সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও মাদকের নির্মূলে ভূমিকা রাখুন

Print

সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে বিশেষ ভূমিকা রাখতে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর (ভিডিপি) সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
রবিবার গাজীপুরের সফিপুরে আনসার ও ভিডিপি একাডেমিতে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর ৩৭তম জাতীয় সমাবেশ অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনারা পারেন সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে বিশাল ভূমিকা রাখতে। যেন আমাদের ছেলেমেয়েরা এই মাদকাসক্তিতে না জড়ায়, জঙ্গিবাদ সন্ত্রাসের সঙ্গে না জড়ায়। এ ব্যাপারে আপনাদের ভূমিকরা রাখতে হবে।
‘সচেতনতা সৃষ্টি করা, প্রতিরোধ গড়ে তুলে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বিশেষ ভূমিকা রাখবেন বলে আশা করি।’
সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ শুধু বাংলাদেশের নয়, বিশ্বব্যাপী সমস্যা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ অপকর্ম অথবা মাদকাসক্তের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সহায়তা করবেন।
বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীকে মাটি ও মানুষের বাহিনী হিসেবে আখ্যা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জরুরি প্রয়োজনে সরকারের বিশ্বস্ত হিসেবে এ বাহিনী বারবার উৎকৃষ্ট প্রমাণ রেখেছে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে জাতির প্রয়োজনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে আসছে।
বিগত নির্বাচন ও বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনের সময়কার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিগত সময়ে বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড প্রতিরোধ ও জনগণের জানমাল রক্ষায় বিরাট দায়িত্ব পালন করেছে আনসার ও ভিডিপি। বিশেষ করে রেল রক্ষা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিলো।
তিনি বলেন, আপনারা মহাসড়কে নাশকতা রোধ থেকে শুরু করে জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস দমনে মহান ভূমিকা রেখেছেন, জাতিকে রক্ষা করেছেন এবং নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে, যার মধ্য দিয়ে আমরা টানা দ্বিতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে দেশের উন্নয়ন কার্যক্রম অব্যহত রাখতে সক্ষম হয়েছি। সেজন্য আপনাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।
আনসার সদস্যরা প্রতিটি নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন এবং মানুষের জানমাল রক্ষার পাশাপাশি ভোটাধিকার প্রয়োগে সহযোগিতা করছেন বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি উন্নয়নের ক্ষেত্রে আনসার ও ভিডিপির প্রশংসা করে বলেন, আনসার ভিডিপি সরকারের উন্নয়ন অংশীদার। বিশেষ করে শিল্প কলকারখানা, সমুদ্র ও বিমানবন্দরের নিরাপত্তা রক্ষায় আনসার সদস্যরা সর্বদা উপস্থিত থেকে দেশের অর্থনৈতিক চাকাকে গতিশীল রেখেছেন, নিরাপদ রেখেছেন। কূটনৈতিক পাড়া থেকে শুরু করে বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন জায়গায় আজকাল অনেকে আনসার বাহিনীকে নিচ্ছে নিরাপত্তার জন্য।
আনসার ও ভিডিপির জন্য সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, এ বাহিনীর উন্নয়নে সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধিসহ কল্যাণমূলক কাজ করে যাচ্ছি।
শুধু নিজেরা নয়, গ্রামের মানুষকেও প্রশিক্ষণ দেয়া এবং সরকারের দেয়া বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা কাজে লাগিয়ে আনসার ও ভিডিপিকে সাবলম্বী হওয়ার পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী।
সকাল পৌনে ১০টার দিকে একাডেমির প্যারেড গ্রাউন্ডে পৌঁছালে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, স্বরাষ্ট্র সচিব, আনসার ও ভিডিপির মহাপরিচালক।
এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে সশস্ত্র সালাম জানায় আনসার ও ভিডিপির একটি চৌকস দল।
প্রধানমন্ত্রী খোলা জিপে প্যারেড পরিদর্শন করেন এবং কুচকাওয়াজের সালাম গ্রহণ করেন।
পরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সাহসিকতা ও সেবামূলক কাজের জন্য আনসার ও ভিডিপি সদস্যদের মধ্যে পদক প্রদান করেন প্রধানমন্ত্রী।
বক্তব্য শেষে প্রধানমন্ত্রী বেশ কিছু উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।
পরে তিনি কেক কাটেন এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।
সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন ছাড়াও নাটিকার মাধ্যমে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ, যৌতুক, বাল্য বিবাহ, সামাজিক কুসংস্কার, শিক্ষাসহ বিভিন্ন বিষয় সর্ম্পকে তুলে ধরা হয়।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

(লেখাটি পড়া হয়েছে 75 বার)


Print
এই পাতার আরও সংবাদ