দোহারে পদ্মার ভাঙ্গনে নিঃস্ব হয়ে, খোলা আকাশের নিচে রাত কাটায়

Print

মোঃ জাকির হোসেন, জেলা প্রতিনিধি : ঢাকার দোহারে পদ্মার ভাঙ্গনে নিঃস্ব হয়ে প্রায় তিনশত পরিবার কাশিয়াখালী ও বাহ্রা সড়কে ঠাই নিয়ে খোলা আকাশের নিচে রাত কাটানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃষ্টি এলে সহপরিবারে পলিথিন কাগজ জড়িয়ে এবং রৌদে গাছের নিচে বসে থাকে বলে জানায় ভুক্তভোগিরা। জানা যায়, দোহার উপজেলার নারিশা ইউনিয়নের মাঝের চর, নয়াবাড়ীর চরবাহ্রা ও নবাবগঞ্জ উপজেলার কাশিয়া খালী বেঁড়ি বাধে প্রায় তিনশত পরিবার পদ্মার ভাঙ্গনে নিঃস্ব হয়ে বাহ্রা ও কাশিয়া খালী সড়কে প্রায় তিনশত পরিবার ঠাঁই নিয়েছে। এরা খোলা আকাশের নিচে রান্না, খাওয়া ও রাত কাটান সহপরিবারে। বৃষ্টি এলে পলিথিন কাগজ গায়ে জড়িয়ে থাকেন সকলে। বেড়ি বাঁধের আশে পাশে কোন বসতি না থাকায় তাই বাধ্য হয়ে বিলের ময়লা পানি বা পদ্মার ঘোলা পানি পান করে। অনেক শিশু এবং বৃদ্ধা ভোগছেন পানি জড়িত রোগে। মাঝের চরের বসতি মোঃ তোফাজ্জল কারাইল (৬৫) জানায়, আমরা মাঝের চরের নামা পাড়া গ্রামের বসতি। কয়েক দিনে পদ্মায় পানি বেড়ে গ্রামটি তলিয়ে গেলে সহপরিবারে বেড়িবাঁধে ঠাঁই নিয়েছি। খোলা আকাশের নিচে আমাদের রাত কাটে। মরিয়ম আক্তার (৪০) জানায়, চর বাহ্রা এলাকা পদ্মায় ভেঙ্গে গেলে আমরা কাশিয়া খালী এলাকার বেড়িবাঁধে আশ্রয় নিয়ে খুব কষ্টে আছি। কাইয়ুম হালদার (৭০) জানায়, আমরা বৃষ্টিতে বিজি, রৌদে শুকাই এবং অনাহারে দিন কাটে। কেউ আমাদের খোঁজ নিচ্ছে না। সোনিয়া আক্তার (২৩) জানায়, আমরা তৃষ্ঞা মেটাতে বিলের শাওলা ভরা ময়লা পানি বা পদ্মার ঘোলা পানি পান করি।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 407 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ