ভারতের মানচিত্রের ৬ স্থানের নামকরণ করলো চীন

Print

তিব্বতের ধর্মীয় নেতা দালাই লামার অরুণাচল সফরের প্রেক্ষাপটে ভারত-চীন সম্পর্কে নতুন করে টানাপড়েন শুরু হয়েছে। উত্তর-পূর্ব ভারতের এই রাজ্যটিকে ফের ‘দক্ষিণ তিব্বত’ আখ্যা দিয়ে বেইজিং’র ছয়টি এলাকার নতুন নামকরণ করেছে।
গেলো ১৪ এপ্রিল এ নামগুলো ঘোষণা করা হয়েছে বলে চীনের রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত সংবাদপত্র গ্লোবাল টাইমসের খবরে এ কথা বলা হয়েছে।

চীনের ওই পত্রিকায় বলা হয়েছে, বেইজিংয়ের নতুন করে এ ঘোষণার মাধ্যমে অরুণাচল যে তাদের অবিচ্ছেদ্য অংশ তার পুন:নিশ্চয়তা বিধান করছে। যদিও চীনের এ দাবিকে বরাবরই প্রত্যাখ্যান করে আসছে ভারত। তাদের বক্তব্য অরুণাচল ভারতেরই অংশ এবং এটা কোনক্রমেই তাদের থেকে বিচ্ছিন্ন হতে পারে না। চীনের সিভিল বেসামরিক বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তারা ‘দক্ষিণ তিব্বতে’র ছয়টি অঞ্চলের নতুন চীনা নামকে স্বীকৃতি দিয়েছে।
চীনা ভাষার নামগুলোকে তিব্বতি এবং রোমান বর্ণমালায় কী ভাবে লিখতে হবে, তাও মন্ত্রণালয় নির্দিষ্ট করে দিয়েছে। যে ছয়টি নতুন চীনা নামকে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে, সেগুলো হলো ও’গিয়াইনলিং, মিলারি, কোইড গারবো রি, মাইনকুকা, বি মোলা এবং নামকাপুব রি।
অরুণাচলে দালাই লামার সফরের কয়েকদিন পরেই চীনের থেকে এ নতুন নামকরণের ঘোষণা এলো। ৮১ বছর বয়স্ক দালাই লামার অরুণাচল সফরকালে চীন তার তীব্র সমালোচনা করেছিল। চীন সেসময় সতর্ক করে বলেছিল, ভূখণ্ডের সার্বভৌমত্ব এবং স্বার্থ রক্ষায় তাদের যা যা করা উচিত তাই তারা করবেন। চীনের দৃষ্টিতে দালাই লামা হচ্ছে একজন বিপজ্জনক বিভেদকারী ব্যক্তি, যিনি তিব্বতকে চীন থেকে আলাদা করতে মরিয়া।
ভারত সেসময় চীনের এ ধরনের সমালোচনাকে উড়িয়ে দিয়ে বলেছে, চীন এর মাধ্যমে ভারতের সঙ্গে কৃত্রিম বিতর্ককে উস্কে দিচ্ছে। অরুণাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী পেমা খানদু বলেন, চীনের এ ধরনের বক্তব্য এটাকেই প্রতীয়মান করছে যে এ রাজ্য তিব্বতের সঙ্গে সীমানা রয়েছে, চীনের সঙ্গে নয়। এর আগে রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কিরেন রিজ্জু বলেছিলেন, অরুণাচল প্রদেশ ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ। চীনকে দালাই লামার সফরের বিরোধিতা ও ভারতের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়। সেসময়ে চীন এর প্রতিবাদে বলেছিল, দালাই লামার ইস্যুতে ভারত তাদের সঙ্গে সম্পর্কের মারাত্মক ক্ষতি করছে।
অরুণাচল প্রদেশকে দীর্ঘ দিন ধরেই ‘দক্ষিণ তিব্বত’ নামে ডাকে চীন। ১৯৬২ সালের যুদ্ধে চীনা সেনা অরুণাচলের ভেতরে ঢুকেও পড়েছিল। পরে তারা ফিরে যায়। গোড়া থেকেই ভারতের শাসনে রয়েছে অরুণাচল প্রদেশ। কিন্তু চীন অরুণাচলকে ভারতের অংশ বলে স্বীকৃতি দিতে রাজি নয়। চীনের দাবি, অরুণাচল দু’দেশের মধ্যে একটি বিতর্কিত এলাকা।
ভারতের পাল্টা দাবি, ১৯৬২ এর যুদ্ধে জম্মু-কাশ্মীরের যে এলাকা (আকসাই চিন) দখল করেছিল চীন, সেই এলাকা ভারতকে ফেরত দেয়া হোক। কিন্তু চীন তাতেও নারাজ। ফলে জম্মু-কাশ্মীর থেকে শুরু করে অরুণাচল পর্যন্ত বিস্তৃত সুদীর্ঘ চীন-ভারত সীমান্ত বহু বছর ধরেই দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নতির পথে কাঁটা হয়ে রয়েছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 125 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ