তড়িঘড়ি করে লুপ নির্মাণ, ট্রেনের ইঞ্জিন লাইনচ্যুত

Print

সিরাজগঞ্জ বাজার স্টেশনে পশ্চিমাঞ্চল রেল বিভাগের নতুন লুপ লাইন উদ্বোধনের মাত্র ২০ দিন পর সেখানে লাইনচ্যুত হলো লোকাল ট্রেনের ইঞ্জিন। রবিবার সন্ধ্যা ৬টার পর বাজার স্টেশনের টিকিট কাউন্টারের অদুরে ঈশ্বরদী থেকে সিরাজগঞ্জগামী একটি লোকাল ট্রেনের ইঞ্জিন সান্টিং বা ঘোরানোর সময় লাইনচ্যুত হয়। পরে রাত সাড়ে ১২টার দিকে ওই ইঞ্জিন উদ্ধার করা হয়। ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার পেছনে লুপ লাইনের ত্রুটি, সিগনালের ত্রুটি, নাকি ট্রেন চালকের অসতর্কতা তা প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি।
ট্রেন চালক খলিলুর রহমান জানান, ‘ট্রেনটি ঈশ্বরদী থেকে বাজার স্টেশনে আসার পর ইঞ্জিনটি সান্টিং বা ঘুরানোর চেষ্টা করা হয়। সন্ধ্যার পর ইঞ্জিনটি পশ্চিমের লাইন দিয়ে মাত্র ৫০ মিটার যাওয়ার পর লুপ লাইনে ফেরার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ধারনা করা হচ্ছে নতুন লুপ লাইনেই সমস্যা রয়েছে। অতিরিক্ত বাঁকের কারণে ইঞ্জিনটি আকষ্মিক লাইনচ্যুত হলে আমরা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি।’

স্থানীয় রেল বিভাগের উর্ধ্বতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (পিডাব্লিউ) জানান, ‘ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার কারণ তদন্ত না করে বলা যাবে না। রেল বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তদন্ত করে মতামত দেবেন।’
পাকশী রেল বিভাগের ডিভিশনাল ব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার বলেন, ‘ট্রেন দুর্ঘটনার ঘবর পেয়ে পাকশী থেকে রিলিফ ট্রেন পাঠিয়ে ট্রেনের ইঞ্জিনটি উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার ভোর ৬টার সময় বাজার স্টেশন থেকে সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেন ঢাবায় যাওয়ার কথা রয়েছে। তবে যাত্রীদের ভোগান্তী হতে পারে।’
সিরাজগঞ্জ স্বার্থ রক্ষা সংগ্রাম কমিটির আহ্বায়ক এবং ‘হয় রেল না হয় জেল’ আন্দোলনের সংগঠক ডা. জহুরুল হক রাজা বলেন, ‘লুপ লাইন উদ্বোধনের মাত্র ২০ দিন পর সেখানে ইঞ্জিন লাইনচ্যুত বিষয়টি সত্যিই দুঃখজনক এবং উদ্বেগের বিষয়ও। লুপ লাইনের ত্রুটি থাকলে, পশ্চিমাঞ্চল রেল বিভাগকে তা সংস্কারে নতুন করে ভাবা উচিৎ।’
প্রসঙ্গত, সিরাজগঞ্জ বাজার স্টেশন থেকে ঢাকার উদ্দ্যেশে সরাসরি সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেনটি চলাচলের জন্য পশ্চিমাঞ্চল রেল বিভাগ এখানে প্রায় ২ কোটি টাকা ব্যায়ে আধা কিলোমিটার দৈর্ঘের লুপ লাইন স্থাপন করে। গত ২৫ নভেম্বর কাজটি শুরু করা হয়। সিরাজগঞ্জবাসীর কাছে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত এ লুপ লাইন তৈরির জন্য পশ্চিমাঞ্চল রেল বিভাগ মাসব্যাপী কসরত করে। শুরু থেকেই এ লুপ লাইনের সঠিক নকশা ও পরিকল্পনা না থাকায় লুপ লাইনে যথাযথভাবে ট্রায়াল ট্রেন সান্টিং বা ঘোরানো নিয়ে বার বার বিপর্যয়ের মধ্যে পড়েন প্রকৌশলীরা। গত ১১ ডিসেম্বর ঢাকার কমলাপুরে নতুন সিরাজগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনটির উদ্বোধনের কারনে এক ধরনের গোজামিল দিয়ে এ লুপ লাইন চালু করা হয়। বাজার স্টেশন প্লাটফরমের দক্ষিণ শেষ প্রান্তে লুপ লাইনটির ৩০ মিটার অংশে ঝুঁকির বিষয়ে স্থানীয় প্রকৌশলীরা এরই মধ্যে ঊর্ধ্বতন বরাবর প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। ওই অংশে গাইড রেল বসানোর পরিকল্পনা থাকলেও তার আগেই প্লাটফরমের উল্টো দিকে উত্তরপ্রান্তে ইঞ্জিন লাইনচ্যুত হবার ঘটনায় স্থানীয়রা হতাশ হয়েছেন। তাদের আশঙ্কা পশ্চিমাঞ্চল রেল বিভাগের পুরো লুপ লাইনে ত্রুটি রয়েছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 122 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ