শীতের কাঁপন রয়েই গেছে

Print

দেশের দক্ষিণের জেলা সাতক্ষীরায় তাপমাত্রা ছিল ৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ ছাড়া চুয়াডাঙ্গায় ৭ দশমিক ৫, কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৮ দশমিক ৭, বিভাগীয় শহর খুলনার তাপমাত্রা ছিল ৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

তবে রাজধানী ঢাকার শীতের তীব্রতা আগের দিনের চেয়ে কিছুটা বেড়েছে। গতকাল বুধবার ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১২ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আজ সেটি হয়েছে ১১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

দেশের উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোতে এখনো মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। রংপুরে ৭ দশমিক ২, দিনাজপুরে ৭ দশমিক ৭, পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় তাপমাত্রা ছিল ৮ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

অন্যান্য বিভাগীয় শহরের মধ্যে ময়মনসিংহে ৯, চট্টগ্রামে ১২, সিলেটে ১১ দশমিক ৭, রাজশাহীতে ৭ দশমিক ৫ এবং বরিশালে তাপমাত্রা ছিল ৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

শৈত্যপ্রবাহের সঙ্গে কুয়াশা আজও পড়তে জানিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারা দেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে। এ ধরনের কুয়াশা উত্তর পশ্চিমাংশে দুপুর পর্যন্ত থাকতে পারে। টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, ময়মনসিংহ, শ্রীমঙ্গল, কুমিল্লা, সীতাকুণ্ড, ফেনী ও হাতিয়া অঞ্চলসহ রাজশাহী, রংপুর, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে। তবে দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 94 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ