দুইটা শিশুবাচ্চার পিতা বাশারের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

Print

এমপিওভূক্তহীন কলেজের পিওন হাবিবুল বাশারের দুটি কিডনিই অকেজো

দুইটা শিশুবাচ্চার পিতা বাশারের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

 

কুমারখালী জগন্নাথপুর আইডিয়াল কলেজের পিওন মো: হাবিবুল বাশার দীর্ঘ ৩ বছর ধরে কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়। দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় কুমারখালী, কুষ্টিয়া, রাজশাহী করে ঢাকার কিডনি হাসপাতাল সহ ভারতের ভেলেরেও চিকিৎসা করিয়ে এখন দুটো কিডনিই অকেজো হয়ে গেছে এই দিনদরিদ্র হতভাগা বাশারের।

 

একদিকে কলেজে কোন বেতন নেই। এমপিওভূক্ত না হওয়ায় তারও কোন বেতন হয়নি। দীর্ঘদিন ধরে করেজের পিওন পদে চাকুরী করে আসছে বিনাবেতনেই। মরার উপর খাঁড়ার ঘা’র মতো অবস্থা। দরিদ্র এই বাশারের দূরোরোগ্য ব্যাধি ধরে ফেলে। চিকিৎসা করতে কর তে এতদিন ঘটিবাটি যা ছিল সব বিক্রি করে এখন সহায় সম্বলহীন।

 

 

তার কলেজের বেতন না থাকায় সেখানকার শিক্ষক কর্মচারীরাও কোন বেতন পায়না বিধায় তারাও তেমন সাহায্য করতে পারছেনা। অপরদিকে তার আত্মীয় স্বজন এই ৩ বছরে সাহায্য সহযোগিতা করে উন্নত চিকিৎসাই করিয়েছে কিন্তু কিডনি দুটোই নষ্ট হয়ে যাওয়ায় সে এখন মৃত্যুর প্রহর গুনছে।

 

মহান সৃষ্টিকর্তা কৃপা করলে হয়তো ভাল হয়ে সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারে। বাশারের দুটো মেয়ে বড় মেয়েটির বয়স ৫ বছর, ছোট মেয়েটির বয়স ৩ বছর। পরিবারের একমাত্র অবলম্বন পিতা বাশার এর যদি কিছূ একটা হয়ে যায় তবে তার দুটো মেয়ে ভেসে বেড়াবে দ্বারে দ্বারে।

 

এই অবস্থায় সমাজের বিত্তবান, সহৃদবান তথা সরকারের কাছে আকুল আকুতি এই হতভাগা দরদ্রি বাশারের চিকিৎসাকার্য ও জীবন বাঁচাতে আপনারা এগিয়ে আসুন। মানুষের জন্য মানুষ কথাটি নিশ্চয় মিথ্যে নয়। বাশারের জীবন বাঁচাতে তার

   বিকাশ নম্বর-
০১৭২৭-৭৪২৬৯৪।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 171 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ