ব্যাটসম্যানদের নিয়ে ভয়, বোলিংয়ে তুষ্টি

Print

নিউজিল্যান্ডের মাটিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট খেলা সহজ কিছু নয়। বাংলাদেশের মতো ‘নবীন’ দলের জন্য সেটা আরো কঠিন। কারণ বিদেশের মাটিতে টাইগাররা কালেভদ্রেই খেলার সুযোগ পান। বাস্তবতার পাঠ থেকে বিষয়টা বুঝতে পারছেন টাইগারদের টেস্ট অধিনায়কও। তবে মুশফিকুর রহিম ব্যাটসম্যানদের নিয়ে যতোটা আতঙ্কিত, বোলারদের নিয়ে ঠিক ততোটা নয়। তাসকিন আহমেদ-মেহেদি মিরাজরা অভিজ্ঞতায় আনকোরা হলেও তাদের নিয়ে কিছুটা হলেও তুষ্টি রয়েছে টেস্ট অধিনায়কের।
বুধবার ম্যাচ পূর্ব দিনের সংবাদ সম্মেলনে মুশফিক বলেন, “যখন কোনো দলে এমন বোলার থাকেন যারা বিপক্ষের ২০ উইকেট নিতে পারেন, তখন ব্যাপারটি তাদের অধিনায়ককে আশাবাদী করে তোলে। এখানে অবশ্য স্পিনারদের থেকে পেসাররাই বেশি সুবিধা পাবে।”

আগামীকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় ভোর চারটায় শুরু হবে সিরিজের প্রথম টেস্ট। ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে আয়োজিত হওয়া সেই টেস্টে চার পেসার ও দুই জন বিশেষজ্ঞ স্পিনার নিয়ে মাঠে নামতে পারে টাইগাররা। বিষয়টি নিয়ে মুশফিক বলেন, “ইংল্যান্ড সিরিজের সঙ্গে এবারের সিরিজকে মেলানো যাবে না। এবার ভিন্ন কন্ডিশনে খেলা হচ্ছে। আমাদের দেশের আবহাওয়া, উইকেট কিংবা মাঠ কোনোটার সঙ্গে এর মিল নেই। তবে সন্তুষ্টির জায়গা হলো প্রতিপক্ষের ২০ উইকেট নেওয়ার সামর্থ রয়েছে আমাদের। ইংল্যান্ড সিরিজে আমরা সেটা প্রমাণ করেছি। তবে এবার সিমিং কন্ডিশনে খেলা হওয়ায় বিষয়টি চ্যালেঞ্জিং।”
ব্যাটসম্যানদের নিয়ে মুশফিক বলেন, “ঘাসের উইকেটে কিউই বোলারদের সামলানো এবং বোলারদের লড়াইয়ের পুঁজি গড়ে দেয়ার দায়িত্বটা যথাযথভাবে পালন করতে হবে ব্যাটসম্যানদের। ব্যাটসম্যানরা প্লাটফর্ম তৈরি করে দিলে বোলাররা হালে পানি পাবে। তাই আমি মনে করি এই টেস্ট ম্যাচটি বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের জন্য বিশাল এক চ্যালেঞ্জ হবে। এজন্য ভালো করতে হলে আমাদের দলগতভাবে সবাইকে ভালো করতে হবে।” আগের রেকর্ড নিয়ে মুশি যোগ করেন, “নিউজিল্যান্ডের মাটিতে টেস্টে সেঞ্চুরির রেকর্ড আছে মাহমুদুউল্লাহ ও সাকিবের। তার মানে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে সেঞ্চুরি করতে পারে। ছয় বছর পর এবার ব্যাটসম্যানরা সেই ধারা অব্যাহত রাখলে বোলারদের ভালো করার পথও খুলে যাবে।”

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 115 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ