বস্তির ছেলের অস্কার যাত্রা

Print

 

হলিউড ছবির একটা দল মুম্বাইতে এসেছিল এবং কমপক্ষে ২০০০ বাচ্চার অডিশন থেকে আট বছরের সানিকে নির্বাচন করেছিলেন অস্কার মনোনিত ‘লায়ন’ ছবিতে। কিছু জিজ্ঞেস করতে গেলেই সে বলে উঠছে,আমাকে খালি খেলতে বলা হয়েছিল।গার্থ ডেভিস পরিচালিত ‘লায়ন’ ছবিতে সারু নামের বাচ্চা ছেলেটা হারিয়ে যায়। কাস্টিং ডিরেক্টররা তন্ন তন্ন করে খুঁজেছে চরিত্রের জন্য একটা বাচ্চা ছেলে। শেষে আট বছরের সানিকে তাদের পছন্দ হয়ে যায়।বিতে অভিনয় করেছেন দেব প্যাটেল এবং নিকোল কিডম্যান। এদের সঙ্গেই অভিনয় করেছে সানি।

আট বছরের ছেলেটার সবথেকে আনন্দের মুহূর্ত কেটেছে অষ্ট্রেলিয়ায় শুটিংয়ের সময়। গার্থ ডেভিস খালি সানিকে ছুটতে বলেছিলেন ট্রেন ধরার দৃশ্যে। আর সানিও ছুটেছিল মন প্রাণ দিয়ে। ইংরেজি বোঝাটা তো ওর পক্ষে দুস্কর ছিলই। কিন্তু তাতে কী, ইশারায় সাড়া দিয়ে পুরো কাজটা নিজের বাঁ হাতের মুঠোয় করে নিয়েছিল একরত্তির সানি। সানি বলছে, ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতে আমার বিন্দুমাত্র ভয় হয়নি।

ছোট্ট সানির মতে,যে কোনো দৃশ্যের জন্য একটা ইশারাই যথেষ্ট ছিল,তাতেই আমি বুঝে যেতাম আমাকে হাসতে হবে,নাকি কাঁদতে হবে।

দাদার সঙ্গে ট্রেনে যাত্রা করতে বেরিয়ে পাঁচ বছরের সারু নামের একটা ছেলে হারিয়ে যায়। ঘুম যখন ভাঙে ছেলেটার তখন সে দেখে সে কলকাতায় পৌঁছে গেছে। আর তারপর অষ্ট্রেলিয়ার এক দম্পতি তাকে উদ্ধার করে কলকাতা থেকে। নিয়ে আসে ৬০০০ মাইল দূরে অস্ট্রেলিয়ায়। বেশ কয়েক বছর পর গুগল আর্থ এর সাহায্যে সে খুঁজে পায় তার ঘর, যে ঘরে সে জন্মেছিল। যে ঘর থেকেই সে শেষবার ট্রেনে উঠেছিল। সেই সারু কে নিয়েই গার্থ ডেভিসের সিনেমা এখন অস্কার মনোনীত।

মুম্বাইয়ের কলিনা বস্তি এলাকায় একটা ঘরেই আরও দুই ভাই বোন ও মা বাবার সঙ্গে থাকে ছোট্ট সানি। সানির মা বাসু দিলীপ পাওয়ার তো ভয়ই পেয়ে গিয়েছিলেন প্রথমে। কেননা সানি যে শুধু হিন্দি আর মরাঠি জানে। যে কথাগুলো ও বলে সে গুলোও কাটা কাটা। ওইটুকু ছেলে কী করে ইংরেজি সিনেমা করবে? তবুও বাসু দিলীপ পাওয়ারের কাছে এ যেন এক স্বপ্ন। তিনি কখনও ভাবতেও পারেননি যে ছেলের সঙ্গে সঙ্গে নিজেদের জীবনটাও এমন বদলে যাবে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 134 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ