নতুন এডিপির আকার হবে ১ লাখ ৯ হাজার কোটি টাকা

Print

চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নের লক্ষ্য পূরণ করতে পারেনি সরকার। ৯৭ হাজার কোটি টাকা থেকে কাটছাঁট করে সংশোধিত এডিপি নামিয়ে আনা হয়েছে ৯১ হাজার কোটি টাকায়। এমন অবস্থায় আগামী অর্থবছরের (২০১৬-১৭) জন্য ১ লাখ ৯ হাজার ২০০ কোটি টাকা টাকার এডিপি পাস করতে যাচ্ছে সরকার; যা চলতি অর্থবছরের সংশোধিত এডিপির চেয়ে ২০ শতাংশ বেশি।

১২ মে অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) সভায় নতুন এডিপি অনুমোদন দেয়া হবে। পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

১ লাখ ৯ হাজার ২০০ কোটি টাকার এডিপির মধ্যে সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে বরাদ্দ দেয়া হবে ৬৯ হাজার ২০০ কোটি টাকা। বৈদেশিক সহায়তা লক্ষ ধরা হচ্ছে, ৪০ হাজার কোটি টাকা। এ হিসেবে চলতি বছরের সংশোধিত এডিপির চেয়ে বরাদ্দ বাড়ছে ১৮ হাজার ২০০ কোটি টাকা।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রধানমন্ত্রীর মনিটরিংয়ের আওতায় ফাস্ট ট্র্যাকভুক্ত (অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত) প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে যেন কোনো সমস্যা না হয়, এজন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দ রাখা হচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে- মেট্রো রেল, পদ্মা সেতু, রূপপুর পারমাণবিক কেন্দ্র, পায়রা বন্দর, মাতারবাড়ি প্রকল্প।

chart

নতুন এডিপিতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ পাওয়া মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোর মধ্যে স্থানীয় সরকার বিভাগ পাচ্ছে ১৭ হাজার ৪৮৫ কোটি টাকা, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ৫ হাজার ৮৭৮ কোটি টাকা, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় ৭ হাজার ৫০৯ কোটি টাকা, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ৬ হাজার ৭০ কোটি টাকা, রেলপথ মন্ত্রণালয় ৮ হাজার ৮০৭ কোটি টাকা, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ ৭ হাজার ৭৯১, সেতু বিভাগ ৯ হাজার ২০৭, বিদ্যুৎ বিভাগ ১২ হাজার ৫৪০ কোটি টাকা, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় ৩ হাজার ৭০৯ কোটি টাকা, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় ১ হাজার ৭৮৬ কোটি টাকা পাচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনা বিভাগের সচিব তারিক-উল-ইসলাম বলেন, পদ্মা সেতু ও সেতুটিতে রেল সংযোগসহ বেশ কয়েকটি বড় বড় প্রকল্প চলমান রয়েছে। এ কারণে, আগামী অর্থবছরে মূলত পরিবহন খাতের প্রকল্পগুলোকে সর্বোচ্চ বরাদ্দ দেয়ার সুপারিশ করেছে পরিকল্পনা কমিশন। এছাড়া বিদ্যুৎ, শিক্ষা, স্থানীয় সরকার, স্বাস্থ্যখাতসহ জন সংশ্লিষ্ট খাতগুলোকে অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে।

চলতি অর্থবছরেও বড় বরাদ্দ থাকলেও প্রথম ১০ মাস (জুলাই থেকে এপ্রিল) শেষে দেখা গেছে, সরকার ব্যয় করতে পেরেছে মাত্র ৫১ শতাংশ।

তারিক-উল-ইসলাম আরো জানান, নতুন এডিপি প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য আগামী ১২ মে প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে এনইসি সভা অনুষ্ঠিত হবে। ওই সভায় নতুন এডিপি চূড়ান্তভাবে অনুমোদন পাবে।

চলতি অর্থবছর ৯৭ হাজার কোটি টাকার এডিপি বাস্তবায়নের লক্ষ্য পূরণ হয়নি। বাস্তবায়নে ধীরগতির কারণে এডিপির আকার ইতোমধ্যে ৯১ হাজার কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়েছে। ৬ হাজার কোটি টাকা কেটে নেয়া হলেও সরকারের বিনিয়োগ প্রকল্প বাস্তবায়নে গতি আসেনি।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 51 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ