শার্শার বাগআঁচড়া বাগুড়ী বেলতলা আমের বাজার যেন বিষের বাজারে রুপ নিয়েছে

Print

মোঃরাসেল ইসলাম,বিশেষ প্রতিনিধি:শার্শা কলারোয়ার সীমান্ত ঘেষা বাগআঁচড়া বাগুড়ী বেলতলা আমের বাজার এখন বিষের বাজারে পরিণত হয়েছে।
সুন্দর সুন্দর দেখতে আমটি আসলে আম নয়, এক একটি যেন বিষের খনি। স্থানীয় প্রসাশনের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় বাগুড়ী গ্রামের অসাধু আম ব্যবসায়ী শাহাজান আলীর নেতৃত্বে গড়ে উঠেছে বাগুড়ী আম বাজারের এই বিষাক্ত সিন্ডিকেট। জন স্বাস্থ্য উপেক্ষা বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে তারা সাধারণ মানুষ কে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা।
সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ভাল রং তৈরির জন্য, পাঁকানোর জন্য ও আম না পচার জন্য এখানে দিন রাত চলছে শত শত মণ আম স্প্রে লল। মেশানো হচ্ছে ভারত থেকে চোরাই পথে আমদানী করা রাইস মিথানল, কারবাইট সালফেট, ফরমালিন সহ বিভিন্ন প্রকারের জীবন ঘাতি বিষাক্ত কেমিক্যাল। যা দেহের বিভিন্ন কোষ ধ্বংস করে মানুষকে দ্রুত মৃত্যুর দিকে পতিত করে।
যশোর সাতক্ষীরা সীমান্ত ঘেষা বৃহত্তম ও অন্যতম আমের এই বাজার এটি। প্রত্যেক মৌসুমে হাজার হাজার মণ বিভিন প্রজাতির আম এখান থেকে ঢাকা,রাজশাহী, চট্টগ্রাম কানসার্ট মাদারীপুর,টেকেরহাট,বরিশাল-খুলনা সহ দেশের বড় বড় শহর গুলোতে চলে যায়। বাজারটি সরকার অনুমোদিত বাজার না হলেও লেনদেন হয় কোটি কোটি টাকা।গ্রাম থেকে আসা ব্যাপারী সহ ক্ষেতওয়ালাদের কাছ থেকে ইচ্ছামত কর্তন করা হয় খাজনা সহ নানা অজুহাতে খাদ দেখিয়ে চালান প্রতি একটি টাকা।যা সরকারী নিয়মের বহির্ভুত টাকা।যা তদারেকীতে দেখার কেউ নেই।
বাজারটিত ছোট বড় প্রায় শতাধিক আমের আড়ত রয়েছে এখানে। এসব আড়ত গুলির রয়েছেএক বা একাধিক গুদাম ঘর। তাছাড়া বাজারের আসে পাশে প্রায় শতাধিক বাড়ি নিদিষ্ট টাকার বিনিময়ে প্রতি মৌসুমে স্প্রে সহ আম রাখার কাজে ব্যবহার হয়ে থাকে।
প্রতিদিন এখান থেকে হাজার হাজার মণ আম কেনা বেচা হয়ে থাকে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শত শত ব্যাপারী এই বাজারে ভিড় জমায়।ফলে জমজমাট হয়ে উঠেছে বাজারটি। আড়তে আম বিক্রি হওয়ার পর চলে যায় আগে থেকে নিদিষ্ট করা গুদাম ঘর বা বাসা বাড়িতে। এর পর ঘরের মেঝেতে আম সুন্দর করে বিছিয়ে রাইস মিথানল, কারবাইট সালফেট, ফরমালিন একত্রে মিশ্রত করে আমের উপর স্প্রে করা হয়। ফ্যানের বাতাসে কিছুক্ষণ শুকানোর পর প্লাষ্টিক কার্টুন অথবা ক্যারেটে পুরাতন খবরের কাগজ মুড়িয়ে প্যাকিং করা হয়। পরে ট্রাকে লোড দিয়ে পাঠানো হয়ে থাকে দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে। একত্রে যারা আম স্প্রে করা সহ প্যাকিং করে থাকে তাদেরও স্বাস্থ্য মারাত্নক ঝুকির মধ্যে রয়েছে।
স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রাইস মিথানল, কারবাইট সালফেট, ফরমালিন সহ বিষাক্ত কেমিক্যাল একত্রে মিশিয়ে স্প্রে করা আম খেলে মানুষের পেটের পিড়া, লিভার সিরোসিস, কিডনি নষ্ট, হৃদযন্ত্রের মারাত্নক ক্ষতি সহ দেহের কোষ কলা ধ্বংস হয়ে শারীরিক বিপর্যয় ঘটেতে পারে। এমনকি অধিক মাত্রায় এই আম খেলে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।
এ ব্যাপারে এলাকাবাসী অসাধু আম ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রসাশনের উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 332 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ