নুরকে ভয় পায় সহপাঠীরা

Print

সিলেটের জকিগঞ্জে বিরল রোগে আক্রান্ত হয়েছে আব্দুন নুর নামে এক স্কুলছাত্র। সে উপজেলার বারঠাকুরী ইউনিয়নের তিনগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র। বিরল এ রোগের নাম প্রজেরিয়া বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। বাংলাদেশের মধ্যে জকিগঞ্জেই প্রথম এ রোগ ধরা পড়েছে।
স্কুলে গিয়ে দেখা গেছে, বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণিতে অন্য শিক্ষার্থীদের সাথে ড্রেস পরে বসে আছে আব্দুন নূর (১০) নামের অস্বাভাবিক আকৃতির এক শিক্ষার্থী। এই শিক্ষার্থীর শরীরের চামড়াশুষ্ক ও ঝুলে পড়ছে, মাথা বড়, চুল ও চোখের উপরে ভ্রু নেই। মুখটাও ছোট, হাত ও আঙ্গুলের হাঁড়গুলো স্পষ্ট ভেসে উঠেছে, চলাফেরায় ধীরগতি। চেহারা দেখতে ২৫/৩০ বছরের বয়স্ক মানুষের মত লাগে। ছেলেটি কজাপুর গ্রামের প্রবাসী আব্দুল বাসিতের ছেলে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান চিকিৎসক ডা. আব্দুল্লাহ আল মেহেদী বলেন, এ রোগটি প্রজেরিয়া (Progeria) নামের জিনঘটিত একটি বিরল রোগ। এ রোগে আক্রান্ত অল্প বয়সের শিশুগুলোকে দেখতে বয়স্ক মনে হয়। আমাদের দেশে এ ধরনের কোনো রোগীর সন্ধান ইতোপূর্বে মেলেনি। জকিগঞ্জেই প্রথম এই ধরনের রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে। এটি বংশানুক্রমিক বা উত্তরাধিকারসূত্রের কোনো রোগ নয়।
তিনি বলেন, এ রোগ নিরাময়ে কোনো চিকিৎসাই সফল হয়নি। রোগটি চিহ্নিত করা গেলেও তার চিকিৎসা জানা নেই। পজেরিয়া রোগে আক্রান্ত শিশুরা গড়ে ১৩-১৫ বছর বাঁচে।
তিনগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হীরন্ময় নাথ জানান, বিরল রোগে আক্রান্ত এই শিক্ষার্থী লেখাপড়ায় অনেকটা মেধাবী। সে কথা বলে খুবই আস্তে। অন্য শিক্ষার্থীরা রোগাক্রান্ত এ ছাত্রকে ভয় পায়।
শিশুটির মা রাবিয়া বেগম বলেন, এ রোগটি শিশুটির জন্মগত। রোগটি থেকে রেহাই পেতে অনেক চিকিৎসকের দ্বারস্থ হয়েছি। কিন্তু নিরাময় হয়নি। চিকিৎকরা জানিয়েছেন- এ রোগের কোনো চিকিৎসা নেই।
জকিগঞ্জ উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম সিরাজী বলেন, আমার চাকরি জীবনে এ রোগে আক্রান্ত কোনো শিশু দেখিনি। আমরা এই শিক্ষার্থীকে প্রতিবন্ধীদের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 156 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ