বুড়ি তিস্তা দখল মুক্ত করতে উলিপুরে পাঁচ সহস্রাধিক মানুষের মানববন্ধন

Print


সাইফুর রহমান শামীম,কুড়িগ্রাম
উলিপুর শহরে ব্রহ্মপূত্র ও তিস্তা নদীর সংযোগ খাল বুড়ি তিস্তা নদী বাঁচাতে মানববন্ধন করেছে ৫ সহস্রাধিক মানুষ। বুকে প্লেকার্ড ছিল ‘বুড়ি তিস্তা বাঁচাও উলিপুর বাঁচাও’। সোমবার দুপুরে উলিপুর প্রেসক্লাব এবং রেল, নৌ-যোগাযোগ ও পরিবেশ উন্নয়ন কমিটি যৌথভাবে অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।  মানববন্ধনে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ অংশগ্রহণ করে। এসময় শহরের প্রাণি সম্পদ অফিস থেকে পোস্ট অফিস মোড় পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার ব্যাপি দীর্ঘ মানববন্ধনে হাজার হাজার মানুষ অংশ নেয়। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট আইনজীবী ও রিভারাইন পিপলস্’র সিনেটর অ্যাড. এস.এম আব্রাহাম লিংকন, সাবেক সংসদ সদস্য আমজাদ হোসেন তালুকদার, উলিপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হায়দার আলী মিঞা, মেয়র তারিক আবু আলা, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আমিনুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম হোসেন মন্টু, উলিপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আবু সাঈদ সরকার, সাবেক সভাপতি পরিমল মজুমদার, রেল, নৌ-যোগাযোগ ও পরিবেশ উন্নয়ন গণ কমিটির জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক জামিউল ইসলাম, উপজেলা কমিটির সভাপতি আপন আলমগীর, উপজেলা সিপিবি’র সাধারণ সম্পাদক দেলওয়ার হোসেন, বাসদ সমন্বয়ক সাঈদ আকতার আমিন প্রমুখ। দুপুর ১২ টা থেকে ২টা পর্যন্ত মানববন্ধন চলাকালিন সময়ে যানজটে পুরো শহর অচল হয়ে পড়ে।
বক্তারা জানান, উলিপুর শহরের পশ্চিম দিকে অবস্থিত থেতরাই ইউনিয়নের অর্জুন গ্রাম থেকে তিস্তা নদীর একটি শাখা উলিপুর শহরের মাঝ দিয়ে প্রবাহিত হয়ে পূর্বে চিলমারী উপজেলার কাচকল হয়ে ব্রহ্মপূত্র নদের সাথে মিলিত হয়। দীর্ঘ ৩০ কিলোমিটার ব্যাপি এই তিস্তার শাখাকে বুড়ি তিস্তা হিসেবে স্থানীয়দের কাছে পরিচিত ছিল। প্রায় ২০ বছর পূর্বে অর্জুন গ্রামে ওয়াপদা বাঁধে অবস্থিত স্লুইচ গেটটি ভেঙে গেলে পানি উন্নয়ন বোর্ড স্থায়ীভাবে বাঁধ দিয়ে বুড়ি তিস্তার সংযোগ মুখ বন্ধ করে দেয়। এরফলে শুকনো মৌসুমে ক্ষতিগ্রস্ত হয় হাজার হাজার হেক্টর ফসলী জমি। দখল হয়ে যায় এই মরা নদীর দুই পাড়। ভুমি দস্যুদের হাত থেকে দখল উচ্ছেদ এবং নতুন করে স্লুইচ গেটের মাধ্যমে পানি সরবরাহের আবেদন জানান ক্ষতিগ্রস্তরা।
বুড়ি তিস্তা বাঁচাও উপলক্ষে ডাকা মানববন্ধনে অংশ নিতে সকাল থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সংগঠন, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী, পেশাজীবী ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ স্বতঃফূর্তভাবে নিজ নিজ সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের ব্যানার, ফেসটুন ও প্লাকার্ড নিয়ে মিছিল সহকারে মানববন্ধনে যোগ দেয়। এসময় শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত হয়, ‘দাবি মোদের একটাই বুড়ি তিস্তায় পানি চাই’। এসময় বক্তারা আগামি ৩১ মার্চের মধ্যে বুড়ি তিস্তা দখলমুক্ত করার দাবি জানান। নাহলে বৃহত্তর আন্দোলন কর্মসূচির ঘোষণা দেয়া হবে বলে জানানো হয়।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 247 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
error: ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি