প্রযুক্তি কি আমাদের মস্তিষ্ককে উন্নত করতে পারে

Print

কম্পিউটার নামের অতি পরিচিত যন্ত্রটা তো মানুষের মস্তিষ্কের আদলেই তৈরি। এখন মানব মস্তিষ্ক ও কম্পিউটারের মধ্যে উচ্চ প্রযুক্তির পরীক্ষাগারে নিয়মিত কথা হয়। এই যোগাযোগ দিনে দিনে বাড়ছে। তাতে লাভটা কী?
ভেবে দেখুন, পঙ্গু লোকজন কেবল চিন্তার সাহায্যে যান্ত্রিক বা রোবটিক অঙ্গপ্রত্যঙ্গ চালাতে পারছে। এতে গবেষকদের আশার ব্যাপ্তি বাড়ছে। হয়তো একদিন মস্তিষ্কটা কম্পিউটারের ভেতরে রেখে দেওয়া (আপলোড) সম্ভব হবে। পরিণামে মানুষের শারীরিক শক্তিসামর্থ্য বহুগুণ বেড়ে যাবে। কারণ, যন্ত্রের সহায়তায় তখন মানবদেহ ও মানব মন—দুটোরই ক্ষমতা বাড়বে।

মহাকাশ প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সের প্রধান নির্বাহী এলন মাস্ক এই স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ শুরু করে দিয়েছেন। তিনি মন ও কম্পিউটারের মধ্যে সরাসরি সংযোগ স্থাপনের জন্য নিউরালিংক নামের একটা প্রতিষ্ঠানের মালিকানা নিয়েছেন।
মাস্কের প্রতিষ্ঠান এখন কী করছে? সর্বশেষ তারা ‘নিউরাল লেইস’ প্রযুক্তি বানিয়েছে। এটা সংকেত পরিমাপের জন্য মস্তিষ্কে একধরনের পরিবাহী বা তার বসাবে। সে জন্য শল্যচিকিৎসা দরকার।
বর্তমান প্রযুক্তির নানা সীমাবদ্ধতার জন্য এই প্রকল্পকে অতি উচ্চাভিলাষী মনে হতে পারে। তবে প্রযুক্তি গবেষকেরা যুগান্তকারী সাফল্যের জন্য নিরলস কাজ করছেন।
বাস্তবতা হলো, আমরা এখনো সেখানে পৌঁছাতে পারিনি। তবু সম্মিলিত চেষ্টায় নিশ্চয়ই সব বাধা দূর করা সম্ভব হবে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 256 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ