নারায়ণগঞ্জে গৃহবধূর গলায় জুতার মালা

Print
নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে যৌতুকের দাবিতে সালমা আক্তার সুমী (৩২) নামে এক গৃহবধূকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। ওই নির্যাতনের সময় গৃহবধূর গলায় জুতার মালাও পড়িয়ে দেওয়া হয়। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রবিবার বিকালে পুলিশ সুমীকে উদ্ধার করেছে। আটক করা হয়েছে সুমীর দেবর শিপু মিয়াকে (২২)।
নির্যাতিতা গৃহবধূ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রূপগঞ্জের তারাব এলাকার আরব আলীর ছেলে কোরবান আলী ছয় মাস আগে তারাব দক্ষিণপাড়া এলাকার জলহত মিয়ার মেয়ে সালমা আক্তার সুমীকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকেই এক লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে সতীন মায়া বেগম, স্বামী কোরবান আলী, দেবর শিপু, ফুফা সেলিমসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন সালমা আক্তার সুমীর ওপর নির্যাতন চালিয়ে আসছে। এ নিয়ে বেশ কয়েকবার এলাকায় বিচার-সালিশ হওয়ার পর কিছুদিন নির্যাতন বন্ধ ছিল। গত মাস ধরে সুমীকে ঘরে আটকে রেখে ফের নির্যাতন চালায়। রবিবার সকালে গৃহবধূ সালমা আক্তার সুমীর হাত পা বেঁধে ফেলে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। পরে প্রকাশ্যে জোরপূর্বক গলায় জুতার মালা পড়িয়ে দেয়। একপর্যায়ে কেচি দিয়ে ওই গৃহবধূর চুল কেটে ফেলা হয়।লাঠি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশ থেতলে দেওয়া হয়। আটক শিপুর মোবাইলে সেই ভিডিও চিত্র দেখা গেছে।

খবর পেয়ে গৃহবধূ সুমীর মা তাসলিমা বেগম থানা পুলিশকে অবহিত করলে বিকেলে রূপগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনিরুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। এ সময় অভিযুক্ত দেবর শিপুকে আটক  করা হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে স্বামী, সতীনসহ অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়। নির্যাতিতা গৃহবধূ সালমা আক্তার সুমীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন জানান, এ ঘটনায় মামলা নেওয়া হয়েছে। পলাতক স্বামীসহ অন্যদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 117 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ