মেলান্দহে গোপনে নিন্মদরে সরকারি ভবন ও বৃক্ষ নিলাম

Print


ছাইদুর রহমান,জামালপুর প্রতিনিধি: জামালপুরের মেলান্দহে গোপনে নি¤œদরে অনুমোদনের আগেই উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দাপ্তরিক ভবন ও বৃক্ষ গায়েব হয়েছে। অভিযোগ ওঠেছে, অন্তত: ২০ লাখ টাকা মূল্যের ভবন ও বৃক্ষগুলো নামমাত্র ৩লাখ ২০হাজার টাকায় গোপন নিলামে দিয়ে রাষ্ট্রকে ঠকানো হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। ভবনগুলোতে মৎস্য, সমবায়, যুব, খাদ্য, পরিসংখ্যান, সমাজসেবা, পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশন ও ইসলামী ফাউন্ডেশনের পাঠাগার ছাড়াও ৫টি বৃক্ষ ছিল।
এছাড়াও ২টি পরিত্যাক্ত ভবনসহ একটি বিএডিসির জরাজীর্ণ গুদাম ঘর উল্লেখযোগ্য। এর আগে পুরনো পাবলিক হল ও ইউএনও’র বাসভবন সংলগ্ন আরো কয়েকটি ভবন নিলাম হয়েছিল একই কায়দায়। ইতোপূর্বে তৎকালীন ইউএনও তানভীর আহমেদ বিএডিসির পূরনো ভবন নিলামের উদ্যোগ নেন। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার কিছু অংশ ভেঙ্গে নেয়ার পর প্রশাসনের মতানৈক্যে তা স্থগিত হয়। প্রশাসনের যোগসাজসে অন্যভবনের সাথে ঈদগাহ মাঠ-অফিসের দেয়াল এবং উপজেলা পরিষদের দোকানপাটও হরিলুট করা হয়। প্রশ্ন ওঠেছে, নিলামে দেয়া ভবনগুলোর কয়েকটি মেরামতের জন্য সরকারি বরাদ্দও ব্যয় করার কী প্রয়োজন ছিল?
রাষ্ট্র্রকে ঠকিয়ে অনিয়মের আশ্রয়ে অনুমোদনহীন, কম মূল্যে নিলাম দেয়ার বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জন কেনেডি জাম্বিল জানান-উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আ: রাজ্জাক সুজা এবং ইঞ্জিনিয়ারের সাথে যোগাযোগ করুন।
উপজেলা প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম তালুকদার জানান,প্রায় দুই মাস আগে ভবনগুলো ৪লাখ ৯৫হাজার টাকা মূল্য নির্ধারণ করে মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। এত কম মূল্য নির্ধারণ করায় মন্ত্রণালয় অনুমোদন দেয়নি। আবেদনটি ফেরত এসেছে। গাছের বিষয়ে আমি কিছু জানি না।
কাগজে কলমে ৩লাখের কিছু বেশী সর্বোচ্চ দরদাতা দেখিয়ে ঠিকাদার শহিদুর রহমানকে কাজ দেয়া হয়েছে। আপনাদের নির্ধারণ করা ২লাখ টাকার রাজস্ব ঘাটতি দেখিয়ে প্রায় ৫লাখ টাকার কাজ ৩লাখ টাকায় দিলেন কিভাবে? এমন প্রশ্নে শফিকুল ইসলাম জানান,যা করেছি উপরের নির্দেশেই।
আ’লীগ সভাপতি আ: রাজ্জাক সুজা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের আগেই ভবনগুলো ভাঙ্গার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,৫টি গাছ আমি ৭০হাজার টাকায় বিক্রি করে সরকারি কোষাগারে জমা দিয়েছি। আর ভবনগুলো নিলামের অনুমোদনের জন্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 116 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ