পুরুষরাই চিকুনগুনিয়ায় বেশি আক্রান্ত হয়!

Print
চিকুনগুনিয়া জ্বর বর্তমান সময়ের সবচেয়ে বড় জনস্বাস্থ্য সমস্যা। কিছুদিন আগে থেকে ঢাকা মহানগরে চিকুনগুনিয়া ভাইরাস ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। পরবর্তীতে এই ভাইরাসজনিত রোগটি পর্যায়ক্রমে ছড়িয়ে পড়ছে ঢাকার বাইরেও।

সব বয়সের মানুষই আক্রান্ত হচ্ছে এই রোগে। তবে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) জরিপে দেখা গেছে, যারা এ ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে তাদের মধ্যে পুরুষে সংখ্যাই বেশি।

প্রতিষ্ঠানটির কাছে সারাদেশ থেকে আসা রিপোর্ট অনুযায়ী এখন পর্যন্ত চিকুনগুনিয়া ভাইরাসে অক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ৭০০ জনেরও বেশি। এর অধিকাংশই রাজধানী ঢাকার বাসিন্দা।

বুধবার পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটির কাছে সরাসরি আসা রোগীদের মধ্য থেকে চিকুনগুনিয়া ভাইরাসে আক্রান্ত রোগির সংখ্যা ৬৩৯ জন। এর মধ্যে ৪১১ জন পুরুষ এবং নারী ২২৮ জন। অর্থাৎ ৬৪ দশমিক ৩০ শতাংশ পুরুষ এবং ৩৫ দশমিক ৭০ শতাংশ নারী।

এডিস মশার মাধ্যমে চিকুনগুনিয়ার ভাইরাস ছড়ায়। গত বছরের ডিসেম্বর থেকেই এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঢাকায় দেখা দিতে থাকে। প্রতি মাসেই আইইডিসিআরে এই রোগে আক্রান্ত মানুষ শনাক্ত হয়েছে।

রাজধানীর মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও সাধারণ চিকিৎসকদের ব্যক্তিগত চেম্বারে রোগীর ভিড় বাড়তে থাকে এ বছরের এপ্রিল থেকেই।

চিকুনগুনিয়া ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে ছেলেদের সংখ্যা কেন বেশি এ বিষয়ে জানতে চাইলে আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সাবরিনা ফ্লোরা অর্থসূচককে বলেন, আমাদের কাছে সরাসরি আসা রিপোর্ট পর্যালোচনা করে দেখা গেছে এ ভাইরাসে আক্রান্ত মেয়েদের চেয়ে ছেলেদের সংখ্যা বেশি।

তিনি বলেন, আমাদের দেশের মেয়েরা জ্বর বা চিকুনগুনিয়ার জন্য হাসপাতালে কম আসছে। যেহেতু হাসপাতালে আসা রোগীর সংখ্যার ওপর ভিত্তি করে এ পরিসংখ্যান করা হয়েছে তাই  ছেলেদের সংখ্যাই বেশি পাওয়া গেছে।

অন্য আরেকটি কারণ হিসাবে আইইডিসিআরের পরিচালক বলেন, এডিস মশা যেহেতু দিনের বেলায় বেশি কামড়ায়। শুধু বাসাতেই না; কর্মক্ষেত্রেও এই মশার প্রভাব রয়েছে। আর পুরুষরা যেহেতু বাইরে বা অফিসে বেশি যাতায়াত করে ছেলেদের সংখ্যাটাও বেশি হতে পারে।

তিনি বলেন, বিভিন্নভাবে আমাদের নিকট চিকুনগুনিয়া সংক্রান্ত রিপোর্ট আসে। আমদের কাছে যে তালিকা এসেছে। এদেরে অধিকাংশ রাজধানীর বাসিন্দা। এছাড়া ঢাকা বাইরে থেকে যে রিপোর্ট আসছে তা পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, ঢাকার বাসিন্দাদের মাধ্যমেই বিভিন্ন জেলাতে ভাইরাসটি ছড়াচ্ছে।

এ ভাইরাস থেকে পরিত্রাণের বিষয়ে জানতে চাইলে মীরজাদী সাবরিনা ফ্লোরা বলেন, মশাকে আমরা এখনো প্রতিরোধ করতে পারিনি; মশার কামড় থেকে জনগণকে এখনো রক্ষা করতে পারিনি। এর প্রধান কারণ আমরা নিজেরাই সচেতন না। এডিস মশা পরিস্কার পানিতে জন্মে এবং ঘরের মধ্যেই থাকে। ফলে এর জন্মরোধ করতে হবে। তা না হলে একটা মশা যতদিন বাঁচবে ততোদিন জীবানু বহন করবে এবং ছড়িয়ে দিবে।

তিনি বলেন, চিকুনগুনিয়ার জন্য এখন যেসব টেস্ট হয় সেগুলোর নাম অ্যান্টিবডি টেস্ট। আমাদের প্রতিষ্ঠান ছাড়া বাইরে করলে সেগুলো ‘ফলস পজিটিভ’ আবার কোথাও ‘ফলস নেগেটিভ’ আসে।

তিনি বলেন, সবার জন্য চিকুনগুনিয়ার পরীক্ষার দরকার নেই। কেবল বৃদ্ধ, শিশু, গর্ভবতী কিংবা যারা অন্য রোগে আক্রান্ত তাদের জন্য চিকুনগুনিয়া টেস্ট প্রয়োজন হতে পারে।

এ বিষয়ে মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বায়োকেমিস্ট্রি বিভাগের অধ্যাপক ডা. নাসিমুল হক অর্থসূচককে বলেন, চিকুনগুনিয়া রোগটি ভাইরাসজনিত। আমাদের অতি পরিচিত ডেঙ্গুর সঙ্গে এর অনেকটাই মিল রয়েছে। ডেঙ্গু জ্বরের মতোই এই ভাইরাসটি এডিস ইজিপ্টাই ও এডিস অ্যালবপ্টিকাস মশার কামড়ের মাধ্যমে মানব শরীরে প্রবেশ করে। চিকুনগুনিয়া মানবদেহ থেকে মশা এবং মশা থেকে মানবদেহে ছড়িয়ে থাকে।

তবে এটা নিয়ে চিন্তিত না হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

ছেলেদের সংখ্যা কেন বেশি এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনিও মীরজাদী সাবরিনা ফ্লোরার মতো বলেন, আমাদের দেশের মেয়েরা জ্বর বা চিকুনগুনিয়ার জন্য হাসপাতালে কম আসছে।এ কারণেই সংখ্যার অনুপাতে এই তারতম্য।

চিকুনগুনিয়া ভাইরাস পরবর্তিতে দেহে কতটা প্রভাব ফেলবে সে ব্যাপারে নাসিমুল হক বলেন, চিকুনগুনিয়ার মূল উপসর্গ হলো জ্বর এবং অস্থিসন্ধির ব্যথা। সেক্ষেত্র্রে যাদের বয়স বেশি; প্রেসার আছে; ডায়বেটিজ রয়েছে এবং পূর্ব থেকেই জয়েন্টে ব্যাথা রয়েছে তাদের ক্ষেত্রে ভোগান্তিটা একটু বেশি।

চিকুনগুনিয়া ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে আইইডিসিআরের কর্মকর্তারা একাধিক অনুষ্ঠানে বলেছেন, চিকুনগুনিয়ার বর্তমান প্রাদুর্ভাব সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে। এছাড়া এর মধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। ফলে পরিস্থিতি নজরে রাখার জন্য ঢাকায় গত সপ্তাহে চিকুনগুনিয়া নিয়ন্ত্রণকক্ষ খোলা হয়েছে। প্রতিটি সরকারি হাসপাতালে খোলা হয়েছে ।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 186 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ