বাংলাওয়াশের শোধ কিউইওয়াশে নেবে ওরা!

Print

পরিস্থিতিটা অন্যরকম হতে পারতো। শনিবার সিরিজের শেষ ওয়ানডেতে মাঠে নামার আগে নিউজিল্যান্ড থাকতে পারতো বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো ঘরের মাঠে সিরিজ হারার শঙ্কায়। কিন্তু নেলসনের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ব্যাটিং ব্যর্থতায় সুযোগ হাতছাড়া করে আসার পর উল্টো হোয়াইটওয়াশের মুখোমুখি এখন টাইগাররা। কিউই পেসার টিম সাউদিও সেটা মনে করিয়ে দিলেন। জানালেন, সিরিজ জেতা হলেও শেষ ম্যাচে একবিন্দু ছাড়া দিতে নারাজ কিউরা। তার মানে, বাংলাওয়াশের শোধ কিউইওয়াশে নিতে চাইছে তারা।
স্যাক্সটন ওভালে বৃহস্পতিবার ২৫২ রান তাড়া করতে গিয়ে বাংলাদেশ এক পর্যায়ে ১ উইকেটে ১০৫ রানে পৌঁছেছিল। তখনই ইমরুল কায়েসের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে সাব্বির রহমান রান আউট। ওখানেই বিপর্যয়ের শুরু। পরে ১০ ওভারের মধ্যে টাইগাররা ৭ উইকেটে ১৪১, অলআউট ১৮৪ রানে।

গেল দুই বছরে ঘরের মাঠে টানা ৬টি সিরিজ জেতা বাংলাদেশের বড় পরীক্ষা ছিল বিদেশের মাটিতে ধারাবাহিকতা ধরে রাখা। নিউজিল্যান্ডে এখন পর্যন্ত তাতে ব্যর্থ মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। তবে নিউজিল্যান্ডের কঠিন মাটিতেও বাংলাদেশের খেলায় উন্নতি দেখছেন সাউদি।
সিরিজ জয়ের ম্যাচে ৯ ওভারে ৩৩ রান খরচায় ২ উইকেট নেওয়া দলের অন্যতম সেরা এই পেসার জানালেন, ‘বাংলাদেশ দলে অসাধারণ কিছু খেলোয়াড় আছে। সকলেই জানে নিজেদের কন্ডিশনে তারা কতটা ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে। বিদেশেও প্রতি ম্যাচেই তারা উন্নতি করছে।’
উন্নতির কথাটি মনে করিয়ে দিয়েই সাউদি বললেন, সিরিজ জেতা হয়ে গেলেও তৃতীয় ম্যাচে তাই আয়েশের কোনো সুযোগ নেই। বলেছেন, ‘সিরিজ জেতা হয়ে গেছে। শনিবারের ম্যাচের আগে এরপরও আমরা আরাম করতে পারিনা। তারা অনেক ভালো পারফর্মার। শেষ ম্যাচেও আমাদের সেরাটাই দিতে হবে মাঠে।’
সেরাটা দেওয়ার প্রসঙ্গ যখন আসছে, তখন অবধারিতভাবেই আসছে হোয়াইটওয়াশের বিষয়টি। নিউজিল্যান্ড তাদের সর্বশেষ দুই বাংলাদেশ সফরে ওয়ানডেতে হোয়াইটওয়াশের বেদনা নিয়ে ফিরেছে। যাকে নাম দেওয়া হয়েছে বাংলাওয়াশ। সাউদির কথায় স্পষ্ট, ওই লজ্জা এখনো কাটার মত বিঁধছে কিউইদের গলায়। এবার তাই কিউইওয়াশের মাধ্যমে কিছুটা ফিরিয়ে দেওয়ার পালা।
শেষ ম্যাচেও টাইগারদের কঠিন পরীক্ষায় ফেলার ব্যাপারে অনেকটা হুমকির সুরেই সাউদি বললেন, ‘এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জেতা স্বস্তির। ঘরের মাঠে নয় ম্যাচে তাদের বিপক্ষে অপরাজিত থাকাটাও দারুণ ব্যাপার। আমরা জানি যে বাংলাদেশে যেয়ে জিতে আসাটা কতটা কঠিন। তারা এখানে এসেছে, আমরাও তাদের সর্বোচ্চ কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখিই করতে চাইবো।’

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 144 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ