নব্য জেএমবির সদস্যরা আবার সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করছে

Print

গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় হামলার পর জঙ্গিদের নেটওয়ার্ক হ্রাস পেয়েছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ।
তিনি বলেন, আর্টিজানে হামলার পর জঙ্গিদের নেটওয়ার্ক হ্রাস পেয়েছে। তাদের ছিন্ন-ভিন্ন করে দেয়া হয়েছে। তবে নব্য জেএমবির সদস্যরা আবার সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করছে। আমাদের চেষ্টা থাকবে তারা যাতে সংগঠিত হতে না পারে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায় এক আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। নিউ এইজ’র ফটো সাংবাদিক আলী হোসেন মিন্টুর চারদিনব্যাপী ‘মহাজোট সরকারের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা ও জঙ্গি নির্মূলে জিরো টলারেন্স’ শীর্ষক এ একক চিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়।
বেনজীর আহমেদ বলেন, গোয়েন্দাদের সহায়তায় বরখাস্ত মেজর জিয়াউল হককে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। জেএমবির আগের অংশের সাথে যারা জড়িত তাদেরও নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে, যাতে তারাও সংগঠিত হতে না পারে।
তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে জঙ্গিদের কয়েকজন অর্থদাতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে, অনেককে চিহ্নিত করা হয়েছে। অনেক অর্থও উদ্ধার করা হয়েছে। অর্থদাতা ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান হোক বা স্বদেশি-বিদেশী যেই হোক না কেন প্রমান সাপেক্ষে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। জেএমবির মধ্যে আদর্শিক দ্বন্দ্ব আছে। প্রথমে ২০১২ সালে বিভক্ত হওয়ার পর একটি গ্রুপ আবার ২০১৫ সালে তামিমের সঙ্গে যুক্ত হয়। সকল জঙ্গি সংগঠনগুলোর প্রতিই খেয়াল রাখা হচ্ছে।
সবচেয়ে ভাল দিক হলো জঙ্গিবাদকে রাজনৈতিকভাবে না দেখা। রাজনৈতিকভাবে দেখবেন রাজনৈতিকরা। আমরা যারা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীতে আছি তারা বিষয়টাকে আইনের চোখেই দেখতে চাই। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য হিসেবে অপরাধীদের কঠোরভাবে দমন করাই আমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিৎ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
র‌্যাবের ডিজি বলেন, জঙ্গিবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা। এখনকার পরিস্থিতি নিয়ে আত্মতুষ্টিতে ভোগার কোন কারণ নেই। অর্থনৈতিক ও জাতীয় উন্নয়নের জন্য জঙ্গিবাদ দমনে সকলকে সামিল হতে হবে। যাতে করে পরবর্তী প্রজন্ম আধুনিক বাংলাদেশে বড় হতে পারে।
জঙ্গিদের তালিকা একটি অব্যাহত প্রক্রিয়া। প্রতিটি অভিযানের পর তালিকা নতুন করে করা হয়। ছোট বা বড় কোনো জঙ্গি নেই। জঙ্গি তো জঙ্গিই। সকলকেই আইনের আওতায় আনা হবে যোগ করেন তিনি।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন— ফটোসাংবাদিক আলী হোসেন মিন্টু ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ (জাসদ) কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি মুহাম্মদ সামছুল ইসলাম সুমন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 49 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ