মেয়ের আয় দিয়েই চলতো : মিথিলার

Print

জ্যাকলিন মিথিলা আত্মহত্যা করেছেন। তার পিতার সূত্রে খবরটি ইতোমধ্যে গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু কে এই জ্যাকলিন মিথিলা? কেনইবা এতো আলোচনায়? তিনি কি শোবিজ অঙ্গনের কেউ? এসব প্রশ্নের উত্তর জানতে হলে একটি পেছনে ফিরে তাকাতে হবে। ২০১৫ সালের শুরুর দিকে ভারতীয় অভিনেত্রী ও সাবেক পর্ন তারকা সানি লিওনের অনুকরণে একটি ফটোশুট করে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রথম নজরে আসেন। সানি লিওন ‘এক পেহেলি লিলা’ নামের ছবির ফার্স্ট লুক প্রকাশ করেন। মিথিলা দেশীয় একজন ফটোগ্রাফারের মাধ্যমে অনুকরণ করে একই কায়দায় পোজ দেন। নামের একটি এরপর জ্যাকলিন মিথিলার খোলামেলা ছবি ক্রমাগত ছড়াতে থাকে। তারপরেও জ্যাকলিন মিথিলা মূলধারার মিডিয়ার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে ব্যর্থ হন।
তার পোস্ট থেকে জানা যায়, তিনি চেয়েছিলেন শোবিজ অঙ্গনে প্রতিষ্ঠা পেতে। এজন্য একটি মিউজিক ভিডিওর মডেলও হতে পেরেছিলেন। কিন্তু সেই মিউজিক ভিডিওর খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় সীমাবদ্ধ ছিল। পরবর্তীতে দেশীয় পরিচালক পি এ কাজলের একটি ছবিতে আইটেম গানে অংশ নেন। তার বিপরীতে ছিলেন শতাব্দী ওয়াদুদু। কিন্তু এতেও গণমাধ্যমের শিরোনাম হতে পারেন নি তিনি।

নিজেকে সানি লিওনের ভক্ত হিসেবে দাবি করে জ্যাকলিন মিথিলার আসল নাম জয়া শীল। খোলামেলা ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে এবং নিজেকে বাংলার সানি লিওন দাবি করা এ মডেলের ফেসবুক ওয়ালে ঢুকে আত্মহত্যা সম্পর্কিত দুটি স্ট্যাটাস পাওয়া যায়। একটি ৩০ জানুয়ারি রাত ১১টা ৪৯ মিনিটে দেওয়া। এতে তিনি লিখেন, ‘কালকে আমি আত্মহত্যা করব। কেউ আমাকে প্রত্যাখান করে নাই। আমিও কাউকে প্রত্যাখান করি নাই। কিন্তু আমি আত্মহত্যা করব। ‘ আবার ৩১ জানুয়ারি সকাল ৭টা ২৮ মিনিটে লিখেন, ‘ধীরে ধীরে মৃত্যুর পথে পা বাড়াচ্ছি। ‘ সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনায় থাকা জ্যাকলিন মিথিলার মৃত্যুর পর মূলধারার খবরে চলে আসেন।
জ্যাকলিন জন্মেছেন এবং শৈশব কাটিয়েছেন ফেনীতে। তার পিতা স্বপন শীল পেশায় নাপিত। জ্যাকলিন কৈশোরের শুরুতে তিনি চট্টগ্রামে চলে আসেন এবং সেখানেই বড় হন। এরপর ঢাকার শ্যামলী আইডিয়াল পলিটেকনিকেও পড়েছেন বলে পিতা স্বপন শীল জানান। অতি সম্প্রতি মিথিলা ফেসবুল ‘লাইভ’ এর আকর্ষণে ঝুঁকে পড়েন। তার ফেসবুক লাইভে প্রায় ৫/৬ হাজার ভিয়ার্স থাকতো। কমেন্ট বক্সে অধিকাংশ মন্তব্যই থাকতো আপত্তিকর।
টানাটানির সংসারেও অভিলাষ জীবন করতেন মিথিলা। বাড়ি চট্টগ্রামে হওয়ায় মিথিলা প্রায়ই বিমানে যাতায়াত করতেন। তার ফেসবুক পোস্ট থেকে এমনটাই জানা গেছে। কিন্তু মিথিলার আয় কী ছিল? মিথিলার বাবা স্বপন শীল টেলিফোনে জানান, তার পেশা সেলুনে কাজ করা। তিনি বলেন, আমি সেলুনে কাজ করি, শরীর তেমন আয় নেই। আমার মেয়ে মিডিয়াতে কাজ করে। তার টাকা দিয়েই আমি চলি। এখন আমার মেয়ে মারা গেছে আমাকে পথে পথে ভিক্ষা করা ছাড়া উপায় নেই।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 369 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ