রমনা পার্কে প্রেমিক প্রেমিকার অশ্লীলতা

Print

ঢাকা এক জনবহুল নগরী। মানুষ একটু ছুটি বা অবসর পেলেই বিভিন্ন পার্ক বা উদ্যানে ঘুরতে যান প্রকৃতির সান্নিধ্য লাভের আশায়। এই কর্মব্যস্ত যান্ত্রিক শহরের বিশাল বিশাল দালান-কোঠার মধ্য থেকে কিছুটা সময় খোলা আকাশের নিচে কাটানোর জন্য ছুটে যান সবুজের সমারহ রমনা পার্ক, সোহরাওয়ার্দী ও চন্দ্রিমা উদ্যানে কিংবা বোটানিকেল গার্ডেনে। তাদের জন্য সেই পার্ক বা উদ্যানগুলো এখন অস্বস্তির কারণ হয়ে উঠছে। স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছেলে-মেয়েরা সকাল থেকে শুরু করে সন্ধ্যা পর্যন্ত পার্কের মধ্যে নানান অশ্লীল কাজে লিপ্ত হয়ে থাকে। আড়াল ও ছাতার নিচেই শিক্ষার্থীরা অশ্লীলতার নিরাপদ স্থান হিসেবে বেঁচে নেয়।
যেমনটা আজ মঙ্গলবার দুপুরে রমনা পার্ কে গিয়ে দেখা গেছে, এক পাগল ঘুমাচ্ছে। পাশাপাশি তরুণ-তরুণীদের অশ্লীলতাও চোখে পড়েছে।
বর্তমানে রাজধানীর বিনোদন কেন্দ্র পার্কগুলো শিক্ষার্থীদের আপত্তিকর মেলামেশার অন্যতম স্থানে পরিণত হয়েছে। এসব জায়গায় স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা প্রকাশ্যেই বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত হচ্ছে। তাদের এইসব কার্যকলাপ পশ্চিমাদেরও হার মানিয়েছে।
রাজধানীর বিভিন্ন পার্কে ঘুরে দেখা যায়, অতি আধুনিক স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা তাদের ইউনির্ফম পরেই প্রেমের নামে মিলিত হচ্ছে অনৈতিক সম্পর্কে।তরুণ-তরুণীদের প্রায়ই স্কুল-কলেজের পোষাকেই রাজধানীর বিভিন্ন পার্ক, জাতীয় সংসদ ভবনের পাশে ও বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে আপত্তিকর অবস্থায় দেখা যায়। এই অবস্থায় ছাত্র-ছাত্রীদের নৈতিকতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। এসব কারণে দেশের শিক্ষক ও অবিভারকরাও তাদের সন্তাদের ভবিষ্যত নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে।
তিনি বলেন, এসব বন্ধে ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। সেই সাথে আমাদের শিক্ষক, অভিভাবকসহ সবারই সচেতন হওয়া দরকার। তা না হলে দিন দিন আমাদের সমাজ ধ্বংসের দিকে যাবে এবং তরুণ-তরুণীদের জীবনে অনাকাঙ্খিত ঘটনাগুলো বেড়েই চলবে।
রাজধানীর একটি পার্কে কলেজ পড়ুয়া এক জোড়া শিক্ষার্থীকে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখে এ প্রতিবেদক তাদের প্রেমের বিষয়ে জানতে চাইলে, তারা জানায়, তারা একাধিক বার এই পার্কের বাইরেও বিভিন্ন জায়গায় দৈহিক মেলামেশা করেছে। এটা তাদের কাছে স্বাভাবিক বলে জানায়।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 104 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ