বাংলাদেশি তারকাদের পরকীয়া কাহিনী

Print
মিডিয়া সরগরম হাবিব ওয়াহিদ ও মডেল অভিনেত্রী তানজিন তিশার সম্পর্ক নিয়ে। অভিযোগ তুলেছেন হাবিবের সাবেক স্ত্রী রেহান। তিনি ছিলেন হাবিবের দ্বিতীয় স্ত্রী। হাবিবের সঙ্গে আরেক মডেল পিয়া বিপাশার সম্পর্কের কথাও জানান রেহান। হাবিবের প্রেম বিয়ে পরকীয়ার ডিভোর্সের গল্প নতুন নয়। একটা সময়ে মোনালিসার সঙ্গে তাঁর গোপন প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে বলে গুজব শোনা গেছে। পিয়া বিপাশার রয়েছে একাধিক প্রেমঘটিত সম্পর্কের গল্প।

শোবিজ অঙ্গনে প্রেম-পরকীয়ার গল্প বহু পুরনো। প্রথমে আসা যাক নায়করাজ রাজ্জাক ও কবরীর প্রসঙ্গে। ষাট দশকের শেষ দিকের কথা, রাজ্জাক তখন বাংলা ছবির সুপারস্টার। ‘ময়না মতি’ ছবি রাজ্জাক কবরীকে আকাশ-ছোঁয়া জনপ্রিয়তা এনে দেয়। মূলত তখন থেকেই দু’জনের মধ্যে হৃদয় ঘটিত সম্পর্ক স্থাপন হয়। স্বাধীনতার পর তাঁদের অভিনীত একের পর এক ছবি সুপার হিট হওয়ার কারণে তাদের সম্পর্ক আরও নিবিড় হয়। তখন উভয়েই বিবাহিত-বিবাহিতা এবং একাধিক সন্তানের জনক-জননীও। তাঁদের হৃদয় ঘটিত সম্পর্ক এত বেশি আলোচিত হয়, যা তাদের পারিবারিক জীবনেও তার প্রভাব পড়ে। এমনিভাবে হঠাৎ রাজ্জাক-কবরী ভালবাসার মাঝে ফাটল ধরে। কবরী ঘোষণা দেন, রাজ্জাকের বিপরীতে আর অভিনয় করবেন না। ভেঙে যায় এই সফল জুটি।

পুরোনো কাসুন্দি ঘাটলে একাত্তরের নিখোঁজ বরেণ্য চলচ্চিত্র পরিচালক জহির রায়হান সুমিতা দেবীর কথা তুলতেই হয়। তাদের ডিভোর্স হয়েছিল নায়িকা সুচন্দাকে জহির রায়হান বিয়ে করেছিলেন বলে। নায়ক আলমগীর ও গীতিকার খোশনুরের ডিভোর্স হয় বরেণ্য শিল্পী রুণা লায়লার সঙ্গে আলমগীরের প্রেমের কারণে। একই কারণে সংসার ভেঙ্গেছিল সঙ্গীত পরিচালক আলাউদ্দিন আলী ও শিল্পী সালমা আলীরও।

সোহেল রানা প্রেমে পড়েছিলেন কলকাতার নায়িকা সোমা মুখার্জীর। ‘এপার ওপার’ ছবির নায়িকা ছিলেন সোমা। সে সময়ে সোহেল-সোমার প্রেমও আলোচিত হয়ে উঠেছিল। কিন্তু তাঁর সফল পরিণতি হয়নি। তবে সোহেল রানা থেমে থাকেননি। পরবর্তীতে স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়ে বিয়ে করেন এক ডাক্তারকে। সেটাও ছিল পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক। স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য সেই ডাক্তারের কাছে যেতেন সোহেল। তখনি হয় পরিণয়। ফারুক-রোজিনার কিংবা পরবর্তীতে ফারুক-ববিতার প্রেম-ভালবাসাও বেশ আলোচিত ছিল। জাফর ইকবালের স্ত্রী সোনিয়ার অলক্ষ্যে ববিতার সঙ্গে প্রেম ছিল। সে প্রেমের গল্প তো মানুষ আজও মনে করে।

হুমায়ুন ফরিদী ও সুবর্ণা মুস্তাফার তারকা জুটির একসময় ডিভোর্স হয়ে যায়। পরবর্তীতে সুবর্ণা বিয়ে করেন নাট্যনির্মাতা বদরুল আনাম সৌদকে। ফরিদীর আগেও স্ত্রী ও মেয়ে সন্তান ছিল। তাঁদের রেখে পরকীয়ায় জড়ান সুবর্ণার সঙ্গে।

একটি নাট্যদলে কাজ করতে গিয়ে আফসানা মিমির পরিচয় হয় নির্মাতা-অভিনেতা গাজী রাকায়েতের সঙ্গে। এভাবে কাজ করতে করতেই এক সময় সখ্যতাগড়ে ওঠে মিমি-রাকায়েতের। সময়ের ব্যবধানে সেই সখ্যতা গড়ায় প্রেমে। অত:পর বিয়ে। কিন্তু বিয়েটা দীর্র্ঘস্থায়ী হয়নি। ১৯৯৬ সালে বিচ্ছেদ ঘটে আফসানা মিমি-গাজী রাকায়েতের। পরবর্তীকালে আফসানা মিমির সঙ্গে আযম রেজা নামে এক ব্যক্তির সম্পর্ক গড়ে উঠে। সেই সম্পর্ক শেষমেষ বিয়ে পর্যন্ত গড়ায়নি।

শমী কায়সার বিয়ে করেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের নির্মাতা রিংগোকে। এই নির্মাতার পূর্বে একটি বিয়ে ছিল। তাঁর অলক্ষেই দুজনে প্রেম করেন। সে বিয়ে টিকেনি। পরবর্তীতে শমী আবারো বিয়ের পিড়িতে বসেন। সে বিয়েও টিকেনি।

নাট্যনির্মাতা এজাজ মুন্না ও অভিনেত্রী তাজিন আহমেদ বিয়ে করেছিলেন প্রেম করে। অনেকদিন টিকেছিল তাঁদের সংসার। অভিযোগ সেই পরকীয়া। তাজিন ডিভোর্স দেন মুন্নাকে। মুন্না বিয়ে করেন অভিনেত্রী মমকে। সে সংসারও টিকেনি।

মিডিয়াপাড়ায় অন্যতম আলোচিত বিয়ে ছিল হিল্লোল ও তিন্নির। এটাও ছিল ভালবাসার বিয়ে। কথিত আছে তিন্নি ধর্মান্তরিত হয়ে মা বাবাকে ছেড়ে হিল্লোলের কাছে চলে আসেন। বিয়ের পর হিল্লোল তিন্নির বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন যে, সে নেশাগ্রস্ত এবং পরপুরুষে আসক্ত। ফলে এই বিয়েও ভেঙ্গে যায়। হিল্লোল আবার বিয়ে করেছেন আরেক জনপ্রিয় নওশীনকে। তিন্নিও আবার বিয়ের পিড়িতে বসেন। সেখানেও রয়েছে পরকীয়ার অভিযোগ।

জনপ্রিয় মডেল অভিনেত্রী অপি করিম ২০০৭ সালে জাপান প্রবাসী আশির আহমেদকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর কিছুদিন ভালোই ছিলেন তাঁরা। তারপর হঠাৎ তাঁদের বিচ্ছেদের গুঞ্জণ উঠে। বছর না গড়াতেই তাদের সংসার ভেঙ্গে যায়। কারণ বিবাহিত থাকা অবস্থায়ই নাকি অপির নাট্য পরিচালক মাসুদ হাসান উজ্জলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। সে প্রেম বিয়েতে গড়ালেও বিচ্ছেদই সে পরকীয়ার ফল হয়।

প্রেমিক রাজিবের সঙ্গে আচমকা সম্পর্কের ইতি টেনে অপূর্বকে ভালোবেসেই বিয়ে করেন প্রভা। কিন্তু প্রভার সঙ্গে রাজিবের দৈহিক সম্পর্কের ভিডিওচিত্র প্রকাশের পর তাদের সম্পর্কে ছেদ পড়ে। অপূর্ব ডিভোর্স দেন প্রভাকে। প্রভা বিয়ে করেন মাহমুদ শান্ত নামে এক তরুণ ব্যবসায়ীকে। পরবর্তীতে প্রভা ও অভিনেতা শ্যামল মাওলার সঙ্গে ঘনিষ্টতার খবর পাওয়া যায়। সে সূত্র ধরে শ্যামলের দীর্ঘদিনের সংসারও ইতোমধ্যে ভেঙ্গে গেছে।

অভিনেত্রী বিজরী বরকতউল্লাহর সঙ্গে সংসাররত অবস্থাতেই পরকীয়ায় জড়ান সঙ্গীত পরিচালক শওকত আলী ইমন। জিনাত কবীর নামের এই মেয়েকেবিয়ে করার নাম করে তারা একসঙ্গে বসবাস করতে থাকেন। এরপর বিজরীও আর দেরি করেননি। অনেক জল ঘোলা করে বিজরী বিয়ে করেন অভিনেতা ইন্তেখাব দিনারকে।

চিত্রগ্রাহক তানভীর আনজুমের প্রেমে মজেছেন অভিনেত্রী, নাট্যকার ও নির্মাতা নাজনীন হাসান চুমকি। বেশ কিছুদিন ধরে এই প্রেমকাহিনী নিয়ে মিডিয়া পাড়ায় কানাঘুষা চলছে।স্বামী তুষারকে নিয়ে তার বেশ সুখের সংসারই বলে জানা নিকটজনদের। মিডিয়ায়ও সবাই তাই জানেন। কিন্তু এরপরও স্বামীরেখে চিত্রগ্রাহক তানভীরের সঙ্গে কেন তিনি প্রেমের সম্পর্কে জড়াতে গেলেন সেটা নিয়েই প্রশ্ন উঠেছে অনেকের মনে।

আরেকটি আলোচিত বিচ্ছেদ হচ্ছে ব্যান্ড তারকা জেমস এবং রথির সংসারের ভাঙন। এর পেছনে দোষ জেমসেরই ছিল বেশি। সে সময়ে জেমস মজে গিয়েছিলেন প্রবাসী এক তরুণীর প্রেমে। আর এতেই ভেঙে যায় তাঁদের সংসার। এ তালিকায় আরও আছেন রবি চৌধুরী ও ডলি সায়ন্তনীও। শোনা গিয়েছিলরবি চৌধুরীর পরকিয়া প্রেমের কারণেই সংসার ভাঙে তাদের।

কন্ঠশিল্পী আরেফিন রুমি স্ত্রীকে রেখে প্রবাসী এক নারীর সঙ্গে মজেছিলেন। পরবর্তীতে স্ত্রী অনন্যাকে ডিভোর্স দিয়ে তাকে বিয়ে করেন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 603 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ