রাজনীতি

Print

অধরা ইসলাম কলামিস্টঃ

আমি রাজনীতি বুঝিনা তবে আদর্শ রাজনীতির উদ্দেশ্য বুঝি। আদর্শ রাজনীতি কখনোই অশিক্ষিত নেতার দ্বারা হতে পারেনা।

যদি শিক্ষাবিহীন নেতা সুস্থ্য রাজনীতি করতে পারতো তবে একাউন্ট ডিপার্টমেন্ট এর মানুষ এইচআর আর ফিন্যান্স ডিপার্টমেন্ট এর মানুষ একাউন্ট ডিপার্টমেন্ট এ সাকসেস হতে পারতো

আমি কোনো দলের নই। আওয়ামি লীগ কিংবা বিএনপি আমি বুঝিনা। আমি বুঝি স্বশিক্ষায় শিক্ষিত মানুষ দরকার দেশ চালাতে।

রাজনীতি বুঝে রাজনীতি করতে হবে। হাল চাষ করতে গরুর দরকার হয়, আর ঘোড়ার দৌড় দেখতে ঘোড়াই দরকার। ছাগল পালন করে বাঘের গর্জন শুনতে চাওয়া বোকামি।

অনেকে বলেন আওয়ামি লীগ ভালোনা, আবার অনেকে বলেন বিএনপি ভালো না। দল একটা নাম মাত্র এটা কখনোই ভালো-মন্দ প্রকাশ করেনা।

তবে দলের ভালো-মন্দ ওই দলের মানুষের ওপর নির্ভর করে। যেহুতু মানুষই দল গঠন করে তাই আমরা বলতে পারি মানুষ ভালোনা।

দেশ চালাতে সমালোচনাকারী দরকার আছে তবে সমালোচনার বিষয়বস্তু না বুঝে সমালোচনা করা অজ্ঞতার বহিঃপ্রকাশ।

আজকাল সব দলের মাঝেই অনেক উটকো নেতার জন্ম নিয়েছে। দুই টাকার পোস্টারে বড় নেতার বড় ছবির পাশে ছোট নেতার ছোট ছবি।

নেতা শুধু পোস্টারে। অথচ, এইসব নেতাদের যদি জিজ্ঞ্যেস করা হয়- নেতা কাকে বলে ? উত্তরে তারা বলেন- নেতার সাথে থাকলেই নেতা বলে। বাহ! সুন্দর রাজনীতি আমার সোনার বাংলায় ।

নেতার সাথে সেলফি তোলা রাজনীতি বন্ধ করতে হবে। আমি সম্মান করি বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক রাজনীতিকে। উনি শুধু একজন আদর্শ নেতাই ছিলেন না , উনি ছিলেন একজন আদর্শ মানুষও।

ওনার কলমে ছিল তীক্ষ্ণ ধার, পোশাকে ছিলো আলাদা আইকন , শিক্ষায় ছিলেন অন্যতম,কণ্ঠ ছিল বলিষ্ঠ। আমরা এখনো বঙ্গবন্ধুর মুজিব কোর্ট কে স্টাইল আইকন হিসেবে দেখি। আজও আর কোনো নতুন মুজিব কোর্ট আসেনি।

নতুন কোনো মুজিব আসেনি। তবে কিছু নামধারী সেলফি নেতা কিভাবে দাবি করে যে আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে অনুসরণ করি? আমি চাইনা, তাঁর নাম ভাঙ্গিয়ে তাঁর আদর্শকে কেউ অবমাননা করুক।

 

আজকের পদ্মা সেতু জনগণের জন্যে নির্মিত হচ্ছে জনগণের টাকাতেই। এরকম বহু কিছু নির্মিত হচ্ছে হয়েছেও। এগুলো নিয়ে রাজনীতি কেন? পদ্মা সেতুর উপর দিয়ে মানুষ যাবে।

ওখানে লেখা থাকবে না শুধু আওয়ামীলীগের লোক কিংবা শুধু বিএনপির লোক যাবে। তবে কেন প্রতিহিংসা ? এটা কখনো রাজনীতি হতে পারেনা , দেশ প্রেম হতে পারেনা। ,রাজনৈতিক দলের বিষয়বস্তুও হতে পারেনা। প্রতিহিংসা অজ্ঞতা মাত্র।

আমাদের সকলের বিবেক আছে । আসুন আমরা প্রজন্মের পর প্রজন্মের কথা শোনার পাশাপাশি নিজেদের শিক্ষা ,বুদ্ধি আর বিচক্ষনতাকেও কাজে লাগাই।

জন্ম থেকে দেখেছেন যে পরিবার আওয়ামিলীগ তাই আপনারা আওয়ামিলীগ, দেখেছেন পরিবার বিএনপি তাই আপনারাও বিএনপি। -এই মনোভাব ঠিকনা। নিজেদের মূল্যবোধকে জাগ্রত করতে হবে।

বংশ পরম্পরার সূত্র ধরেই যদি সব করতে হয় তবে আমাদের আজকের স্মার্ট টেকনোলজি গ্রহণের কোনো অধিকার নেই। কারণ আমাদের বাপ চাচারা সেলফি তুলতে পারেননি তাহলে আমাদেরও পারা উচিৎ নয়।

আসুন দল-মত নির্বিশেষে আমরা সবাই মানুষ হওয়ার রাজনীতি করি ম। দেশের রাজনীতি করি । স্বদেশ প্রেমের রাজনীতি করি।

এসব রাজনীতি করলে আমাদের আর কোনো দলের রাজনীতি করতে হবে না। দলের নাম কখনোই দেশ প্রেম হতে পারেনা। দেশ প্রেমের নামই দল।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 542 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ