বিভিন্ন পদের ভর্তার রেসিপি

Print

বাঙালির পাতে রকমারি ভর্তার পদ- এ আর নতুন কি? কিন্তু একেক জায়গায় একেক রকম ভর্তার প্রচলন। তাই সবাই সবরকম ভর্তা তৈরী করতে জানেন না। দু-একদিন বাদেই পহেলা বৈশাখ। পান্তা ইলিশের সাথে ভর্তা না থাকলে কি আর চলে?

vorta

পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে আজ শিখে নিন সুস্বাদু কিছু ভর্তার রেসিপি-

বেগুনের ভর্তা

বড় গোলবেগুন ১টি, সরিষা বাটা ১ চা চামচ, নারকেলবাটা ২ চা চামচ, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, মেথি ১/২ চা চামচ, সরিষার তেল ২ টেবিল চামচ, শুকনা মরিচ ২টা, ধনেপাতা কুচি ২ টেবিল চামচ,লবণ স্বাদমতো।

বেগুনে তেল মাখিয়ে পুড়িয়ে নিতে হবে। এরপর ঠাণ্ডা করে খোসা ছাড়িয়ে মেখে রাখুন। কড়াইয়ে তেল গরম করে মেথি ফোঁড়ন দিয়ে পেঁয়াজ কুচি দিন। পেঁয়াজ একটু নরম হয়ে এলে শুকনো মরিচ, সরিষা, নারকেল ও লবণ দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়ুন। এরপর মেখে রাখা বেগুনটাও দিয়ে দিন। কড়াইয়ের তলা ছেড়ে এলে এবং নামানোর আগে ধনেপাতা কুচি দিয়ে নামিয়ে নিন।

একই পদ্ধতিতে টমেটোর ভর্তাও করতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে নারকেলবাটা ব্যবহার করবেন না এবং শুকনো মরিচের পরিবর্তে কাঁচামরিচ ব্যবহার করতে হবে।

মসুর ডালের ভর্তা

এক কাপ মসুর ডাল সাড়ে তিন কাপ পানি ও আধাচামচ রসুন কুচি দিয়ে সিদ্ধ করে নিন। ডাল ঘন হয়ে এলে নামিয়ে এর সাথে ১ চা চামচ পেঁয়াজকুচি, ২টি কাঁচামরিচ ফালি, ১ চা চামচ সরিষা তেল ও আধা চা চামচ লবণ দিন। সব উপকরণ দিয়ে মাখিয়ে নিলেই ভর্তা তৈরি।

লাউপাতার ভর্তা

ছয়টি লাউয়ের পাতা ধুয়ে নিয়ে এর সাথে দুটি কাঁচামরিচ ও স্বাদমতো লবণ দিয়ে সিদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে নিতে হবে। এবার ২ চা চামচ সরিষা ও ৪ চা চামচ নারিকেল কুরানোর সাথে সিদ্ধশাক পাটায় পিষে নিলেই তৈরি মজাদার লাউপাতার ভর্তা।

টাকি মাছের ভর্তা

প্রথমে টাকিমাছ সিদ্ধ ও কাঁটা ছাড়িয়ে এককাপ পরিমাণে নিতে হবে। এবার কড়াইতে তেল গরম করে তাতে দুই টেবিল চামচ পেঁয়াজকুচি, হালকা ভেজে মরিচবাটা আধা চা চামচ, সামান্য হলুদ গুঁড়ো ও আদা-রসুন-জিরা-ধনেবাটা এক চা চামচ করে দিয়ে একটু পানিসহ কষিয়ে নিন। এরপর মাছ এবং লবণ দিয়ে না শুকানো পর্যন্ত নাড়তে থাকুন। চুলা থেকে নামিয়ে হাতে গোল গোল করে বানিয়ে পরিবেশন করুন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 376 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ