বয়ঃসন্ধিকাল: মা-বাবাই সবচেয়ে বড় বন্ধু

Print

teen-age001

মানুষের জীবনের সবচেয়ে কঠিনতম সময় কোনটি? আমার কাছে যদি জানতে চান তাহলে বলবো বয়ঃসন্ধিকাল। এই বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা হাজারো যুক্তি দিয়েছেন। তারা মনে করেন, এই সময়ে বাবা-মায়ের পাশে থাকার প্রয়োজন সবচেয়ে বেশি।

এ বয়সে সন্তানের প্রতি অতিরিক্ত যত্নশীল কেন হবেন: সাধারণত বয়ঃসন্ধিকাল ধরা হয় ১৩-১৯ বয়স পর্যন্ত। এটি এমন একটি সময় যখন কিশোর-কিশোরীরা এক ধরনের দোটানায় থাকে। না তারা নিজেদের বড় ভাবতে পারে না ছোট। না বড়রা আদর করে, না ছোটদের কাছ থেকে পর্যাপ্ত সন্মান পায়।

● ধরুন আপনার সন্তান নিজে থেকে কোনো একটা কাজ করতে শুরু করলো আর সেখানে আপনি বা বাড়ির বয়স্ক অন্য কেউ বলে উঠলো, ‘খুব বড় হয়ে গেছো, তাই না!’ আবার ধরুন সে কোনো একটা কাজ পারছে না তো সেই লোকগুলোই বলে উঠবে, ‘এতো বড় হয়ে গেছিস, এটাও পারিস না! গর্দভ!’

● বয়ঃসন্ধিকালে শারীরিক এবং মানসিক উভয় ক্ষেত্রে আমুল পরিবর্তন আসতে থাকে। এর ফলে আপনার সন্তান নিজেই নিজেকে চিনতে পারে না। তার উপর সমাজের অন্য সবার অবহেলা তো আছেই।

● আবার এসময় তাদের মনটা থাকে উড়ু উড়ু। নতুন যেকোনো কিছুতেই আগ্রহ অত্যাধিক পরিমাণে বৃদ্ধি পায়। একটু লক্ষ্য করলে দেখবেন যারা নিয়মিত ধূমপান বা মদ্যপান করেন তারা এই বয়সেই প্রথম শুরু করে। সঠিক দিকটি তাদের সামনে না দেখানো হলে অল্পতেই তাদের বিপথে চলে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

● বয়সটা অল্প হলেও এসময় তারা বুঝতে পারে না। ভাবতে থাকে অনেক বড় হয়ে গেছে। এই চিন্তার কারণেই তাদের মধ্যে এক ধরনের অহংকার বা ইগো সৃষ্টি হয়। ফলে অন্যের কথা কিছুতেই মানতে চায় না।

বাবা-মা যা যা করবেন:

প্রথমেই মনে রাখুন এ সময় সন্তান আপনার কাছ থেকে যতো কথা লুকাবে ততো তার বিপথে যাওয়ার আশঙ্কা বাড়বে। সে যেন আপনার কাছ থেকে কোনো কথা না লুকায় সেটা নির্ভর করবে তার সাথে আপনার সম্পর্কের ঘনিষ্টতার উপর। তাই অভিভাবক নয়, বন্ধু হওয়ার চেষ্টা করুন।

● ভালো খারাপের সঠিক জ্ঞান তার সামনে তুলে ধরুন। জোর করে বুঝানোর চেষ্টা না করে উদাহরণ দিয়ে দেখিয়ে দেয়ার চেষ্টা করুন।

● আপনার সন্তান যে আপনার সব কথা শুনবে তার কোনো গ্যারান্টি নেই। এমনকি সব কিছুর পরেও সে বিপথে চলে যেতে পারে। তবে তার মাঝে অন্তত এতটুকু শিক্ষার আলো পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা করবেন যেন সে বিপথ থেকেও ফিরে আসার চেষ্টা করে এবং সেজন্য আপনার কাছেই সাহায্য চাওয়ার সৎ সাহসটুকু পায়।

● জীবনের এই অল্প কিছু সময়ই তাকে সারা জীবনের ঝামেলার সাথে মোকাবেলার শক্তি যোগাবে। তাই এই সময়ে বাবা-মার অতিরিক্ত সতর্ক থাকা প্রয়োজন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 141 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ