নেশা হয়ে উঠতে পারে স্মার্টফোন

Print

কথাটা নেই, কিন্তু থাকা উচিত ছিল: মিডিয়াসক্তি, যার বাহক হলো প্রধানত স্মার্টফোন৷ নয়ত স্পটিফাই, হোয়াটসঅ্যাপ, নেটফ্লিক্সের দুর্বার আকর্ষণ যে কবে নেশা হয়ে উঠেছে, তা অনেকেই খেয়াল করেন না৷
কাজ কিংবা অকাজে, অফিস কিংবা বাড়িতে, দিনে বেশ কয়েক ঘণ্টা ধরে স্মার্টফোন ব্যবহার করটা আজকাল প্রায় স্বাভাবিক হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ এক্ষেত্রে ‘নিয়মিত ব্যবহারকারী’ আর ‘নেশাগ্রস্ত’-দের মধ্যে ফারাকটা বজায় রাখা প্রায় অসম্ভব৷

ক’ঘণ্টা ফোনে কাটাচ্ছেন, শুধু তার ওপরেই সেটা নির্ভর করে না৷ মিডিয়াসক্তি ধীরে ধীরে গড়ে ওঠে: প্রথমে কৌতূহল, হয়ত কোনো নতুন ভিডিও গেম একবার খেলে দেখা৷ দ্বিতীয় পর্যায়ে হলো ‘এনজয়মেন্ট’ বা আনন্দ পাওয়া; তৃতীয় পর্যায়ে ‘হ্যাবিচুয়েশন’ বা অভ্যেস হয়ে যাওয়া৷ চতুর্থ পর্যায়ে অপব্যবহার, অর্থাৎ মাত্রাতিরিক্ত মিডিয়া ভোগ করা৷ আর শেষ পর্যায়ে হলো নেশা বা মিডিয়াসক্তি: তখন মানুষ তাদের বন্ধুবান্ধব বা অন্যান্য হবি অবহেলা করতে শুরু করে, এমনকি স্কুল-কলেজ বা অফিসেও যেতে চায় না৷ তখন সে সত্যিই নেশাখোর৷
ডিজিটাল ডায়েটিং কী, কেন করবেন ?
ঘাড়ে ব্যথা
সর্বশেষ খবর, ই-মেল কিংবা স্যোশাল মিডিয়ায় যোগাযোগ রাখার জন্য অনেকেই দিনের কয়েকটা ঘণ্টা সময় ব্যয় করেন মোবাইল বা স্মার্টফোনে৷ নীচের দিকে তাকিয়ে এত দীর্ঘ সময় কথা বলার কারণে ঘাড়ে চাপ পরে এবং ব্যথা হয়, যা প্রথমদিকে সেভাবে বোঝা না গেলেও ধীরে ধীরে জটিল হয়ে স্বাস্থ্যের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে৷

ঝুঁকি টিনেজারদেরই বেশি
জার্মান টিনেজাররা নাকি দিনে তিন থেকে চার ঘণ্টা অনলাইনে কাটায়, বলে একটি সাম্প্রতিক জরিপে প্রকাশ৷ তারা প্রধানত অনলাইনে যায় বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বা গান শুনতে৷ কিন্তু সারাক্ষণ ‘ডিজিট্যালি কনেক্টেড’ থাকার প্রচেষ্টা অস্বাভাবিক হয়ে দাঁড়াতে পারে৷ ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা কোনো ছবি বন্ধুবান্ধবরা ‘লাইক’ করল কিনা, সেটা জানার জন্য অপেক্ষা করা; এত যে ‘ফলোয়ার’ আছে, তারা হয়ত কোনো নতুন ছবি আপলোড হওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে; অনেকে নাকি জিপ লক ব্যাগে করে শাওয়ারের নীচেও ফোন নিয়ে যায়৷
মিডিয়াসক্তির সঙ্গে অ্যালকহলে আসক্তির অনেক মিল আছে৷ দু’টোই ‘বিহেভিওরাল অ্যাডিকশন’ বা আচরণগত আসক্তি৷ কিন্তু মদ্যপান ছাড়া যতটা সহজ, অনলাইনের অভ্যেস ছাড়া তার চাইতে অনেক বেশি শক্ত – কেননা মিডিয়া তো সর্বত্র৷ মিডিয়ার ব্যবহার কমাতে গিয়ে ভুক্তভোগীরা দেখেছে যে, তাদের ‘উইথড্রয়াল সিম্পটম’ হচ্ছে: ঘাম হচ্ছে, মাথা ঘুরছে বা অকারণে মেজাজ খারাপ হচ্ছে৷
অফলাইন
অনলাইন ছাড়াও যে একটা জীবন আছে, টিনেজারদের সেটা দেখানোই হল নিভিন্ন ‘অ্যাডিকশন প্রিভেনশন প্রোগ্রাম’ বা ‘আসক্তি প্রতিরোধ কর্মসূচির’ উদ্দেশ্য৷ তাদের মুখোমুখি কথা বলা শেখা দরকার, ‘ইমোজি’ ছাড়াই তাদের আবেগ-অনুভূতি প্রকাশ করতে পারা চাই৷ সৃজনীশক্তির বিকাশের জন্যও যে সর্বক্ষেত্রে কম্পিউটার বা স্মার্টফোনের প্রয়োজন, এমন নয়৷
সাবধানবাণীটা শুধু টিনেজারদের জন্যই নয়৷ অনেক কোম্পানি আজকাল চায় যে, তাদের কর্মীরা দিনে বেশ কয়েক ঘণ্টা অফলাইন থাকেন৷ সারাটা দিন কম্পিউটারের স্ক্রিনের সামনে বসে থাকলে, রাতে ঘুম ভালো হয় না, পরদিন মনোযোগ দিয়ে কাজ করা যায় না৷

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 112 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ