প্রধানমন্ত্রী মানুষের উন্নয়নে ১৮ ঘণ্টাই চিন্তা করেন

Print

রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক বলেছেন, সাধারণ মানুষের উন্নয়নের জন্য আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৮ ঘণ্টা চিন্তা করেন। তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া সব সময় প্রধানমন্ত্রীকে হিংসা করেন। কিন্তু এতে কোন লাভ হবে না। বুধবার জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণ সম্পর্কে আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।
রেলমন্ত্রী বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর পরিবার একটি সোনার খনি। বঙ্গবন্ধু এ জাতির স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। তার কন্যা শেখ হাসিনা আজ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। এই পরিবার জাতির জন্য যে ত্যাগ স্বীকার করেছে, বাংলাদেশের কোনো পরিবার এত ত্যাগ স্বীকার করেনাই। সেই পরিবারের কন্যা শেখ হাসিনা, তিনি নিজের জন্য কিছু করেন না, এদেশের সাধারণ মানুষের উন্নয়নের জন্য ১৮ ঘণ্টা চিন্তা করেন।

তিনি বলেন, ‘আল্লাহ মানুষ ছাড়া আর কাউকে জবান (বাকশক্তি) দেননি। পশু-পাখি কেউ কথা বলতে পারে না। কারণ আল্লাহ তাদেরকে বাকশক্তি দেন নাই। জবান দিয়েছে একমাত্র মানুষকে। এই মানুষ যাদের বাকশক্তি আছে আজকে বিএনপি নেত্রী খালেদার মত অনেকেই সত্য কথা স্বীকার করেন না।
এসময় তিনি স্পিকারকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, মাননীয় স্পিকার, যদি পদ্মা ব্রিজ কথা বলতে পারত, পদ্মা ব্রিজের জবান যদি আল্লাহ দিত আপনি যদি প্রশ্ন করতেন, হে ব্রিজ তোমাকে কে তৈরি করেছে? ব্রিজ উত্তর দিত জননেত্রী শেখ হাসিনা। মন্ত্রীর এ বক্তব্যের পর সংসদে উপস্থিত সাংসদরা টেবিল চাপড়ে তার এ বক্তব্যের প্রতি সমর্থন জানান।
জনগণকে সেবা দেয়ার লক্ষ্যে এ পর্যন্ত ৪৮টি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে জানিয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, ‘বেশ কয়েকটি প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে। প্রকল্প সমূহের মূল লক্ষ্য নতুন ইঞ্জিন আনা, বগি আনা, স্টেশানগুলোকে আধুনিকায়ন করা, রেলের বড় বড় ব্রিজ নির্মাণ করা, জরাজীর্ণ রেলপথ মেরামত করা।
বিএনপির আমলে রেলপথ শতভাগ অবহেলিত ছিল বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া রেলের প্রতি কোনো নজর দেয় নাই। সরকারে আসার পর আমার নেত্রী শেখ হাসিনা সবাইকে সেবা দেয়ার জন্য রেলপথ মন্ত্রণালয় গঠন করেন।
তিনি বলেন, রেলের জন্য ২৭০ টি কোচ এবং ৪৬ ইঞ্জিন এনেছি। আরও ৭০টি ইঞ্জিন অতি তাড়াতাড়ি আসবে। আমরা আরও ২০০ টি ইঞ্জিন আনব, কোরিয়ান অর্থায়নে। এডিবির অর্থায়নে আরও ১৫০ কোচ আমাদের বহরে আসবে। কোচ আর ইঞ্জিন আসলে আমাদের আর সমস্যা থাকবে না।
তিনি আরও বলেন, আমরা নতুন রেললাইন নির্মাণ করে যাচ্ছি। ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত আমরা ডাবল লাইন নির্মাণ করে যাচ্ছি। ৩২০ কিলোমিটারের মাঝে শুধু ৭২ কিলোমিটার কাজ বাকি আছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 66 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ