে’ গতকাল পড়ল মুখ থুবড়ে। মহারাষ্ট্র থেকে আইপিএল সরে যাওয়ায় মুম্বাইয়ের ঘরের মাঠ এখন বিশাখাপত্তনম। সেখানে খেলা প্রথম ম্যাচে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের কাছে রোহিত শর্মার দল হেরেছে ৮৫ রানে। হায়দরাবাদের ১৭৭ রানের জবাবে মুম্বাই গুটিয়ে গেছে মাত্র ৯২ রানে। এই জয়ে সাময়িকভাবে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে আসে মুস্তাফিজুর রহমানের হায়দরাবাদ। তবে পরের ম্যাচে কলকাতা নাইট রাইডার্সকে ৫ উইকেটে হারিয়ে আবার শীর্ষে ফিরেছে গুজরাট লায়ন্স।

গতকাল ৩ উইকেট নিয়ে আইপিএলের এবারের আসরে তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেট এখন বাংলাদেশি কাটার মাস্টারের। ১০ ম্যাচে মুম্বাইয়ের মিচেল ম্যাকক্লেনাঘনের উইকেট ১৪টি, সমান ১৪ উইকেট এখন আন্দ্রে রাসেলেরও। মুস্তাফিজের উইকেট ১৩টি। সমান ১৩ উইকেট হায়দরাবাদের ভুবনেশ্বর কুমারেরও। পরের ম্যাচে সাকিব আল হাসান ৪৯ বলে ৪টি চার ও ৪টি ছক্কায় অপরাজিত ৬৬ রানের পর বল হাতে একটি উইকেট নিয়েও জেতাতে পারেননি কলকাতাকে। কলকাতার ১৫৮ রান দুই ওভার বাকি থাকতে টপকে গেছে গুজরাট।

হায়দরাবাদের ম্যাচ মানেই মুস্তাফিজুর রহমানের বিস্ময়। ইয়র্কার, কাটার, স্লোয়ারের বিষে বিপক্ষকে নীল করা। তাঁর জন্যই হায়দরাবাদের ম্যাচের টিআরপি বাড়ে হু-হু করে। তবে গতকাল মুস্তাফিজ বল হাতে নেওয়ার আগেই ৬ উইকেট হারিয়ে বসে মুম্বাই। ৩ ওভারে ১৫ রানে ৩ উইকেট নিয়ে টপ অর্ডার গুঁড়িয়ে দিয়েছিলেন ম্যাচ সেরা আশিস নেহরা। দশম ওভারে আক্রমণে এসে প্রথম বলেই হার্দিক পাণ্ডেকে উইকেটের পেছনে ক্যাচ বানান মুস্তাফিজ। এরপর তুলে নেন টিম সাউদি আর মিচেল ম্যাকক্লেনাঘনের উইকেট। ৩ ওভারে ১৬ রানে ৩ উইকেট নেওয়া মুস্তাফিজ বল পাননি আর।

গতকাল টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শিখর ধাওয়ানের ৫৭ বলে ৮২*, ডেভিড ওয়ার্নারের ৩৩ বলে ৪৮ আর যুবরাজ সিংয়ের ২৩ বলে ৩৯-এ ৩ উইকেটে ১৭৭ করেছিল হায়দরাবাদ। গুজরাটের বিপক্ষে আগের ম্যাচে ৪৭ রানে অপরাজিত থাকা ধাওয়ান নিজের চেনা ছন্দেই ছিলেন গতকাল। অপরাজিত ৮২ রানের ইনিংসে বাউন্ডারি ১০ আর ছক্কা ছিল ১টি। হরভজন সিং ২৯ রানে নেন ২ উইকেট। টপ অর্ডারের ব্যর্থতায় সেই হরভজনই মুম্বাইয়ের হয়ে করেন সর্বোচ্চ ২১। কিয়েরন পোলার্ড ১১, রোহিত শর্মা ৫, জস বাটলার ফেরেন ২ রানে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 48 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ