রমজানের আগে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিতে বিএনপির উদ্বেগ

Print

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেতন বৃদ্ধির প্রভাবে বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর হিমশিম খাচ্ছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বিএনপি।

আজ রোববার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, দেশে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বেতন দ্বিগুন ও সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেতন সামান্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। অথচ বৃহত্তর জনগোষ্ঠির ওপর এর খড়ক নেমে এসেছে। কারণ যারা বেতন-বৃদ্ধির সুবিধা পাননি, তারাই বৃহত্তর জনগোষ্ঠি।

রিজভী বলেন, নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম হু হু করে বেড়েই চলেছে। বৃহত্তর জনসমাজে আর্থিক ভারসাম্যহীনতা প্রকট আকার ধারণ করেছে। মধ্যবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তদের এখন নাভিশ্বাস উঠেছে। সাধারণ মানুষের মধ্যে এক গুমোট পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

রমজানের আগে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে রিজভী বলেন, রমজানের আগে শনিবার একদিনেই রসুনের দাম প্রতি কেজি দাম বেড়েছে ৭০ টাকা অর্থাৎ ১৬৭ পারসেন্ট। ছোলার দাম দ্বিগুন, পিঁয়াজসহ শাক-সবজীর দাম কেজিতে প্রতি ২০/২৫ টাকা বেড়েছে। কোথাও কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই, নেই কোনো মনিটরিং ব্যবস্থা। ফড়িয়া-দালাল-মধ্যস্বত্ত্বভোগীরা সবকিছু নিজেদের লোকেরা ইচ্ছামতো সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে সাধারণ মানুষ প্রান্তিক পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। ক্ষমতাসীন দলের লোকেরা এ সব অশুভ সিন্ডিকেশনের সাথে জড়িত।

রাজধানীতে নিম্নবিত্তদের অবস্থা সঙ্কটজনক অভিহিত করে রিজভী বলেন, নিম্নবিত্তরা এখন রাস্তার ভবঘুরে পরিণত হয়েছে। আবারো দেশ বরণ্যে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের আঁকা চিত্রকর্মের মতো ডাস্টবিনে কুকুর মানুষ এক সাথে খাবার খুটে খাচ্ছে। দেশে আবারো দুর্ভিক্ষের পদধবনি শোনা যাচ্ছে। রাজধানীর ভিআইপি রোড বলে পরিচিত, যেসব রাস্তা দিয়ে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রীরা যাতায়াত করেন, সেমস্ত সড়কের পাশে-পাশেই ডাস্টবিনে ক্ষুধার্ত মানুষ খাদ্য খুঁজে বেড়াচ্ছে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত ডাস্টবিনের ক্ষুধার্ত মানুষের অবস্থানের বেশ কয়েকটি আলোকচিত্র সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরেন রিজভী।

ইউনিয়ন পরিষেদের চতুর্থ ধাপের নির্বাচন প্রসঙ্গে রিজভী বলেন, ইউপি নির্বাচনের চতুর্থ ধাপেও আটজনের প্রাণ গেছে। এরপরও নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে- সিইসির এই বক্তব্যে গোটা জাতি হতবাক হয়েছে। প্রাণহানি ও রক্তপাতের বিভৎস পৈশাচিক যে নির্বাচন দেশবাসী প্রত্যক্ষ করেছে, তাকে আমলে না নিয়ে সিইসি যে বক্তব্য দিয়েছেন, তা কোনো সুস্থবোধ সম্পন্ন মানুষের পক্ষে বলা সম্ভব কিনা এটি দেশের মানুষের কাছে আজ প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় বিকালে এই সংবাদ সম্মেলনে দলের যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, হারুনুর রশীদ প্রমুখ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 37 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ
error: ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি