বিদেশি গোয়েন্দাদের মদদে তুরস্কের নাইটক্লাবে হামলা

Print

তুরস্কের নাইটক্লাবে হামলার সঙ্গে বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর সম্পর্ক থাকতে পারে বলে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন দেশটির উপ-প্রধানমন্ত্রী নুমান কুরতুলমাস।
সংবাদপত্র ডেইলি হুররিয়তকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, পুরো হামলাটি এতো পেশাদারভাবে চালানো হয়েছে যে বাইরের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর জড়িত থাকার ব্যাপারটি উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। খবর আরটি নিউজের।

আমার মনে হয় না সহায়তা ছাড়া কোনো অপরাধীর পক্ষে এ ধরণের হামলা চালানো সম্ভব। কোনো গোপন সংস্থা হয়তো ব্যাপারগুলো পর্যবেক্ষণ করছে। তবে তিনি কোন দেশকে সন্দেহ করছেন সে বিষয়ে কিছু বলেননি।
তিনি বলেন, বাইরের গোয়েন্দাদের সহায়তা পেলে সন্ত্রাসীরা তুরস্কের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভেদ করে এমনভাবে হামলা চালাতে সক্ষম যেভাবে হয়তো আমাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখার কথা চিন্তাও করা হয়নি।
এদিকে, বুধবার তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রী মেভলুত বলেছেন, কর্তৃপক্ষ হামলাকারীর পরিচয় শনাক্ত করতে পেরেছে।
আইএসের ওই জঙ্গিকে ধরার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তার ছবি প্রকাশ করা হরেও তার সম্পর্কিত অন্য কোনো তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশ করেনি তুর্কি সরকার। তবে তুরস্কের সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে হামলাকারী ওই আইএস সদস্যে তার জিহাদি দলে আবু মহাম্মদ হোরাসানি নামে পরিচিত।
হুররিয়াতের খবর হোরাসানি উসবেকিস্তান অথবা কিরিগিস্তানের নাগরিক। তিনি গত বছরের ২০ নভেম্বর তুরস্কে আসেন। এরপরে তিনি আঙ্কারা হয়ে আনাতোলিয়া অঞ্চলের কোনিয়া শহরে আসেন ২২ নভেম্বর।সেখানে তিনি তার দলের অন্যান্য সদস্য ও পরিবার নিয় থাকার জন্য একটি বাড়ি ভাড়া নেন। সেখানে তিনি আইএসের এক আমির ইউসুফ হোকা নামের একজনের সঙ্গে বৈঠক করেন। ওই আমিরই তাকে নাইটক্লাবে হামলার নির্দেশ দেন। নাইটক্লাবে হামলা শেষে হোরসানি হতাহতদের রক্ত মেখে বের হন এবং ট্যাক্সিতে করে পালিয়ে যান।
ইংরেজি নববর্ষের রাতে ইস্তাম্বুলে চালানো ওই হামলায় নিহত হন ৩৯ জন। আহত হন ৬৯ জন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 111 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ