প্রথম পর্ব শুরু কাল বিশ্ব ইজতেমার

Print

আগামীকাল শুক্রবার (১৩ জানুয়ারি) টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব ইজতেমার দুই পর্বের প্রথম পর্ব শুরু হবে। ফজরের নামাজের পর আমবয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হবে। এ দিন জুমার নামাজে লাখো মুসল্লি অংশ নেবেন। রবিবার (১৫ জানুয়ারি) আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে ইজতেমার প্রথম পর্ব । চার দিন বিরতির পর ২০ জানুয়ারি শুরু হবে ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব।
দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে মুসল্লিরা ইজতেমা ময়দানে জড়ো হতে শুরু করেছেন। লাখো মুসল্লির পদচারণায় এরই মধ্যে মুখরিত হয়ে উঠছে তুরাগের পূর্ব তীর। শিল্পনগরী টঙ্গীও যেন পেয়েছে নতুন প্রাণ। প্রথম পর্বে অংশ নেবে ঢাকার অংশবিশেষসহ ১৭টি জেলার মুসল্লিরা।
ইজতেমা ময়দান মুসল্লিদের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত করা হয়েছে। বিশাল ময়দানজুড়ে টাঙানো হয়েছে চটের শামিয়ানা। জেলাওয়ারি খিত্তার ভাগসহ বিদেশি মেহমানদের জন্য ইজতেমা ময়দানের পাশে নির্মাণ করা হয়েছে টিনশেডের আলাদা থাকার জায়গা। বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা। বিশ্ব ইজতেমা ময়দানের সার্বিক নিরাপত্তা মনিটরিংয়ের জন্য র্যাবের ৯টি ও জেলা পুলিশের পাঁচটি ওয়াচ টাওয়ার স্থাপন করা হয়েছে। যেকোনও ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলার প্রস্তুতি রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর।
ইজতেমা মাঠ প্রস্তুতির একাংশের দায়িত্বে নিয়োজিত তাবলিগের মুরুব্বি অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ বলেন, সব কাজ করা হচ্ছে মোশাআরার (পরামর্শ) মাধ্যমে। বিদ্যুৎ, পানি ও গ্যাসের সরবরাহ, প্যান্ডেল তৈরি— প্রতিটি কাজই আলাদা আলাদা গ্রুপের মাধ্যমে করা হচ্ছে।
ইজতেমা মাঠের মুরুব্বী প্রকৌশলী গিয়াস উদ্দিন বলেন, আমরা আশা করছি ৮০টিরও বেশি দেশের মুসল্লিরা এবার ইজতেমা ময়দানে শরীক হবেন। ২৫ হাজার বিদেশি মেহমানের জন্য আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। বিদেশি মেহমানরা বিদেশি কামরায় অবস্থান করবেন। এরই মধ্যে দেশের অভ্যন্তরে দাওয়াতি কাজে নিয়োজিত বিদেশি মেহমানরা ইজতেমা ময়দানে অবস্থান নিতে শুরু করেছেন।’ তিনি জানান, প্রথম পর্বে ২৬টি খিত্তা প্রস্তুত করা হয়েছে।
বিশেষ বাস-ট্রেন সার্ভিস: মুসল্লিদের সুবিধার্থে আজ ১২ই জানুয়ারি থেকে বিআরটিসি ৩শ’টি স্পেশাল বাস সার্ভিস ১৫ই জানুয়ারি পর্যন্ত চলবে। বাংলাদেশ রেলওয়ে ২৮টি বিশেষ ট্রেন পরিচালনা করবে। এ ছাড়া সব আন্তঃনগর, মেইল এক্সপ্রেস ও লোকাল ট্রেনে অতিরিক্ত ২০টি কোচ সংযোজন করা হয়েছে। বাংলাদেশ রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, দুই পর্বের ইজতেমার প্রথম পর্বের শুক্রবার ঢাকা-টঙ্গী-ঢাকা দুটি ‘জুমা স্পেশাল, আখেরি মোনাজাতের আগের দু’দিন জামালপুর ও আখাউড়া থেকে দুটি করে চারটি অতিরিক্ত ট্রেন পরিচালনা করা হবে। আখেরি মোনাজাতের আগের দিন লাকসাম-টঙ্গী একটি, আখেরি মোনাজাতের দিন ঢাকা-টঙ্গী-ঢাকা সাতটি, টঙ্গী-ঢাকা সাতটি, টঙ্গী-লাকসাম একটি, টঙ্গী-আখাউড়া দুটি, টঙ্গী-ময়মনসিংহ চারটিসহ মোট ২১টি আখেরি মোনাজাত স্পেশাল ট্রেন চালু থাকবে। মুসল্লিদের সুবিধার্থে ১২ থেকে ১৬ই জানুয়ারি মহানগর প্রভাতী/গোধূলি, ১৯ থেকে ২৩শে জানুয়ারি সোমবার তিস্তা এক্সপ্রেস শুক্রবার সুর্বণ এক্সপ্রেস ট্রেনগুলো সাপ্তাহিক বন্ধের দিনগুলোতেও চলাচল করবে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 186 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
error: ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি