বিএনপির স্থায়ী কমিটি ‘রোগাক্রান্ত’!

Print

১৯ সদস্য বিশিষ্ট বিএনপির স্থায়ী কমিটি। দলটির সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম। সেই কমিটির অর্ধেক সদস্যও এখন আর রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে তৎপর না। বেশির ভাগই নিষ্ক্রিয়। নিষ্ক্রিয় সদস্যদের কেউ ভুগছেন জটিল রোগে। আবার কেউ বা আছেন স্বেচ্ছা নির্বাসনে। আবার দুইজন রয়েছেন দেশের বাইরে।
স্থায়ী কমিটির সদস্যদের স্বজন এবং তাদের ব্যক্তিগত কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

স্থায়ী কমিটির এই ‘বেহাল’ দশা হলেও দল চালাতে সমস্যা হচ্ছে না বলে দাবি করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তার দাবি স্থায়ী কমিটির সবাই যে যার দায়িত্ব পালন করছেন।
উল্লেখ্য, গত বছর ১৯ মার্চ সবশেষ বিএনপির জাতীয় কাউন্সিল হয়। ৫৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করা হয়। ১৯ সদস্য বিশিষ্ট স্থায়ী কমিটির ১৭ জনের নাম ঘোষণা করা হয়। এই মধ্যে আসম হান্নান শাহ ওই বছর ২৭ সেপ্টেম্বর মারা যান। ফলে সদস্য সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ায় ১৬ তে। বর্তমানে স্থায়ী কমিটির তিনটি পদ শূন্য আছে।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, এই ১৬ জনের মধ্যে সাত নেতাই দীর্ঘদিন ধরে নিষ্ক্রিয়। বর্ষীয়ান নেতা সাবেক মন্ত্রী তরিকুল ইসলাম কিডনীসহ জটিল রোগে ভুগছেন।
তরিকুল ইসলামের ছেলে অনিন্দ ইসলাম অমিত জানান, তার বাবাকে সপ্তাহে তিনবার ডায়ালাইসিস করতে হয়। দলীয় কোনও কর্মকাণ্ডে অংশ নেয়া এখন তার পক্ষে সম্ভব হয় না।
দীর্ঘদিন ডায়াবেটিস, হদরোগসহ ও বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছেন এম কে আনোয়ার। তাবে সর্বশেষ জুন মাসে হোটেল ওয়েস্টিনে খালেদা জিয়ার সংবাদ সম্মেলনে দেখা যায়।
এম কে আনোয়ারের পিএস আবুল বশির বলেন, স্যার এবং তার স্ত্রী দুজনই শয্যাশায়ী।
এম কে আনোয়ারের নির্বাচনী এলাকা কুমিল্লার হোমনা উপজেলা বিএনপির সভাপতি মফিজুল ইসলাম বলেন, স্যার এখন আর কারোর সাথে দেখা করেন না। রাজনৈতিক বিষয়েও জড়িত নন।
সাবেক সেনাপ্রধান মাহবুবুর রহমান ভুগছেন মস্তিষ্কের রক্তনালীর সমস্যায়।
গেল বছর ২৫ জুন ঠাকুরগাঁও-দিনাজপুর মহাসড়কের দশমাইল মোড়ে এক দুর্ঘটনায় তিনি ও তার স্ত্রী মাথায় আঘাত পান।
মাহবুবুর রহমান বলেন, এক বছর আগে দুর্ঘটনার যে ব্যথা পেয়েছিলাম তা এখনও ভুগায়। একান্ত প্রয়োজন ছাড়া কোথাও যাওয়া হয় না।
৮৬ বছর বয়স্ক ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার এখনও নিয়মিত আদালতে ওকালতি করছেন। কিন্তু রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে যোগ দেন না। তিনি বলেন, শুধুমাত্র ম্যাডাম ডাকলে বাধ্য হয়ে যাই। এলাকার লোকজনের সাথেও দেখা করা হয় না।
স্বেচ্ছায় গুটিয়ে নিয়েছেন ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া। কোনও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে তিনি এখন আর জড়িত নন।
এব্যাপারে বক্তব্য নেওয়ার জন্য তার ইস্কাটনের বাসায় গিয়েও তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
জানা গেছে, গলব্লাডারে জটিল অস্ত্রোপচারের পর থেকে রফিকুল ইসলাম মিয়া জনসম্মুখে আসছেন না।
স্থায়ী কমিটির কনিষ্ঠ সদস্য সালাউদ্দিন আহমেদ প্রায় দু’বছর ভারতের মেঘালয়ের শিলং-এ। ২০১৫ সালের ১০ মার্চ উত্তরার একটি বাসা থেকে নিখোঁজ হন তিনি। এর ৬২ দিন পর তাকে শিলং-এ পাওয়া যায়।
ওয়াটস আপ কথপোকথনে তিনি জানান, কবে দেশে ফিরতে পারবেন তা নিশ্চিত নন।
সালাউদ্দিন আহমেদের স্ত্রী হাসিনা আহমেদ জানান, তার স্বামীর দুটি বড় অপারেশন হয়েছে ভারতে।
স্থায়ী কমিটির সদস্য তারেক রহমান কবে দেশে ফিরতে পারবেন ঠিক নেই। বেগম খালেদা জিয়া ও মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তাদের মূল দায়িত্ব নিয়ে ব্যস্ত।
স্থায়ী কমিটির এই ‘বেহাল দশা’ হলেও দল চালাতে সমস্যা হচ্ছে না বলে দাবি করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
তিনি জানান, স্থায়ী কমিটির সদস্যরা নিষ্ক্রিয় নয়। যে যার দায়িত্ব পালন করছেন।
উল্লেখ্য বিএনপির এর আগের স্থায়ী কমিটিও দলের নেতাদের কাছে ‘স্ট্রেচার’ কমিটি হিসাবে পরিচিতি পেয়েছিল।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 197 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ