ফাঁকা রাস্তায় তরুণীকে গণধর্ষণের চেষ্টা! দেখুন ভিডিও

Print
দিন দু’য়েক আগে এই ছবি ফেসবুকে আপলোড হয়। আর তার পর থেকেই তা ভাইরাল হয়ে উঠেছে। সিসিটিভি ফুটেজে যে দৃশ্য ধরা পড়েছে, তা মহিলাদের নিরাপত্তা নিয়ে ফের বড়সড় প্রশ্ন তৈরি করল।

ফের শিরোনামে বেঙ্গালুরু। দিন দুই আগেই প্রকাশ্যে আসে সেখানে বর্ষবরণের রাতে রাস্তায় পুরুষদের হাতে মহিলাদের আক্রান্ত হওয়ার খবর। পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ হয়েছিল যে, পুলিশকে লাঠিচার্জও করতে হয়েছিল। এই নিয়ে কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়াও তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

এই ঘটনার রেশ মিটতে না মিটতেই সামনে এসেছে আরও এক ভয়াবহ ঘটনা। জানা গিয়েছে, বর্ষবরণের রাতেই বাড়ি ফিরছিলেন এক তরুণী। পূর্ব বেঙ্গালুরুর কাম্মানাহাল্লির ফিফথ মেইন রোডের মুখে রাত আড়াইটে নাগাদ অটো থেকে নামেন ওই তরুণী। গলির মুখ থেকে তাঁর বাড়ি ৫০ মিটারের মধ্যেই। সে সময়েই ওই গলিতে একটি স্কুটি নিয়ে ঢুকে পড়ে দুই যুবক। তরুণীকে দেখতে পেয়ে তারা স্কুটি ঘুরিয়ে রাস্তার পাশে দাঁড় করায়। এর পর এক জন তরুণীকে জড়িয়ে ধরে। তরুণী বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে তাঁকে জাপটে ধরে ওই যুবক স্কুটির কাছে নিয়ে যায়। সেখানে স্কুটিতে বসে থাকা দ্বিতীয় যুবক এবং প্রথম যুবক তরুণীর পোশাক থোলার চেষ্টা করতে থাকে। কিন্তু তরুণীর প্রবল প্রতিরোধে তারা সফল হয়নি। তরুণীর প্রতিরোধে বেকায়দায় পড়ে যাওয়া দুই যুবক তাঁকে ছেড়ে দেয়। কিন্তু, স্কুটি নিয়ে পালানোর সময় তারা তরুণীকে ছিটকে রাস্তায় ফেলে দেয়।

মধ্যরাতের এই ভয়াবহ ঘটনা গলির মধ্যে থাকা একটি বাড়ির সিসিটিভি ফুটেজে ধরা পড়ে। পরে ওই তরুণী তাঁর এক বন্ধুকে নিয়ে ওই বাড়িতে যান এবং সমস্ত ঘটনা খুলে বলেন। সে সময়ে নাকি তরুণী জানান, কোনও মতে ওই যুবককের গায়ের জোরের সঙ্গে পাল্লা দিয়েছিলেন তিনি। শুধু শ্লীলতাহানিই নয়, দুই যুবক তরুণীর টাকার পার্সও নিয়ে পালিয়ে যায়। সিসিটিভি ফুটেজে ভয়াবহ এই ঘটনা দেখে শিউরে উঠেছিলেন ওই বাড়ির এক সদস্য। এর পরই তিনি সিসিটিভি ফুটেজটি এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের অফিসে পাঠিয়ে দেন।  পরে ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে ইউটিউবেও আপলোড হয় ভিডিও-টি। সেখান থেকে ওই সিসিটিভি ফুটেজ ফেসবুকে লিঙ্ক হয়। বেঙ্গালুরুর এই নয়া সিসিটিভি ফুটেজ এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় এতটাই ভাইরাল হয়েছে যে, এই ঘটনায় পুলিশি তদন্তের দাবি তুলেছেন অনেকে।

দেখুন ভিডিও… 

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 265 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ