নারীদের বাঁচার লড়াইয়ের গল্প শুনতে চান ‘রানী লক্ষ্মীবাঈ’ কঙ্গনা

Print

বলিউডের জীবন কখনই সহজ ছিল না কঙ্গনা রানাউতের কাছে। কিন্তু, কোনো প্রতিকূলতাই তাঁকে নিজের লক্ষ্য থেকে বিচ্যূত করতে পারেনি। তার প্রমাণস্বরূপ, গত সপ্তাহেই নিজের জীবনের তৃতীয় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেলেন তিনি।

তাঁর লড়াই তো সকলেই জানে। কিন্তু, এই দেশে বহু নারী এমন আছেন, যাঁদের লড়াইয়ের কথা কোথাও বলা হয় না, কোথাও লেখা হয় না। এবার সেইসব নারীর বাঁচার লড়াইয়ের কাহিনী সকলের কাছে পৌঁছে দিতে অভিনব উদ্যোগ নিলেন এই অভিনেত্রী। জানা গেছে, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা অন্য নারীদের থেকে তাঁদের লড়াইয়ের কাহিনী জানতে চেয়ে আবেদন করেছেন কঙ্গনা।

একটি বেসরকারি সংস্থার উদ্যোগে ‘#BeMoreHuman’ নামে ওই ক্যাম্পেনে কঙ্গনা নিজের মুখে শোনাবেন সেই সব বেঁচে থাকার লড়াইয়ের সত্য-কাহিনী। জানাবেন সেই নারীদের কথা, যাঁরা জীবনের সব প্রতিকূলতা ছাপিয়ে সমাজের চোখে এক উদাহরণ হয়ে উঠেছেন। প্রচারের মূল লক্ষ্য হল অন্য নারীদের অনুপ্রেরণা জোগানো, যাতে তাঁরাও আরও ভাল করে জীবনযাপন করতে পারেন।

নিজের বিষয়ে জানাতে গিয়ে কঙ্গনা বলেন, আমি একটি ছোট্ট শহর থেকে উঠে আসা মানুষ, যার স্বপ্ন বড় ছিল। নিজের স্বপ্নকে স্বার্থক করার শক্তি আমার ছিল। তবে, আমাকেও অনেক লড়াই করতে হয়েছে। অনেক প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে। তবেই আমি শীর্ষে পৌঁছতে পেরেছি।

এই উদ্যোগ সম্পর্কে ‘রানী লক্ষ্মীবাঈ’-খ্যাত কঙ্গনা জানিয়েছেন, তিনি ভীষণই উত্তেজিত এবং নতুন এই বিষয়টি নিয়ে প্রচণ্ড আশাবাদী। তিনি বলেন, অনুপ্ররণামূলক গল্পের মাধ্যমে তিনি লক্ষ লক্ষ নারীদের উৎসাহ দিতে চান। কঙ্গনার আশা, তিনি যেমন নিজের গল্প ভাগ করে নিলেন, তেমনই অন্যান্য নারীরাও তাঁদের নিজের কাহিনী ভাগ করে নেবেন।

প্রসঙ্গত, জাতীয় পুরস্কার ছাড়াও আরও একটি বিষয়ে সাম্প্রতিককালে খবরের শিরোনামে এসেছেন কঙ্গনা। বলিউড অভিনেতা হৃত্বিক রোশনের সঙ্গে তাঁর আইনি লড়াইয়ের বিভিন্ন কিস্সা এখন বলিউডের সকলের মুখে মুখে ঘুরছে। এই ফাঁকে কেউ কেউ তাঁকে ‘ডাইনি’ বলতেও পিছপা হননি। তবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতে সব সমালোচনার জবাব দিয়েছেন কঙ্গনা।

সূত্র: এবিপি আনন্দ

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 24 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ